বঙ্গবন্ধুর শততম জন্মবার্ষিকী

গণিতে ভালো কে- ছেলে না মেয়ে?

আপডেট: November 21, 2019, 1:00 am

সোনার দেশ ডেস্ক


যুগ যুগ ধরে এমন ধারণা প্রচলিত রয়েছে যে, ছেলেদের তুলনায় মেয়েরা গণিতে কাঁচা। কিন্তু নতুন একটি গবেষণায় নিশ্চিত করা হয়েছে যে, গণিতে দক্ষতার ক্ষেত্রে মস্তিষ্কে কোনো লিঙ্গগত পার্থক্য নেই।
গবেষকরা ৩ থেকে ১০ বছর বয়সি ১০৪ জন শিশুর (৫৫ জন মেয়ে এবং ৪৯ জন ছেলে) মস্তিষ্কের এমআরআই স্ক্যান করেছেন, যখন তারা মৌলিক গণিতের একটি ভিডিও দেখছিল। গবেষকরা জানিয়েছেন, লিঙ্গ ভেদে মস্তিষ্কের কার্যক্রমে কোনো উল্লেখযোগ্য পার্থক্য তারা পাননি।
এ প্রসঙ্গে কার্নেগি মেলন ইউনিভার্সিটির স্নায়ুবিজ্ঞানী জেসিকা ক্যান্টলন বলেন, ‘বিজ্ঞান লোকবিশ্বাসের সঙ্গে একই পথে চলে না। আমরা দেখতে পেয়েছি যে, শিশুদের মস্তিষ্ক তাদের লিঙ্গ নির্বিশেষে একইভাবে কাজ করে। সুতরাং গণিতের ক্ষেত্রে বাচ্চারা কী অর্জন করতে পারে, সেই প্রত্যাশা আমাদের জাগ্রত হবে আশা করি।’
এই গবেষক আরো জানিয়েছেন, বিজ্ঞানীদের মধ্যে অনেকে বহুদিন থেকেই এই কল্পকথাটি বাতিল করে দিয়েছেন যে- মেয়েরা বিজ্ঞান, প্রযুক্তি, প্রকৌশল এবং গণিতে কম দক্ষ। তবে যারা এখনও এই ধারণা করেন, তাদের জন্য এই গবেষণার ফল আরো সুস্পষ্ট প্রমাণ।
গবেষকরা এছাড়াও তৃতীয় থেকে অষ্টম শ্রেণীর ৯৭ জন (৫৫ জন মেয়ে এবং ৪৭ জন ছেলে) স্কুল শিক্ষার্থীর ওপর গণিতের পরীক্ষা নেন। গবেষণায় দেখা যায়, লিঙ্গভেদে গণিতে দক্ষতা ও মস্তিষ্কের পরিপক্কতায় কোনো পার্থক্য নেই।
শিকাগো ইউনিভার্সিটির মনোবিজ্ঞানী অ্যালিসা কার্সি বলেন, ‘মস্তিষ্কে ছেলেমেয়েদের গণিতের নেটওয়ার্ক যে কেবল একই উপায়ে ব্যবহার হতে দেখা গেছে তা নয়, পাশাপাশি উভয়ের পুরো মস্তিষ্কে যে মিল রয়েছে তা অত্যন্ত স্পষ্ট।’
তার মতে, এটি একটি গুরুত্বপূর্ণ রিমাইন্ডার যে, মানুষ একে অপরের চেয়ে যতটা না ভিন্ন, তার চেয়ে অনেক বেশি সাদৃশ্যপূর্ণ। গবেষকদের মতে, দৈহিক গঠনগত কিংবা শারীরবৃত্তীয় কোনো তফাতের কারণে ছেলেমেয়েদের গণিতের জ্ঞানে পার্থক্য ঘটে না। সামাজিক-সাংস্কৃতিক কারণেই গণিতের জ্ঞানে বৈষম্য দেখা যায়।