কেশরহাট পৌর কর্মচারিদের আন্দোলনে স্থবির নাগরিকসেবা

আপডেট: জুলাই ১৬, ২০১৯, ১২:১৭ পূর্বাহ্ণ

মোহনপুর প্রতিনিধি


পৌর কর্মকর্তা কর্মচারিদের সরকারি কোষাগার থেকে বেতন ভাতার দাবিতে ঘোষিত ঢাকার কর্মসূচিতে যোগ দিয়েছে কেশরহাট পৌর কর্মপরিষদ। এদিকে সব ধরনের নাগরিক সুবিধা বন্ধ থাকার কারণে স্থবির হয়ে পড়েছে কেশরহাট পৌরসভার কার্যক্রম।
খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, দীঘদিন যাবত কেশরহাট পৌরসভার কর্মকর্তাকর্মচারিরা বেতন ভাতা পায়নি। এমন অবস্থা প্রায় দেশের সকল পৌরসভায়। দীর্ঘদিন ধরে তারা স্থানীয়ভাবে আন্দোলন চালিয়ে আসছিলেন। সম্প্রতি বাংলাদেশ পৌর কর্মকর্তা-কর্মচারী অ্যাসোসিয়েশন ঢাকায় আন্দোলনের ডাক দিয়েছে। ওই আন্দোলনে অংশ নিতে গত বৃহস্পতিবার পৌর ভবনের প্রধান ফটকে তালা ঝুলিয়ে আন্দোলনে গেছে কেশরহাট পৌরসসভার সকল কর্মকর্তা-কর্মচারীরা। এদিকে সাধারণ নাগরিকরা নাগরিক সনদপত্র, জন্ম, মৃত্যু সনদসহ বিভিন্ন ধরনের সুবিধা নিতে এসে বারবার ঘুরছেন। তারা আসলে বুঝতে পারছেন না কেন পৌরসভা বন্ধ।
গতকাল সোমবার দুপুরে নাগরিক সুবিধা নিতে এসে বসে থাকতে দেখা যায়, অন্তত ৬০ বছর বয়সী এক নারীকে। তিনি মাঝে মাঝে গেটে যাচ্ছেন আর ফিরে এসে দাঁড়িয়ে থেকে বলছেন এতো বেলা হয়েছে তাও কেউ আসেনি।
অ্যাসোয়িশনের কেশরহাট পৌর শাখার সভাপতি ও হিসাব রক্ষণ কর্মকর্তা মখলেসুর রহমান বলেন, আমরা দীর্ঘদিন অনাহারে। ধার দেনা করে সংসার চালাতে চালাতে দেয়ালে পিঠ ঠেকে গেছে। এছাড়াও সরকারি চাকুরেদের সুযোগ সুবিধা বাড়ালেও পৌর কর্মচারিদের সরকারের কোনো নজর নাই। দাবি আদায় না হওয়া পর্যন্ত আমরা কর্মস্থলে যোগ দেবো না।
জেলা কমিটির সভাপতি রোকমত জামান টিটু বলেন, আন্দোলন চলছে সরকার দাবি না মেনে নেয়া পর্যন্ত চলবেই। পেটে ভাত নাই নাগরিক সমস্যা দেখে তো আমার পরিবার চলবে না। দাবি না মানলে দেশব্যাপি আন্দোলন আরো জোরালো হয়ে উঠবে।

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ