ঐতিহাসিক রায়ে ‘অসন্তুষ্ট’ মুসলিম পক্ষ! জানুন আর কী রাস্তা খোলা আছে তাঁদের কাছে

আপডেট: নভেম্বর ১০, ২০১৯, ১২:৫২ পূর্বাহ্ণ

সোনার দেশ ডেস্ক


সকালেই বিতর্কিত অযোধ্যা জমি বিতর্ক মামলায় রায় দিয়েছে সুপ্রিম কোর্টের প্রধান বিচারপতির নেতৃত্বাধীন পাঁচ সদস্যের সাংবিধানিক বেঞ্চ। ঐতিহাসিক এই রায়ে রামলালা পক্ষকেই অযোধ্যার বিতর্কিত জমির দাবিদার ঘোষণা করেছে সুপ্রিম কোর্ট। বিকল্প হিসাবে অন্যত্র পাঁচ একর জমি পাবে সুন্নি ওয়াকফ বোর্ড, জানিয়েছে দেশের শীর্ষ আদালত। সুপ্রিম কোর্টের এই রায়কে স্বাগত জানিয়েছে সব পক্ষই। যদিও এই রায়ে সন্তুষ্ট নয় সুন্নি ওয়াকফ বোর্ড, প্রাথমিক প্রতিক্রিয়া জানিয়ে দেন সুন্নি ওয়াকফ বোর্ডের আইনজীবী জাফরিয়াব জিলানি। অযোধ্যা মামলার রায়কে মর্যাদা দিলেও রিভিউ পিটিশন দাখিল করার দরজা খুলে রাখতে চাইল সুন্নি ওয়াকফ বোর্ড। সুপ্রিম কোর্টে ফের পিটিশন দাখিল করতে পারবেন তাঁরা। ওই পিটিশনের শুনানি সেই বেঞ্চেই হবে যেখানে অযোধ্যা মামলার শুনানি চলেছিল। অর্থাৎ পাঁচ সদস্যের বিচারপতির বেঞ্চে। সেই বেঞ্চই ঠিক করবে, ওই পিটিশন শুনানি যোগ্য কিনা। শুনানি যোগ্য হলে আবার শুনানি শুরু হবে। নতুন নথি সামনে এলে তাও শোনা হবে আদালতে। তারপর ওই রিভিউ পিটিশনের রায় যদি অসন্তুষ্ট পক্ষের দিকে যায় সেক্ষেত্রে কোনও বরিষ্ঠ আধিকারিক প্রধান বিচারপতির কাছে একটি কিউরেটিভ পিটিশন দাখিল করবেন। তাতে জানানো হবে, সুপ্রিম কোর্টের আগের রায়ে কিছু ত্রুটি ছিল। আদালত ওই রায় আবার বিবেচনা করে দেখুক। তখন প্রধান বিচারপতি আবার একটি বেঞ্চ গঠন করবেন। সেই বেঞ্চ আবার শুনানি চালাবেন। কিউরেটিভ পিটিশনের পরেও যদি অসন্তুষ্ট পক্ষ হেরে যায়, তবে আরেকবার জরুরি ভিত্তিতে পিটিশন দাখিল করতে পারবে অসন্তুষ্ট পক্ষ। তবে সেক্ষেত্রে সেটাই হবে তাঁদের অন্তিম হাতিয়ার। তাতেও হার হলে আর কোনও উপায় থাকবে না তাঁদের কাছে।
তথ্যসূত্র: আজকাল