আসামে বন্যা দুর্গত ৫২ লাখ, ২০ জনের মৃত্যু

আপডেট: জুলাই ১৮, ২০১৯, ১২:৪৪ পূর্বাহ্ণ

সোনার দেশ ডেস্ক


ভারতের আসামে বন্যা পরিস্থিতি আরও অবনতি হওয়ার বন্যা দুর্গতের সংখ্যা ৫২ লাখে দাঁড়িয়েছে এবং দেড় লাখ লোক ত্রাণ শিবিরগুলোতে আশ্রয় নিয়েছে।
আসামের ৩৩টি জেলার মধ্যে ৩০টি বন্যাক্রান্ত হওয়ায় সরকার রাজ্যটিতে রেড অ্যালার্ট জারি করেছে বলে এনডিটিভি জানিয়েছে।
মঙ্গলবার আরও পাঁচ জন মারা যাওয়ার পর বন্যার কারণে মৃতের সংখ্যা ২০ জনে দাঁড়িয়েছে। উদ্ধার অভিযানে সহায়তার জন্য ভারতীয় সেনাবাহিনীকে নামানোর পরও মৃতের সংখ্যা বৃদ্ধি ঠেকানো যায়নি।
রাজ্যের বারপেটা, ধ্রুব্রি ও দক্ষিণ সালমারা বন্যায় সবচেয়ে ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। এ তিন জেলার চার হাজার ৬০০ গ্রাম বন্যার পানিতে ডুবে গেছে।
ভারতের উত্তরপূর্বাঞ্চলীয় এ রাজ্যটির মধ্য দিয়ে বয়ে যাওয়া ১১টি নদীর সবগুলোর পানি বিপৎসীমার ওপরে রয়েছে।
দেশটির জাতীয় দুর্যোগ মোকাবিলা বাহিনীর (এনডিআরএফ) ১৫টি দল বন্যাক্রান্ত এলাকাগুলোতে উদ্ধার অভিযান পরিচালনা করছে। ভারতীয় সেনাবাহিনীর সদস্যরা তাদের সহায়তা করছে। দুর্গতদের মধ্যে ত্রাণ সামগ্রী বিতরণের জন্য বিমান বাহিনীর হেলিকপ্টার প্রস্তুত রাখা হয়েছে।
বিরল এক শৃঙ্গী গন্ডারের আবাসস্থল কাজিরাঙ্গা ন্যাশনাল পার্কের ৯৫ শতাংশেরও বেশি অংশ ডুবে যাওয়ার পর পানি কমতে শুরু করেছে বলে বন কর্মকর্তারা জানিয়েছেন। বন্যায় পার্কের মারা যাওয়া প্রাণীর সংখ্যা ৩০টি দাঁড়িয়েছে বলে জানান তারা।
ভারতের কেন্দ্রীয় সরকার আসামের জন্য ২৫১ কোটি ৫০ লাখ রুপি মঞ্জুর করেছে। রাজ্যের বন্যা পরিস্থিতি সরেজমিনে পর্যবেক্ষণের জন্য কেন্দ্রীয় জলশক্তিমন্ত্রী গজেন্দ্র সিং শেখওয়াতকে আসামে পাঠিয়েছেন ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী।
তথ্যসূত্রধ বিডিনিউজ