কর মেলা উদ্বোধনকালে সাংসদ ওমর ফারুক দেশের জনগণ আয়কর নিয়ে এখন সচেতন || কর লক্ষ্যমাত্রা ৮৩২ কোটি

আপডেট: নভেম্বর ২, ২০১৭, ১২:৩৮ পূর্বাহ্ণ

নিজস্ব প্রতিবেদক


বেলুন উড়িয়ে কর মেরঅর উদ্বোধন করেন সাংসদ ওমর ফারুক চৌধুরী-সোনার দেশ

রাজশাহীতে আয়কর মেলার উদ্বোধন অনুষ্ঠানে সাংসদ ওমর ফারুক চৌধুরী বলেছেন, আয়কর মেলার মাধ্যমে করদাতাদের সেবার মান বাড়ানো হচ্ছে। এনবিআর সবসময় করদাতা সেবায় নিয়োজিত। তবে রাজস্ব আহরণে সবাইকে একযোগে কাজ করতে হবে। শুধু এনবিআরের পক্ষে একা কাজ করে দেশের উন্নয়ন করা সম্ভব নয়।
গতকাল বুধবার বেলা ১১টায় জাফর ইমাম টেনিস কমপ্লেক্সে সাত দিনব্যাপি আয়কর মেলার উদ্বোধন অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এ কথা বলেন।
সাংসদ বলেন, বাংলাদেশ মাথা উঁচু করে দাঁড়িয়েছে। এমন এক সময় ছিল যখন আমরা অন্যের উপর নির্ভরশীল ছিলাম। দেশের জনগণ এখন আয়কর নিয়ে সচেতন হয়েছে। কর দিচ্ছে ফলে আমরা নিজেরাই নিজেদের উন্নয়ন করছি। এজন্য সবাইকে সচেতন হওয়া দরকার। আয়কর দাতাদের পিন নম্বরের মাধ্যমে আয়করদাতাকে শনাক্ত করা হবে।
উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন, রাজশাহী বিভাগীয় কমিশনার নূর উর রহমান, রাজশাহী অঞ্চলের কর কমিশনার ড. খন্দকার মো. ফেরদৌস আলম, অতিরিক্ত কর কমিশনার শাহীন আক্তার হোসেন, উপ কর কমিশনার কাওসার আলী, মোশাররফ হোসেন, আবদুল মালেক ও রাজশাহী চেম্বার অব কমার্সের সভাপতি মনিরুজ্জামান মনিসহ করদাতা এবং ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তা ও কর্মচারীবৃন্দ।
আগামী ৭ নভেম্বর পর্যন্ত প্রতিদিন সকাল ৯টা থেকে বিকেল ৫টা পর্যন্ত মেলা চলবে। উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে জানানো হয়, করদাতাদের জন্য সপ্তাহব্যাপি এ মেলায় থাকছে আয়কর রিটার্ন দাখিল এবং টিআইএন নিবন্ধন ও পুনঃনিবন্ধনের সুযোগ। এছাড়া মেলায় অস্থায়ী বুথে আয়করের টাকা জমা/ই-পেমেন্ট, টিএনআই রেজিস্ট্রেশন/রি-রেজিস্ট্রেশন, আয়কর রিটার্ন দাখিলের সুবিধাও থাকছে।
রাজশাহী অঞ্চলের কর কমিশনার ড. খন্দকার মো. ফেরদৌস আলম জানান, গত বছর রাজশাহী অঞ্চলে কর আদায় হয়েছিল ১১ কোটি ৪ লাখ ৮৯ হাজার ৫৭৫ টাকা। রিটার্ন জমা পড়ে ৯ হাজার ২২০টি। নতুন টিআইএন নিয়েছিলেন ১ হাজার ৪৪৫ জন। আয়কর আদায় লক্ষ্যমাত্রা ছিলো ৫৪০ কোটি টাকা। সেবার আদায় হয় ৫৮১ কোটি টাকা। তবে এবার লক্ষ্যমাত্রা প্রায় ৪৪ শতাংশ বাড়িয়ে ধরা হয়েছে ৮৩২ কোটি।