অধিনায়কদের বিশ্বাস, এই বিশ্বকাপ হবে সবচেয়ে প্রতিদ্বন্দ্বিতাপূর্ণ

আপডেট: মে ২৫, ২০১৯, ১২:৫১ পূর্বাহ্ণ

সোনার দেশ ডেস্ক


এক ঘণ্টার প্রাণবন্ত আলোচনা। হাসি-আড্ডা, মজার ছলে কত বাঁক ধরে ছুটল কথার সুর। সব ক্ষনিকের জন্য থমকে গেল একটি মোড়ে এসে। প্রতিপক্ষের কোন ক্রিকেটারকে নিজ দলে চান? বিপাকে পড়লেন বিশ্বকাপের ১০ অধিনায়ক। একটু ভেবে কেউ উত্তর দিলেন সরাসরি, কেউ পেঁচিয়ে। কারও উত্তর হলো কৌশলী, কারও খোলামেলা।
বিশ্বকাপ শুরুর আগে বৃহস্পতিবার ১০ অধিনায়ককে নিয়ে বিশেষ আয়োজন ছিল আইসিসির। অধিনায়কদের মঞ্চের পথে এগিয়ে নিয়েছেন স্থানীয় কিছু একাডেমির শিশু ক্রিকেটাররা। সংবাদমাধ্যমের পাশাপাশি তাদের প্রশ্ন করার সুযোগও ছিল। তাদের মধ্যেই শিশুর লিখিত প্রশ্ন সোরগোল তুলল তুমুল। হাসির হুল্লোড় উঠল, করতালি আদায় করল প্রচুর। প্রতিপক্ষের কোন ক্রিকেটারকে নিজ দলে চান?
ইংল্যান্ডে পা পড়েছে সব দলের। ওয়ার্ম আপ ম্যাচে ঘাম ঝরিয়ে তারা নেমে পড়বেন আসল লড়াইয়ে। এই বিশ্বকাপকে কিন্তু তাদের সবাই দেখছেন অন্য চোখে। ১০ দলের অধিনায়কের বিশ্বাস, এই টুর্নামেন্ট হবে সবচেয়ে প্রতিদ্বন্দ্বিতাপূর্ণ।
১৯৯২ সালের পর প্রথমবার রাউন্ড রবিন পদ্ধতিতে হচ্ছে বিশ্বকাপ। ১০ দল প্রত্যেকে একে অপরের সঙ্গে লড়বে, সেরা চার দল খেলবে সেমিফাইনাল। আর এই বদলে যাওয়া ফরম্যাটের কারণেই প্রতিদ্বন্দ্বিতা বাড়বে মনে করছেন অধিনায়করা। লন্ডনের দ্য ওভালে ইংল্যান্ড ও দক্ষিণ আফ্রিকার ম্যাচ দিয়ে ৩০ মে শুরু হবে বিশ্বকাপ।
এউইন মরগান ও মাশরাফি মুর্তজা সহ ১০ দলের অধিনায়করা নেমে যেতে প্রস্তুত। প্রত্যেকে সমীহ পাচ্ছে এই বিশ্বকাপে। ইংল্যান্ড অধিনায়ক মরগান বলেছেন, ‘আমি মনে করি না কেউই একে অন্যর চেয়ে উপরে। বিশ্বের সেরা দল দল এখানে, এটা হবে অসাধারণ প্রতিদ্বন্দ্বিতাপূর্ণ। মানসম্পন্ন ক্রিকেট হবে এবার, তাই আমরা সত্যিই খেলতে উন্মুখ হয়ে আছি।’
ভারত অধিনায়ক বিরাট কোহলি ইংল্যান্ডকে শক্তিশালী প্রতিপক্ষ মানছেন, ‘এই টুর্নামেন্টে ইংল্যান্ড তাদের কন্ডিশনে সবচেয়ে শক্তিশালী দল। কিন্তু সব দলেই অনেক শক্তিশালী এবং দারুণ ভারসাম্যপূর্ণ। মূল কথা হচ্ছে আমাদের সবাইকে একবার করে প্রত্যেকের সঙ্গে খেলতে হবে। আমি মনে করি এটাই হবে সবচেয়ে প্রতিদ্বন্দ্বিতাপূর্ণ বিশ্বকাপ যা আগে কেউ কখনও দেখেনি।’
বিশ্বকাপ শিরোপা ধরে রাখার মিশনে ডেভিড ওয়ার্নার ও স্টিভ স্মিথকে ফিরে পেয়ে উচ্ছ্বসিত অ্যারন ফিঞ্চ। দুই অভিজ্ঞ খেলোয়াড়কে অভিনন্দন জানিয়ে অস্ট্রেলিয়া অধিনায়ক বলেছেন, ‘ওয়ার্নার ও স্মিথ দলে ফেরার পর থেকে তারা চমৎকার খেলছে এবং দারুণ অবদান রেখে চলেছে। তাদের মানসিক দৃঢ়তা অবিশ্বাস্য।’ চার সেমিফাইনালে বিদায় নেওয়া দক্ষিণ আফ্রিকা এবার সবাইকে চমকে দিতে চায়। প্রথম অধিনায়ক হিসেবে শিরোপা জেতার সুযোগ ফাফ দু প্লেসির। প্রোটিয়া অধিনায়ক বললেন, ‘এই নতুন ফরম্যাটের টুর্নামেন্টে ভালো কিছুর চেষ্টা করতে আমরা সবাই উন্মুখ হয়ে আছি। প্রত্যেককে একবার করে খেলা সত্যিই দারুণ।’
২০১৭ সালে ইংল্যান্ডে চ্যাম্পিয়নস ট্রফি জয়ী পাকিস্তান অধিনায়ক সরফরাজ আহমেদ বেশ আত্মবিশ্বাসী, ‘সব দল সত্যিই ভারসাম্যপূর্ণ। আমার মনে হয়, দর্শকরা সেরা ক্রিকেট ম্যাচগুলো দেখতে যাচ্ছে।’ এই উইকেটরক্ষক ব্যাটসম্যান আরও বলেছেন, ‘১৯৯২ সালে বিশ্বকাপ জেতার পর থেকে ইংল্যান্ডে ১৯৯৯ সালে ফাইনাল খেলেছি, ২০১৭ সালে জিতলাম চ্যাম্পিয়নস ট্রফি। ইংল্যান্ডে আমাদের সব ভালো যায়, তাই আমরা ভালো করতে এবং প্রতিপক্ষককে চ্যালেঞ্জ জানাতে আত্মবিশ্বাসী।’
চার বছর আগে রানার্স-আপ হয়েছিল নিউজিল্যান্ড। অধিনায়ক কেন উইলিয়ামসনের আশা এবার আরও ভালো কিছু হবে। তিনি বলেছেন, ‘গত বিশ্বকাপ খেলা বেশ কয়েকজন এবার আছে দলে, যেটা দারুণ ব্যাপার। কিন্তু চার বছরের মধ্যে অনেক নতুন খেলোয়াড়ও এসেছে। র‌্যাংকিং, ফেভারিট, আন্ডারডগ নিয়ে অনেক কথা হচ্ছে কিন্তু আসল কথা হচ্ছে কতটা ভারসাম্যপূর্ণ। যে কোনও কিছু ঘটতে পারে এবার, এটাই রোমাঞ্চ জাগাচ্ছে।’
ওয়েস্ট ইন্ডিজ অধিনায়ক জেসন হোল্ডার যোগ করেছেন, ‘এটা খুবই উত্তেজনাকর ফরম্যাট। অতীতে আমরা পাঁচটি বা ছয়টি ম্যাচ খেলেছি। কিন্তু এবার অন্য ব্যাপার। প্রত্যেক দলের বিপক্ষে খেলা আমাদের জন্য দারুণ।’
শ্রীলঙ্কার নতুন অধিনায়ক দিমুথ করুণারতেœ বলেছেন, ‘ইংল্যান্ডে আমাদের দারুণ অভিজ্ঞতা রয়েছে। এই কন্ডিশনে মানিয়ে নিতে আমরা আগেভাগে এখানে এসেছি এবং আমরা দারুণ অবস্থায় আছি। আশা করি সেরাটা দিতে পারবো। একটি করে ম্যাচ ধরে ধরে এগোব আমরা।’
বিশ্বের সেরা দলগুলোর প্রত্যেকের সঙ্গে খেলার সুযোগ পেয়ে রোমাঞ্চিত আফগানিস্তান অধিনায়ক গুলবাদিন নাইব, ‘এখানে এসে আমরা রোমাঞ্চিত। ক্রিকেট বিশ্বের সামনে সেরা দলগুলোকে খেলতে পারা অসাধারণ ব্যাপার। বিশ্বের সামনে আফগানিস্তানকে তুলে ধরা দারুণ এবং আমরা উন্মুখ হয়ে আছি।’
সবার শেষে আত্মবিশ্বাসী কণ্ঠে নিজের দলের সম্ভাবনা নিয়ে কথা বললেন বাংলাদেশের অধিনায়ক মাশরাফি মুর্তজা, ‘আমাদের দলে চমৎকার খেলোয়াড়রা আছে, সিনিয়র ও জুনিয়রদের দারুণ মিশেল। ক্রিকেট এমন খেলা যেখানে যে কেউ নিজেদের দিনে যে কাউকে হারাতে। আমরা ভালো শুরুর ব্যাপারে আশাবাদী। আমরা ভালো করতে আত্মবিশ্বাসী, কিন্তু অনেক কিছু নির্ভর করছে শুরুর ওপর।’