অজুহাতেই ঘর ছাড়া ওরা

আপডেট: April 7, 2020, 11:41 pm

নিজস্ব প্রতিবেদক


কাজ ছাড়াই বের হচ্ছেন তারা। এক শ্রেণির মানুষকে কিছুতেই ঘরে আটকে রাখা সম্ভব হচ্ছে না। ঘরবন্দির নিষেধাজ্ঞার সঙ্গে মানছে না সামজিক দূরত্বও। এসব মানুষ প্রশাসনের হাতে ধরা পড়লেও জরুরি প্রয়োজন দেখিয়ে নিচ্ছে মুক্তি। তারা প্রশাসনের প্রচার-প্রচারণা উপেক্ষা করে দোকানপাট খোলা, অটোরিকশা, রিকশা, মোটরসাইকেলে চলাফেরা চালিয়ে যাচ্ছে। ফলে অনেটাই ঝুঁকির সৃষ্টি হয়েছে।
সম্প্রতি করোনা ভাইরাসের সংক্রমণ প্রতিরাধে সবকিছু বন্ধের সিন্ধান্ত নিয়েছে সরকার। তার প্রেক্ষিতে অঘোষিত লকডাউনে অনেকটাই ফাঁকা রাজশাহী শহর। শহরে আশা-যাওয়া পুরোপুরি বন্ধ। তবে শহরের ভেতরে চলাফেরা বন্ধ করা সম্ভব হচ্ছে না।
সড়কে মানুষের উপস্থিতি গত কয়েক দিনের তুলনায় কিছুটা হলেও বেড়েছে। করোনা সংক্রাম ঠেকাতে কিছুতে তাদের ঘর বন্ধ করা সম্ভব হচ্ছেনা।
সরেজমিনে দেখা গেছে, সড়কে যানবাহনের উপস্থিতি হাতেগোনা। কোন অটোরিকশায় এক থেকে দু’জন নিয়ে চোষে বেড়াচ্ছে শহর। তবে অটোর তুলনায় মোড়ে মোড়ে রিকশার উপস্থিতি বেশি লক্ষ্য করা গেছে।
গতকাল মঙ্গলবার বিকেল সাড়ে চারটার দিকে নগরীর ভদ্রা মোড়ে পুলিশের চেক পোস্ট দেখা গেছে। সেখানে রিকশা থামিয়ে জিজ্ঞাসাবাদ করতে দেখা গেছে। এসময় জরুরি প্রয়োজন দেখানোয় তাদের ছেড়ে দেয় পুলিশ।
পুলিশ বলছে, করোনা ভাইরাস সংক্রামন রোধে সরকারি নিদের্শনা অনুযায়ি কাজ করছেন তারা। সেই লক্ষ্যে যে সকল মানুষ প্রয়োজন ছাড়া ঘরের বাইরে বের হয়েছেন, তাদের বাড়ি ফিরিয়ে দেওয়া হচ্ছে। বেশির ভাগ মানুষ বিভিন্ন অজুহাত দেখাচ্ছেন। অনেকেই জরুরি প্রয়োজন, ওষুধ কেনা, গার্ডের ডিউটি ও হাসপাতালে যাবেন। এসব কারণ দেখাচ্ছেন।
ভদ্রা এলাকায় নুরুল ইসলাম নামের এক ব্যক্তি বলেন, অনেক দিন থেকে বাড়িতে বসে আছি। কামের (কাজ) ঠিক নাই। বাড়িতে বসে থাকতে ভালোলাগে না। ভদ্রায় একলোকের সাথে দেখা করতে এসেছিলাম। কিন্তু পুলিশ বললো বাড়ি যান। চাই চলে যাচ্ছি।
যদিও সংক্রামন ঠেকাতে প্রশাসনের পক্ষ থেকে বিভিন্ন প্রচার প্রচারণা চালানো হচ্ছে প্রতিনিয়তই। জনসমাগম এড়ানো, মসজিদে নামাজ পড়তে ইমাম, মোয়াজ্জেমসহ দুই একজনের বেশি নয়। ঘরের বাইরে বের হওয়া যাবে না। এমন ঘোষণার পরেও মানুষকে ঘরে আটকে রাখা সম্ভব হচ্ছে না। তরে পরেও সড়কে পুলিশের টহল। মসজিদে মুসল্লিদের বাড়িতে নামাজ পড়তে বলা হচ্ছে। তাই মসজিদে মুসল্লিদের অনেকটাই কমেছে।
তবে করোনা ভাইরাস প্রতিরোধে কাজ করছে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারি বাহিনী। এই সংস্থার পক্ষ থেকে রাজশাহী নগরীর বিভিন্ন মোড়ে মোড়ে বসানো হয়েছে চেকপোস্ট। অটো বা রিকশায় চলাচলকারীদের করা হচ্ছে জেরা।
এবিষয়ে রাজশাহী নগর পুলিশের মুখপাত্র গোলাম রুহুল কুদ্দুস বলেন, কোন লোকজন যেনো অযথা বাইরে বরে না হয়। সে লক্ষ্যে মানুষকে সচেতন করা হচ্ছে। এছাড়া সামাজিদ দূরুত্ব বজায় রখতে কাজ করছে পুলিশ।