এবার ভারতে বিদ্যুৎকেন্দ্র তৈরি করবে বাংলাদেশ

আপডেট: ফেব্রুয়ারি ৩, ২০১৮, ১২:১৩ পূর্বাহ্ণ

সোনার দেশ ডেস্ক


এবার ভারতে বিদ্যুৎকেন্দ্র স্থাপন করতে যাচ্ছে বাংলাদেশ। বাংলাদেশ-ইন্ডিয়া ফ্রেন্ডশিপ কোম্পানির (বিআইএফসিএল) মাধ্যমে এ বিদ্যুৎকেন্দ্রটি স্থাপন করা হবে। এতে কয়লা অথবা সৌর বিদ্যুৎকেন্দ্র স্থাপনের পরিকল্পনা করা হয়েছে। এ জন্য দুই দেশের প্রতিনিধির সমন্বয়ে একটি কমিটির করার সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে। ভারতের দিল্লিতে দুই দেশের বিদ্যুতের বিষয়ে গঠিত যৌথ ওয়ার্কিং কমিটির বৈঠক শেষে বৃহস্পতিবার দেশের ফিরে বাংলাদেশ বিদ্যুৎ উন্নয়ন বোর্ডের (পিডিবি) চেয়ারম্যান প্রকৌশলী খালেদ মাহমুদ এই তথ্য জানান।
গত সোমবার বিদ্যুৎ সচিব ড. আহমদ কায়কাউসের নেতৃত্বে বাংলাদেশের একটি প্রতিনিধি দল দিল্লিতে যায়।
জানা গেছে, বাংলাদেশ বিদ্যুৎ উন্নয়ন বোর্ড (পিডিবি) ও ভারতের রাষ্ট্রীয় কোম্পানি ন্যাশনাল থার্মাল পাওয়ার কোম্পানি লিমিটেড (এনটিপিসি) যৌথভাবে এই কেন্দ্রটি পরিচালনা করবে। বিদ্যুৎকেন্দ্র স্থাপনের পর বাংলাদেশ সেখান থেকে বিদ্যুৎ আমদানি করতে পারবে।
এ বিষয়ে পিডিবি চেয়ারম্যান খালেদ মাহমুদ বাংলা ট্রিবিউনকে বলেন, ‘বিদ্যুৎকেন্দ্রটি কয়লা অথবা নবায়নযোগ্য জ্বালানি অর্থাৎ সৌর বিদ্যুৎকেন্দ্র হতে পারে। এই বিষয়ে একটি কমিটি করার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। এরপর ওই কমিটি বিদ্যুৎকেন্দ্র নির্মাণের উদ্যোগটি বাস্তবায়ন করবে। রামপালে যে প্রক্রিয়ায় বিআইএফসিএল বিদ্যুৎ কেন্দ্র নির্মাণ করছে, একই প্রক্রিয়ায় ভারতে আমরা কেন্দ্র নির্মাণ করবো।’ তিনি বলেন, ‘ভারত এ বিষয়ে সম্মতি দিয়েছে। এখন আমরা ভারত থেকে বিদ্যুৎ আমদানি করছি। ওই কেন্দ্রর বিদ্যুৎও বাংলাদেশ আমদানি করবে। ভারতে সৌর বিদ্যুতের দাম খুব বেশি নয়। এই দাম কম কেন জানতে চাইলে ভারতের প্রতিনিধিরা জানান, ভারত সরকার জমি ও গ্রিড লাইন করে দেয়। উদ্যোক্তাদের কেবল প্যানেল বসালেই চলে। বাংলাদেশের ক্ষেত্রে বড় সমস্যা হচ্ছে জমি।’ জমি সংস্থান না করতে পারায় তা সম্ভব হচ্ছে না বলে জানান তিনি।
পিডিবি সূত্র জানায়, বিদ্যুৎকেন্দ্রটি স্থাপনে রামপালের কয়লাভিত্তিক বিদ্যুৎকেন্দ্র স্থাপনের প্রক্রিয়া অনুসরণ করা হবে। এক্ষেত্রে কোম্পানি গঠনের বিষয়ে নতুন করে আলোচনার কোনও প্রয়োজন হবে না। শুধু ভারতে কোম্পানিটির রেজিস্ট্রেশন করলেই কেন্দ্র স্থাপন করা যাবে। কেন্দ্রটি যেহেতু বাংলাদেশে বিদ্যুৎ রফতানি করবে, তাই বাংলাদেশ সীমান্তের কাছে সুবিধাজনক কোনও জায়গায় তৈরি করা হতে পারে।
এনটিপিসির এক প্রতিবেদন থেকে জানা যায়, বর্তমানে ভারতে সরকারি-বেসরকারি মিলে মোট বিদ্যুৎ উৎপাদনক্ষমতা ৩ লাখ ১৯ হাজার ৬০০ মেগাওয়াট। এরমধ্যে নবায়নযোগ্য জ্বালানি ব্যবহার করে ভারতের বিদ্যুৎ উৎপাদনক্ষমতা ৫০ হাজার মেগাওয়াট। এর মধ্যে সাড়ে ১২ হাজার মেগাওয়াটের মতো সৌরবিদ্যুৎ। ২০২৭ সালের মধ্যে মোট বিদ্যুৎ উৎপাদন সক্ষমতা ৬ লাখ ৫০ হাজার মেগাওয়াটে উন্নীতের লক্ষ্য হাতে নিয়েছে ভারত। এর মধ্যে ৩ লাখ ৭২ হাজার মেগাওয়াট বা ৫৭ শতাংশ উৎপাদন হবে নবায়নযোগ্য ও দূষণমুক্ত অজীবাশ্ম জ্বালানি থেকে।
তথ্যসূত্র: বাংলা ট্রিবিউন