কোটার শূন্যপদ প্রথমবার মেধা তালিকা থেকে পূরণ

আপডেট: মার্চ ১৬, ২০১৮, ১২:৪৯ পূর্বাহ্ণ

সোনার দেশ ডেস্ক


সরকারি চাকরিতে প্রথমবার কোটার শূন্যপদ মেধা তালিকায় শীর্ষে থাকা প্রার্থীদের দিয়ে পূরণ করে ৩৬তম বিসিএস নন-ক্যাডার প্রথম শ্রেণির পদে নিয়োগ দিয়েছে সরকারি কর্ম কমিশন (পিএসসি)।
পিএসসি বলছে, সরকারের নির্দেশনা অনুযায়ী কোটার ক্ষেত্রে পদ শূন্য না রেখে মেধা তালিকায় থাকা প্রার্থীদের দিয়ে পূরণ করা হয়েছে; যা অন্য নিয়োগের ক্ষেত্রেও অনুসরণ হবে।
৩৬তম বিসিএসের ক্যাডার পদে সুপারিশপ্রাপ্ত না হওয়া প্রার্থীদের মধ্য থেকে নন-ক্যাডার প্রথম শ্রেণির পদে মেধাক্রম ও কোটা পদ্ধতির ভিত্তিতে শূন্যপদে ২৮৪ জনকে নিয়োগের সুপারিশ করেছে পিএসসি।
পিএসসির এ সুপারিশের বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়েছে, সুপারিশ প্রণয়নের ক্ষেত্রে পিএসসির কোটা পদ্ধতি এবং জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়ের গত ৬ মার্চের পরিপত্রের সিদ্ধান্ত অনুসরণ করা হয়েছে।
জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয় থেকে গত ৬ মার্চের ওই নির্দেশনায় সব সরাসরি নিয়োগের ক্ষেত্রে কোটার কোনো পদ যোগ্য প্রার্থীর অভাবে পূরণ করা সম্ভব না হলে সে সব পদ মেধা তালিকার শীর্ষে থাকা প্রার্থীদের দিয়ে পূরণের নির্দেশনা ছিল।
জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়ের সিনিয়র সচিব ড. মো. মোজাম্মেল হক খান স্বাক্ষরিত আদেশে বলা হয়েছিল, সব সরাসরি নিয়োগের ক্ষেত্রে কোটার কোনো পদ যোগ্য প্রার্থীর অভাবে পূরণ করা সম্ভব না হলে সে সব পদ মেধা তালিকার শীর্ষে অবস্থানকারী প্রার্থীদের মধ্য হইতে পূরণ করিতে হইবে।
সরকারের এ নির্দেশনা পালন করে ৩৬তম বিসিএস নন-ক্যাডার প্রথম শ্রেণির পদে নিয়োগের সুপারিশ করা হয়েছে বলে জানিয়েছেন পিএসসির পরীক্ষা নিয়ন্ত্রক (ক্যাডার) আ ই ম নেছার উদ্দিন।
তিনি বাংলানিউজকে বলেন, শূন্য পদ পূরণে পিএসসির বিদ্যমান কোটা পদ্ধতি এবং জনপ্রশাসনের গত ৬ মার্চের নির্দেশনা পুরোপুরি পালন করা হয়েছে। তবে কতসংখ্যক প্রার্থী কোটার শূন্য পদে নিয়োগ পেয়েছেন তা তাৎক্ষণিক জানাননি পরীক্ষা নিয়ন্ত্রক।
আর ৪৫০টি শূন্য পদের বিপরীতে যোগ্য প্রার্থী স্বল্পতার কারণে কেবল ২৮৪ জনকে নিয়োগের সুপারিশ করা হয়েছে বলে জানান নেছার উদ্দিন। তিনি বলেন, অত্যন্ত নিয়মতান্ত্রিকভাবে কোটা পদ্ধতি অনুসরণ করে নিয়োগ দেয়া হয়েছে, কোনো সমালোচনার সুযোগ নেই।
তথ্যসূত্র: বাংলানিউজ

Don`t copy text!