ঈশ্বরদীতে বাল্যবিয়ে পণ্ড

আপডেট: জুলাই ২৭, ২০১৯, ১২:১৩ পূর্বাহ্ণ

ঈশ্বরদী প্রতিনিধি


ঈশ্বরদীতে অপ্রাপ্ত বয়স্ক মেয়েকে বাল্যবিয়েতে বাধ্য করার অভিযোগে বাবা ও ঘটককে আটক করার পর ওই মেয়ের বয়স ১৮ বছর পূর্ণ না হওয়া পর্যন্ত বিয়ে দেবেন না বলে লিখিত অঙ্গীকারনামা নিয়ে তাদের ছেড়ে দেওয়া হয়েছে। গতকাল শুক্রবার পুলিশ আটক ওই দুজনকে ভ্রাম্যমাণ আদালতে হাজির করলে তাদের মুচলেকা নিয়ে ছেড়ে দেওয়া হয়। ভ্রাম্যমাণ আদালত সূত্র, পুলিশ ও স্থানীয়রা জানান, বৃহস্পতিবার রাতে গোপনে ঈশ্বরদী উপজেলার লক্ষীকুন্ডা বালিকা বিদ্যালয়ের ৮ম শ্রেণির ছাত্রী ও লক্ষীকুন্ডা ইউনিয়নের দাদাপুর দক্ষিণ পাড়া গ্রামের রিয়াজুল ইসলামের মেয়ে মমতাজ খাতুনকে (১৩) তার ইচ্ছার বিরুদ্ধে লক্ষীকুন্ডা গ্রামের জনৈক তুফান আলীর সঙ্গে বিয়ে দেওয়া হচ্ছিল। স্থানীয়দের দেওয়া অভিযোগের সত্যতা পেয়ে রাত ১২ টার দিকে ঈশ্বরদী থানার পুলিশ ওই বাড়িতে গিয়ে বাল্যবিয়ে বন্ধ করে মেয়ের বাবা রিয়াজুল ইসলাম (৪০) ও বিয়ের ঘটক লক্ষীকুন্ডা নবীনগর গ্রামের বাসিন্দা আসাদুল হক প্রাং (৪৩) কে আটক করে থানায় নিয়ে যায়। গতকাল শুক্রবার ঈশ্বরদী থানার উপপরিদর্শক (এসআই) বিকাশ চক্রবর্তী তাদের দুজনকে ভ্রাম্যমাণ আদালতে হাজির করলে আদালত মুচলেকা নিয়ে তাদের ছেড়ে দেওয়ার আদেশ দেন।