কার্তিকের ঝড়ে অবশেষে ভিক্টোরিয়ার জয়

আপডেট: May 18, 2017, 12:31 am

সোনার দেশ ডেস্ক


ঢাকা প্রিমিয়ার লিগের সাবেক চ্যাম্পিয়ন তারা। তবে এখন কেবলই অতীতের কঙ্কাল। একটা জয়ের দেখা পেতেই কেটে যায় প্রায় পুরো লিগ! অবশেষে দশম ম্যাচে এসে মিলল জয়ের দেখা। ভারতীয় ব্যাটসম্যান অরুণ কার্তিকের ঝড়ো ইনিংসে এবারের লিগে প্রথম জয়ের দেখা পেয়েছে ভিক্টোরিয়া স্পোর্টিং ক্লাব।
লড়াইটি ছিল ঢাকা প্রিমিয়ার লিগের তলানির দুই দলের। তাই স্নায়ুর লড়াই যেমন ছিল, ছিল মর্যাদার লড়াইও। তাতে পারটেক্স স্পোর্টিং ক্লাবকে ২ উইকেটে হারিয়েছে ভিক্টোরিয়া।
বিকেএসপিতে ২৯৮ রান তুলে শক্ত চ্যালেঞ্জ জানিয়েছিল পারটেক্স। ভিক্টোরিয়া জিতেছে ৩ বল বাকি থাকতে।
রান তাড়ায় শুরুতেই নাসিরুদ্দন ফারুককে হারায় ভিক্টোরিয়া। তবে দারুণ ব্যাটিংয়ে দ্বিতীয় উইকেটেই দলকে জয়ের দিকে এগিয়ে নেন রুবেল মিয়া ও অরুণ কার্তিক।
৩১ বলে অর্ধশতক করেন কার্তিক, রুবেল ৪০ বলে। দুজনের দুটিতে রান যখন ১১৩ বলে ১৪৪, তখনই রিটায়ার্ড হার্ট রুবেলকে। আউট হননি, তবে অবসর নেন টিকতে না পেরে।
কার্তিক অবশ্য চালিয়ে যান। তবে ৭০ রানে রিটায়ার্ড হার্ট তিনিও। ইমরান আলি চার উইকেট নিয়ে লড়াইয়ে রাখেন পারটেক্সকে। নিয়মিত উইকেট হারালেও অবশ্য রানের চাকাটা সচল ছিল ভিক্টোরিয়ার। টুকটাক অবদান রেখেছেন প্রায় সবাই।
শেষ দিকে আবার মাঠে ফিরে দলের জয়ে অবদান রাখেন কার্তিক ও রুবেল। ৭৬ বলে ৮৯ রান করে দলকে জয়ের কাছে নিয়ে আউট হন কার্তিক।
ওপেনার রুবেল ফেরেন দলের জয় সঙ্গে নিয়েই। ৬৮ বলে অপরাজিত থাকেন ৭৩ বলে। দশে নেমে অধিনায়ক মনির হোসেনের ১৫ বলে ২৭ রানের ইনিংসটিও ছিল মহামূল্য।
শেষ ৩ ওভারে প্রয়োজন ছিল ১৬ রান। ৪৮তম ওভারে কার্তিককে ফিরিয়ে মেডেন উইকেট নিয়ে ম্যাচ জমিয়ে দেন ইমরান। ভিক্টোরিয়ার হাতে তখন ২ উইকেট। ৪৯তম ওভারে রুবেল ও মনির ১৪ রান নিয়ে গড়ে দেন ভাগ্য। শেষ ওভারে জয়।
পারটেক্স বড় স্কোর গড়তে পেরেছিল ইরফান শুক্কুর ও সাজ্জাদুল হকের দরুণ দুটি ইনিংস ও বড় জুটিতে। চতুর্থ উইকেটে ১৪৬ বলে ১৫৫ রানের জুটি গড়েন দুজন।
এবারের লিগে আগে দুবার পঞ্চাশ ছাড়ানো শুক্কুর আউট হন প্রথম লিস্ট ‘এ’ সেঞ্চুরির কাছে গিয়ে। ৯২ বলে ৯৫ করে বোল্ড মনিরের বাঁহাতি স্পিনে। ৭২ বলে সাজ্জাদুল করেছেন ৭৫। শেষ দিকে রাকিন আহমেদের ১২ বলে ৩১ রানের ঝড় ও রাজিবুল ইসলামের ১২ বলে ২১ রানের ইনিংসে পারটেক্স গড়ে তিনশ ছুঁইছুঁই স্কোর। কিন্তু প্রথম জয়ের আশায় মরিয়া ভিক্টেরিয়ায় জিতে যায় সেই চ্যালেঞ্জ।
সংক্ষিপ্ত স্কোর
পারটেক্স: ৫০ ওভারে ২৯৮/৯ (জনি ১৪, সাক্সেনা ১২, সাজ্জাদ ২৫, শুক্কুর ৯৫, সাজ্জাদুল ৭৫, রাজিবুল ২১, রাকিন ৩১, জাকারিয়া ৪, কবির ২, মাসুম ০*, ইমরান ৫*; মাহবুবুল ৪/৬৫, আরাফাত ১/৪৬, মইনুল ০/২৮, মনির ৩/৪৯, ইসলামুল ১/৩২, রুবেল ০/৩৩, শফিউল ০/৩৯)।
ভিক্টোরিয়া: ৪৯.৩ ওভারে ২৯৯/৮ (রুবেল ৭৩*, ফারুক ০, কার্তিক ৮৯, শফিউল ২০, উত্তম ২, মইনুল ২৩, মেহেদি ২৭, আরাফাত ২১, মনির ২৭*, মাহবুবুল ০; মাসুম ০/৪৩, কবির ১/২২, জাকারিয়া ২/৫৮, রাজিবুল ১/৬৫, সাক্সেনা ০/৫৬, ইমরান ৪/৫৫)।
ফল: ভিক্টোরিয়া স্পোর্টিং ক্লাব ২ উইকেটে জয়ী
ম্যান অব দ ম্যাচ: অরুণ কার্তিক