আক্কেলপুরে তুচ্ছ ঘটনাকে কেন্দ্র করে জিআরপি পুলিশের গুলিতে আহত ৩ || একজনের অবস্থা আশঙ্কাজনক

আপডেট: সেপ্টেম্বর ১৩, ২০১৭, ১:৪১ পূর্বাহ্ণ

আক্কেলপুর প্রতিনিধি


আক্কেলপুরে রেল পুলিশের গুলিতে আহতরা-সোনার দেশ

জয়পুরহাটের আক্কেলপুরে তুচ্ছ ঘটনাকে কেন্দ্র করে জিআরপি পুলিশ গুলি বর্ষণ করেছে। এ সময় তিনজন গুলিবিদ্ধ হয়েছেন। এ ঘটনায় সুমন নামের একজনকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ।
জানা গেছে, গতকাল মঙ্গলবার সন্ধা ৬টা দশ মিনিটে চিলাহাটি থেকে ছেড়ে আসা তিতুমির এক্সপ্রেস ট্রেনটি আক্কেলপুর রেলস্টেশনে পৌঁছালে ট্রেনে থাকা দুই জন যাত্রীর মধ্যে বাকবিতন্ডা শুরু হয়। এক পর্যায়ে রেলস্টেশনে অবস্থানরত সুমন নামের একজন যুবক ঘটনাটি মিমাংসা করে দেয়ার জন্য জিআরপির এএসআই ফজুলল ইসলামকে অনুরোধ করেন। এতে এএসআই ফজলুল ইসলাম ক্ষিপ্ত হয়ে সুমনকে মারপিট করে আহত করেন।
এ সময় স্টেশনে অবস্থানরত যাত্রীরা এ ঘটনার প্রতিবাদ করলে এএসআই ফজুলল ট্রেনের দরজায় দাড়িয়ে তার রিভালবার দিয়ে ৪ রাউন্ড গুলি ছোড়েন। এতে স্টেশনের প্লাটর্ফম দিয়ে হেটে যাওয়ার সময় আক্কেলপুরের হাস্তাবসন্তপুর গ্রামের মৃত আজগর আলির ছেলে আজিজার রহমান (৫৬), পূর্ব হাস্তাবসন্তপুর গ্রামের মৃত ইব্রাহিমের ছেলে সুমন (৩০), হাস্তাবসন্তপুর গ্রামের আবু বক্কর সিদ্দিকের মানসিক প্রতিবন্ধি ছেলে সাইদ হোসেন (২০) গুলিবিদ্ধ হন। এসময় স্টেশন এলাকায় উত্তেজনার সৃষ্টি হয়। খবরটি মূহুর্তের মধ্যে ছড়িয়ে পড়লে শত শত মানুষ উপস্থিত হয়ে এ ঘটনার বিচার দাবি করেন। আক্কেলপুর থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) সিরাজুল ইসলাম বিষয়টি জানতে পেরে ঘটনাস্থলে উপস্থিত হয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রন করতে চেষ্টা চালান।
এসময় আক্কেলপুর উপজেলা প্রেসক্লাবের সাংবাদিকবৃন্দ ও স্থানীয় আওয়ামী লীগ, যুবলীগ, ছাত্রলীগের নেতাকর্মিরা ঘটনাস্থলে উপস্থিত হয়ে বিষয়টি সর্ম্পকে জানতে চাইলে একপর্যায়ে ওসি সিরাজুল ইসলাম নেতাকর্মি ও সাংবাদিকদের উপরে ক্ষিপ্ত হয়ে হুমকি দিয়ে বলেন ‘এই তোরা কেরে ? আমি ওসি বলছি তোদের সাইজ করে ফেলব’, এবং ভয়ভীতি দেখিয়ে জিআরপি পুলিশৈর সদস্যদের ট্রেনের ভিতরে নিরাপদে রেখে দরজা বন্ধ করে ট্রেন ছেড়ে দিতে বাধ্য করেন। ট্রেন ছাড়ার সময় সুমন নামের এক ব্যাক্তিকে গ্রেফতার করে জিআরপি নিয়ে যায়।
স্থানীয় জনতা আহতদের উদ্ধার করে আক্কেলপুর উপজেলা ৫০ শয্যা বিশিষ্ট হাসপাতালে ভর্তি করালে এক জনকে প্রাথমিক চিকিৎসার পর ছেড়ে দেন চিকিৎসক। আহত অপর দুজনের মধ্যে এক জনের অবস্থা আশঙ্কাজনক। এ বিষয়কে কেন্দ্র করে রেলস্টেশন এলাকায় চরম উত্তেজনা বিরাজ করছে। ইতোমধ্যে নিরাপত্তা চেয়ে পুলিশ ফোর্সের আবেদন করা হয়েছে।
এ বিষয়ে জিআরপির এএসআই ফজুলল ইসলামের কাছে জানতে চাইলে তিনি বলেন, অজ্ঞাত দুই জন ব্যক্তির ট্রেনের মধ্যে হাতাহাতি থামানোর চেষ্টা করলে অনাকাঙ্খিতভাবে এ ঘটনাটি ঘটে।
আক্কেলপুর স্টেশন মাস্টার খাতিজা বেগমের কাছে বিষয়টি জানার চেষ্টা করলে তাকে খুঁজে পাওয়া যায় নি।
এ বিষয়ে জানতে সান্তহার জিআরপি থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) এসএম আরিফুর রহমানের কাছে জানতে চাইলে তিনি বলেন, ট্রেনে সিটে বসাকে কেন্দ্র করে দুই যাত্রীর মধ্যে হাতাহাতির ঘটনা ঘটে। এসময় পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে পুলিশ গুলি ছোড়ে। তিনি আরো জানান, এ ঘটনায় একজনকে গ্রেফতার করা হয়েছে। মামলা দায়েরের প্রস্তুতি চলছে। ট্রেনটি নির্ধারিত সময়ের চেয়ে দুইঘণ্টা বিলম্বে আক্কেলপুর স্টেশন ত্যাগ করে।