এক মাসেও সোনামসজিদ বন্দরে ট্রাকজট নিরসন না হওয়ার আশঙ্কা

আপডেট: জুলাই ১১, ২০১৮, ১২:৪৬ পূর্বাহ্ণ

শিবগঞ্জ প্রতিনিধি


চাঁপাইনবাবগঞ্জের সোনামসজিদ স্থলবন্দরের পানামা ইয়ার্ডের ভেতরে আটকা পড়া পণ্যভর্তি ট্রাকের জট আগামী এক মাসেও নিরসন না হওয়ার আশঙ্কা করেছেন স্থলবন্দরের আমদানি-রফতনির সঙ্গে জড়িত সংগঠনগুলো। সংগঠনগুলো জানায়, জুন মাসে ভারত থেকে যে সব পণ্য আমদানি হয়েছে তার মধ্যে কোনো কোনো পণ্যের বাজেটের ভ্যাট বৃদ্ধি করায় ওইসব পণ্যের বিষয়ে আমদানিকারকগণ উচ্চ আদালতে রিট পিটিশন করেছেন। এই রিট পিটিশনের সমাধান না হওয়া পর্যন্ত ওইসব ভারতীয় পণ্যভর্তি প্রায় ৭শ’ ট্রাক থেকে পণ্য খালাস করা সম্ভব হচ্ছে না। এছাড়া আমদানিকৃত পণ্য দ্রুত ছাড়করণের জন্য একদিকে সিএন্ডএফ এজেন্ট বিল অফ এন্ট্রি দাখিল করতে বিলম্ব করছে। অন্যদিকে কাস্টমসের কর্মকর্তারা ওইসব পণ্য পরীক্ষা-নিরীক্ষা ও শুল্ক নির্ধারণ করতে বিলম্ব করে থাকেন। যার কারণে প্রতিদিন পানামা ইয়ার্ডের ভেতরে যানজট লেগেই থাকে। যানজটের কারণে সোনামসজিদ জিরো পয়েন্ট থেকে পানামার ১নম্বর গেট পর্যন্ত পণ্যভর্তি ভারতীয় ট্রাকগুলোকে পানামা ইয়ার্ডের ভেতরে প্রবেশের অপেক্ষায় দাঁড়িয়ে থাকতে হয় দীর্ঘক্ষণ। তারপরও পানামা কর্তৃপক্ষ প্রতিদিন ট্রাক যানজট থাকা স্বত্ত্বেও ভারত থেকে আমদানিকৃত পেঁয়াজ ও পাথরের গাড়িগুলোকে অগ্রাধিকার ভিত্তিতে খালাস করে থাকে।
পানামা ইয়ার্ডের ভেতরে যানজটের কারণ হিসেবে সোনামসজিদ স্থলবন্দর আমদানি-রফতানিকারক গ্রুপের সাধারণ সম্পাদক তৌফিকুর রহমান বাবু জানান, পানামার ভেতরে যানজটের জন্য আমদানিকারক, সিএন্ডএফ এজেন্ট, পানামা কর্তৃপক্ষ ও কাস্টমস অফিস দায়ী। তিনি বলেন, আমদানিকৃত পণ্যগুলো যথাসময়ে রাজস্ব পরিশোধ করে কাগজপত্র দাখিল না করায় ট্রাকগুলো আটকা থেকে যায়। অন্যদিকে কাস্টমস কর্মকর্তা-কর্মচারীরা পণ্য ছাড়ের ক্ষেত্রে ধীর গতি নীতি অবলম্বন করা ট্রাক যানজটের অন্যতম কারণ। শুধু তাই নয়, এই মৌসুমে চাঁপাইনবাবগঞ্জসহ উত্তরাঞ্চলের আম পরিবহনের জন্য বাংলা ট্রাকগুলো ব্যস্ত থাকে। যে কারণে ট্রাক সঙ্কটের কারণেই পানামার ভেতরে যানজট লেগেই থাকে। সাধারণ সম্পাদক আরো বলেন, বাজেটে কিছু কিছু পণ্যের ভ্যাট বৃদ্ধি করায় সংশ্লিষ্ট আমদানিকারকেরা উচ্চ আদালতে রিট পিটিশন করেছেন। এর সমাধান না হওয়া পর্যন্ত পানামা ইয়ার্ডের ভেতরে পণ্যভর্তি ট্রাক ছাড়করণ সম্ভব হচ্ছে না। আটকে পড়া পণ্যের মধ্যে রয়েছে- চালভর্তি শতাধিক ট্রাকসহ ভুট্টা, ভূষি ও খৈলসহ বিভিন্ন ধরণের পণ্য। অপরদিকে পানামা সোনামসজিদ পোর্ট লিংক লিমিটেডের সমন্বয়কারী কর্মকর্তা টিপু সুলতান জানান, যানজটের মূল কারণ রয়েছে তিনটি। এরমধ্যে সময় মত বিল অফ এন্ট্রি না দেয়া, কাস্টমসের পণ্য ছাড়ের ক্ষেত্রে ধীর গতি ও বাংলা ট্রাকের সঙ্কট। এ বিষয়ে সিএন্ডএফ এজেন্ট অ্যাসোসিয়েশনের সভাপতি হারুন অর রশিদ ও সাধারণ সম্পাদক শফিউর রহমান টানু জানান, পানামা ইয়ার্ডে যানজটের মূল কারণ পানামার কর্তৃপক্ষের জনবল কম, ট্রাফিক ব্যবস্থা অত্যন্ত দুর্বল ও পানামা ইয়ার্ডের ভেতরের রাস্তায় যানবাহন চলাচলের উপযোগী নয়। তাছাড়া পানামা কর্তৃপক্ষের পণ্য ছাড়করণের ক্ষেত্রে অব্যবস্থাপনা রয়েছে। অপরদিকে সোনামসজিদ স্থলবন্দরের কাস্টমস বিভাগের সহকারী কমিশনার কাস্টমস সোলাইমান হোসেনের সঙ্গে যোগাযোগ করা হলে তিনি বলেন, পানামার অভ্যন্তরে ট্রাক যানজটের কারণ পানামা প্রশাসনের অব্যবস্থাপনা দায়ী। এছাড়া রয়েছে বাংলা গাড়ির সঙ্কট ও রাজস্ব বৃদ্ধির কারণে আমদানিকৃত পণ্য ছাড়ে সিএন্ডএফ এজেন্টদের বিলম্ব।

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ