আকস্মিক বাস ধর্মঘটে ভোগান্তিতে যাত্রীরা || সন্ধ্যায় বাস চলাচল শুরু

আপডেট: নভেম্বর ৯, ২০১৮, ১২:২৩ পূর্বাহ্ণ

নিজস্ব প্রতিবেদক ও নাটোর অফিস


রাজশাহী-নাটোর থেকে ঢাকাসহ সারাদেশে বাস চলাচল শুরু করেছে। গতকাল বৃহস্পতিবার রাত সাড়ে নয়টার দিকে রাজশাহী সড়ক পরিবহন গ্রুপের সাধারণ সম্পাদক মনজুর রহমান পিটার বিষয়টি নিশ্চিত করে বলেন, নাটোরে শ্রমিকদের সঙ্গে সমস্যা ছিলো তা সমাধান হয়েছে সন্ধ্যায়। তারপর থেকে বাস চলাচল স্বাভাবিক হয়। এর ফলে রাজশাহী থেকে সব রুটে বাস চলাচল শুরু করেছে।
এদিকে নাটোর পরিবহন শ্রমিক ইউনিয়নের সাধারণ সম্পাদক সাজেদুল ইসলাম সাগর এ তথ্য নিশ্চিত করে বলেন, রাজশাহী ও নাটোরের বাস শ্রমিকদের মধ্যে সমস্যা সমাধন হয়েছে। তাই সকল রুটে বাস চলাচল শুরু হয়েছে।
এদিকে, আকস্মিক এই ধর্মঘটের কারণে রাজশাহী, নাটোর-ঢাকা রুটের সাধারণ যাত্রীরা পড়েছেন চরম দুর্ভোগে। কেউ কেউ বিকল্প হিসেবে ট্রেনে চেপে যাত্রা করছেন। তাবে আকস্মিক এই ধর্মঘটের কারণে বেশ বেগ পেতে হয়েছে যাত্রীদের।
অন্যদিকে, নাটোরে পূর্ব ঘোষণা ছাড়াই শ্রমিক লাঞ্ছনার কারণ দেখিয়ে দ্বিতীয় দিনের মত সারাদেশের বাস চলাচল বন্ধ করে দিয়েছে পরিবহণ শ্রমিকরা। শ্রমিক নেতারা বলছেন, পরিবহণ শ্রমিক নির্যাতন ও রাজশাহীতে বাসের চেইন নিয়ে বিরোধের কারণে গত বৃহস্পতিবার সকাল থেকে নাটোরের শ্রমিকরা অনির্দিষ্টকালের জন্য বাস চলাচল বন্ধ করে দেয়। তবে কোথায় কোনো শ্রমিক লাঞ্ছিত বা নির্যাতিত হয়েছে কি না তা জানাতে পারেনি কেউ। এদিকে আকস্মিকভাবে বাস ধর্মঘটের ফলে চরম ভোগান্তিতে পড়েছে সব শ্রেণির মানুষ। এদিন সকাল থেকে বাসস্ট্যান্ড ও টার্মিনালে গিয়ে বাস না পেয়ে অনেকে ফিরে গেলেও অফিসগামী মানুষ, রোগী, শিক্ষক-শিক্ষার্থীরা পড়েন চরম বিপাকে।
অপরদিকে বিএনপির নেতৃবৃন্দ বলছেন, রাজশাহীতে শুক্রবারের যে জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের সমাবেশ হওয়ার কথা রয়েছে তা বানচাল করার জন্য এ পরিবহন ধর্মঘট করা হচ্ছে।
একতা পরিবহনের নাটোর কউন্টারের মাস্টার মিজানুর জানান, গতকাল বৃহস্পতিবার সকালে চাঁপাইনবাবগঞ্জ থেকে ছেড়ে আসা ঢাকাগামী একতা পরিবহনের একটি বাস নাটোর শহরে আটকে দিয়ে যাত্রীদের নামিয়ে দেয়া হয়েছে। তবে কী কারণে বাস চলাচল বন্ধ করে দেয়া হয়েছে সে বিষয়ে সঠিক কোনো কারণ জানাতে পারে নি নাটোর জেলা বাস মিনিবাস মালিক সমিতির নেতারা।
এদিকে রাজশাহী বাস মালিক সমিতির নেতারা বলছেন, নাটোরের উপর দিয়ে কোনো রকমের বাস চলতে দিচ্ছে না নাটোরের মালিক সমিতি। বাস বন্ধের বিষয়ে ঢাকা কোচের কাউন্টার মাস্টাররাও তেমন কোনো উত্তর দিতে পারছেন না। তারা জানান, হঠাৎ করে শ্রমিক ইউনিয়নের নেতারা বাস চলাচল বন্ধ করে দিয়েছে। এছাড়াও যাদের টিকিট কাটা রয়েছে তাদের টিকিটের টাকা ফেরৎ দিতে হচ্ছে।
নাটোর জেলা শ্রমিক ইউনিয়নের কার্যকরি সদস্য সাইফুল ইসলাম বলেন, রাজশাহীর সাথে অভ্যন্তরিন বিরোধের কারণে নাটোর থেকে ঢাকাসহ সকল রুটের বাস চলাচল অনির্দিষ্টকালের জন্য বন্ধ করে দেয়া হয়েছে। কোনো জেলা থেকে ছেড়ে আসা যাত্রীবাহী বাস নাটোরের উপর দিয়ে যেতে দেয়া হবে না। এজন্য তারা একতা পরিবহনের যাত্রীদের ও নামিয়ে দিয়েছেন।
নাটোর জেলা শ্রমিক ইউনিয়নের ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক আকরাম হোসেন জানান, তাদের এক শ্রমিককে রাজশাহীতে লাঞ্ছিত করার কারণেই অনির্দিষ্টকালের জন্য বাস চলাচল বন্ধ করা হয়েছে।
নাটোর জেলা বাস ও মিনি বাস বাস মালিক সমিতির সাধারণ সম্পাদক সাজেদুল ইসলাম সাগর জানান, শ্রমিক সমিতির নেতৃবৃন্দ তাদের কাছে চিঠি দিয়ে জানিয়েছে গতকাল বৃহস্পতিবার সকাল থেকে কোনো প্রকারের গাড়ি তারা চালাবে না। সে কারণে মালিক সমিতি নাটোর থেকে সব রুটে সকল প্রকার বাস চলাচল বন্ধ করে রেখেছে।
এ ব্যাপারে নাটোর জেলা বিএনপির সভাপতি ও কেন্দ্রীয় কমিটির সাংগঠনিক সম্পাদক এম রুহুল কুদ্দুস তালুকদার দুলু বলেছেন, শ্রমিক লাঞ্ছিত ও বাসের চেইন কোনো বিষয় নয়। এটা সুপরিকল্পিত ভাবে রাজশাহীতে শুক্রবারের যে জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের সমাবেশ হওয়ার কথা রয়েছে তা বানচাল করার জন্য সরকার দলীয় শ্রমিক ও মালিকরা এ পরিবহণ ধর্মঘট পালন করছে ।
এব্যাপারে নাটোর সদর সার্কেলের সহকারী পুলিশ সুপার আবুল হাসনাত জানান, তিনি বাস চলাচল বন্ধের কথা শুনেছেন। কিন্তুু কি কারণে এ বাস বন্ধ করা হয়েছে তিনি তা জানেন না।
নাটোরের জেলা প্রশাসক গোলামুর রহমান জানান, বাস চলাচল বন্ধকে কেন্দ্র করে আইনশৃঙ্খলা অবনতি হলে সেটা দেখা হবে। বাস ধর্মঘটের ব্যাপারে স্থানীয় ও ঢাকার নেতৃবৃন্দের সঙ্গে আলাপ করে বিষয়টি সুরাহা করা কবে।