ওবায়দুল কাদেরের সুস্থতা কামনায় রাজশাহী নগর আ.লীগের দোয়া ও মোনাজাত

আপডেট: মার্চ ৪, ২০১৯, ১২:২৭ পূর্বাহ্ণ

নিজস্ব প্রতিবেদক


নগর আ’লীগের কার্যালয়ে বর্ধিত সভায় বক্তব্য দেন নগর আ’লীগের সভাপতি ও সিটি মেয়র এএইচএম খায়রুজ্জামান লিটন-সোনার দেশ

বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এবং সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদেরের সুস্থতা কামনা করে রাজশাহী মহানগর আওয়ামী লীগের দোয়া ও মোনাজাত অনুষ্ঠিত হয়েছে। গতকাল রোববার সন্ধ্যায় মহানগর আওয়ামী লীগের কার্যালয়ে এ দোয়া ও মোনাজাত অনুষ্ঠিত হয়। এর সভাপতিত্ব করেন সিটি মেয়র ও মহানগর আওয়ামী লীগ সভাপতি এএইচএম খায়রুজ্জামান লিটন। জানা গেছে, সন্ধ্যায় মহানগর আওয়ামী লীগের নেতৃবৃন্দ, থানা ও ওয়ার্ড নেতৃবৃন্দের অংশগ্রহণে মহানগর আওয়ামী লীগের কার্যালয়ে বর্ধিতসভা অনুষ্ঠিত হয়। বর্ধিত সভার শুরুতে আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এবং সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদেরের সুস্থতা কামনা করে দোয়া ও মোনাজাত অনুষ্ঠিত হয়।
পরে বর্ধিত সভায় সভাপতির বক্তব্যে মহানগর আওয়ামী লীগ সভাপতি ও মেয়র খায়রুজ্জামান লিটন বলেন, সিটি কর্পোরেশনের খুব খারাপ অবস্থায় প্রথমবার মেয়রের দায়িত্ব নিয়েছিলাম। দ্বিতীয়বার আবারো একই অবস্থায় দায়িত্ব নিতে হয়েছে। গতবারের অযোগ্য মেয়রের কারণে সিটি কর্পোরেশনের কর্মকর্তা-কর্মচারীদের বেতন-ভাতা অনিয়মিত হয়ে গেছিল। আমি দায়িত্ব নেওয়ার পর প্রত্যেক মাসের প্রথম সপ্তাহেই বেতন-ভাতা দেয়ায় চেষ্টা করে যাচ্ছি। অনেকটা সফল হয়েছি। মুখ থুবড়ে পড়ে থাকা অনেক প্রকল্প চালু করা হয়েছে। থেমে থাকা রাস্তা-ঘাট ও ড্রেনের কাজ শুরু হয়েছে। এমনকি যেগুলো মেয়রের কাজ না, কিন্তু রাজশাহীর জন্য করা দরকার, সেগুলো করতে দিনরাত কাজ করে যাচ্ছি।
মেয়র খায়রুজ্জামান লিটন আরো বলেন, রাজশাহী মহানগর আওয়ামী লীগ সারাদেশের মধ্যে দৃষ্টান্ত। এখানকার নেতাকর্মী সব সময় সক্রিয়। আজকে যদি বড় কোনো প্রোগ্রাম আয়োজনের সিদ্ধান্ত নেয়া হয়, কালকেই সেই প্রোগ্রাম সম্পন্ন করা সম্ভব হবে। বহুবার এটি প্রমাণিত হয়েছে। দলীয় নেতাকর্মীদের সর্তক থাকার আহ্বান জানিয়ে মহানগর আওয়ামী লীগ সভাপতি খায়রুজ্জামান লিটন বলেন, রাজশাহীতে আওয়ামী লীগের জন্য নেগেটিভ জায়গা ছিল। এখানে আমাদের নেতাকর্মীদের হরহামেশায় হামলা-নির্যাতন চালানো হয়েছে। সেই জায়গা থেকে আমরা একটা পর্যায়ে চলে এসেছি। এটা ধরে রাখতে হবে। তিনি বলেন, আওয়ামী লীগ সভানেত্রী মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা এতো কিছু করছেন, তারপরও ষড়যন্ত্র থেমে নেই। এজন্য সবাইকে সচেতন থাকতে হবে। নেত্রীর নির্দেশনা অনুযায়ী চলতে হবে, তাহলে কোনো সমস্যা হবে না।
মেয়র খায়রুজ্জামান লিটন বলেন, রাজশাহীকে মেগা সিটি করতে মাস্টারপ্ল্যান করা হচ্ছে। চায়নার বিখ্যাত কোম্পানি পাওয়ার চায়নার সঙ্গে আমার আলোচনা হয়েছে। তারা রাজশাহীতে বিনিয়োগে আগ্রহ প্রকাশ করেছে। ছয়টি ক্ষেত্রকে টার্গেট করে রাজশাহী উন্নয়ন হবে।
মেয়র খায়রুজ্জামান লিটন আরো বলেন, আগামি ১৭ মার্চ থেকে ১০ দিনব্যাপি বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক সাংস্কৃতিক উৎসব শুরু হতে যাচ্ছে। এই ১০দিন সাংস্কৃতিক কর্মকা-ে মাতিয়ে থাকবে রাজশাহী। বর্ধিত সভায় আরো উপস্থিত ছিলেন মহানগর আওয়ামী লীগের সিনিয়র সহ-সভাপতি শাহীন আকতার রেনী, নওশের আলী, অধ্যক্ষ শফিকুর রহমান বাদশা, মুক্তিযোদ্ধা মীর ইকবাল, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক নাইমুল হুদা রানা, সাংগঠনিক সম্পাদক আসলাম সরকারসহ মহানগর আওয়ামী লীগের নেতৃবৃন্দ, থানা ও ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদকবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ