আবাহনীকে হারিয়ে সাইফ স্পোর্টিংয়ের ‘প্রতিশোধ’

আপডেট: নভেম্বর ১৪, ২০১৭, ১২:৩৫ পূর্বাহ্ণ

সোনার দেশ ডেস্ক


কলকাতার ইস্টবেঙ্গল থেকে যোগ দিয়েছেন হাইতির ওয়েডসন এনসেলমে, ইংল্যান্ড থেকে এসেছেন আরেক স্ট্রাইকার চার্লি শেরিংহ্যাম। দুই বিদেশির লক্ষ্যভেদে ঢাকা আবাহনী লিমিটেডকে ২-১ গোলে হারিয়ে দিয়েছে সাইফ স্পোর্টিং ক্লাব। বাংলাদেশ প্রিমিয়ার লিগের ফিরতি পর্বের শুরুতে এক হিসেবে প্রতিশোধই নিয়েছে নবাগত দলটি। লিগের উদ্বোধনী ম্যাচে বর্তমান চ্যাম্পিয়ন আবাহনী ৩-২ গোলে সাইফ স্পোর্টিংকে হারিয়েছিল।
১২ ম্যাচে ২৫ পয়েন্ট নিয়ে দ্বিতীয় স্থানে উঠে এসেছে সাইফ। ২৪ পয়েন্টে আটকে থাকা ঢাকা আবাহনীর অবস্থান তাদের ঠিক পরেই।
সোমবার বঙ্গবন্ধু জাতীয় স্টেডিয়ামে ম্যাচের শুরু থেকে ছিল সাইফ স্পোর্টিংয়ের আধিপত্য। মাঝমাঠ নিয়ন্ত্রণ করে, ওয়েডসনকে কেন্দ্র করে আক্রমণে উঠেছে নবাগতরা। প্রতিপক্ষের আক্রমণের ঝড়ে আবাহনীর রক্ষণভাগকে বেশ কয়েকবার কঠিন পরীক্ষা দিতে হয়েছে।
১৯ মিনিটে অধিনায়ক জামাল ভূঁইয়ার কর্নার থেকে ওয়েডসনের হেড মাটিতে পড়ে ক্রসবারের ওপর দিয়ে চলে যায়। ২৭ মিনিটে একজনকে কাটিয়ে জামালের নেওয়া জোরালো শট পোস্টের ওপর দিয়ে বেরিয়ে আবার হতাশ করে সাইফ স্পোর্টিংকে।
তবে ৩২ মিনিটে তাদের হতাশায় পুড়তে হয়নি। ডান প্রান্ত থেকে জুয়েল রানার ক্রস সামাদ ইউসুফ হাত দিয়ে ঠেকালে বেজে ওঠে রেফারি ভুবন মোহন তরফদারের বাঁশি। পেনাল্টি থেকে ওয়েডসন এগিয়ে দেন দলকে।
গোলের পরও সাইফের আক্রমণে ভাটা পড়েনি। ৫৭ মিনিটে বক্সের ভেতর থেকে নেওয়া ওয়েডসনের শট চলে যায় ক্রসবার উঁচিয়ে। পরের মিনিটেই জুয়েল রানার কোনাকুনি শট বারের ওপর দিয়ে চলে যায়।
দুটো সুবর্ণ সুযোগ নষ্ট করা সাইফ ব্যবধান দ্বিগুণ করেছে ৭৫ মিনিটে। জামালের কর্নার থেকে হেডে লক্ষ্যভেদ করে ঢাকার মাঠে অভিষেক স্মরণীয় করে রাখলেন চার্লি শেরিংহ্যাম। ইংল্যান্ডের সাবেক তারকা ফুটবলার টেডি শেরিংহ্যামের ছেলে প্রথম ম্যাচেই গোল করে উচ্ছ্বসিত, ‘আমি আগেই বলেছি, ঢাকার মাঠে ভালো পারফর্ম করতে চাই। প্রথম ম্যাচে গোল পেয়ে আমি খুবই খুশি।’
গাম্বিয়ান মিডফিল্ডার ল্যান্ডিং ডারবোর অনুপস্থিতিতে আবাহনীর মাঝমাঠ ছিল অকেজো। সোহেল রানা-ইমন বাবুরা সামনের দিকে বলের জোগান দিতে পারছিলেন না। শেষ দিকে অবশ্য আকাশী জার্সিধারীদের আক্রমণের ধার বেড়েছে। ৮২ মিনিটে নাবীব নেওয়াজ জীবনের প্লেসিং শট ঠেকিয়ে দিয়েছেন সাইফ স্পোর্টিংয়ের গোলরক্ষক পাপ্পু হোসেন। তবে ৮৯ মিনিটে আবাহনীকে গোলবঞ্চিত করতে পারেনি আবির্ভাবেই চমক দেখানো দলটি। আরিফুলের হ্যান্ডবলের সুবাদে পেনাল্টি থেকে ব্যবধান কমিয়েছেন নাইজেরিয়ান স্ট্রাইকার সানডে চিজোবা। ইনজুরি টাইমে রায়হানের লম্বা থ্রো থেকে সানডের হেড সাইডবারে লেগে বাইরে চলে গেলে আবাহনীর সমতা ফেরানোর আশা শেষ হয়ে যায়।
লিগের প্রথম পর্বে সাইফের কোচ ছিলেন কিম্বার্লি গ্র্যান্ট। ফিরতি পর্ব শুরু হওয়ার আগে তাকে বিদায় করে প্রধান কোচের দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে সহকারী কোচ রায়ান নর্থমোরকে। সাইফের প্রধান কোচ হিসেবে প্রথম ম্যাচেই জয় পেয়ে নর্থমোর আনন্দিত, ‘ওয়েডসন আর চার্লি যোগ দেওয়ায় দলের চেহারাই বদলে গেছে, ওরাই ম্যাচের গতি-প্রকৃতি পাল্টে দিয়েছে। আজকের ম্যাচ জিতে আমি দারুণ খুশি।’
অন্যদিকে ফিরতি পর্বের শুরুতেই হেরে ভীষণ হতাশ আবাহনীর ক্রোয়েশিয়ান কোচ দ্রাগো মামিচ, ‘আজ আমাদের মাঝমাঠ কাজ করছিল না, ডিফেন্সও ভাল খেলেনি। সাইফ স্পোর্টিংয়ের বিদেশিদের মান ভালো। দুই গোলদাতাই খুব ভালো খেলেছে।’-বাংলা ট্রিবিউন