গার্মেন্ট কর্মকর্তাকে হত্যার হুমকি || নিরাপত্তার দাবি ও মিথ্যা অভিযোগের প্রতিবাদে সংবাদ সম্মেলন

আপডেট: সেপ্টেম্বর ৭, ২০১৯, ১২:৩১ পূর্বাহ্ণ

ঈশ্বরদী প্রতিনিধি


হা-মিম গ্রুপের প্রতিষ্ঠান রিফাত গার্মেন্ট লিমিটেডের নির্বাহী পরিচালক মো. ফজলুল হককে হত্যা ও তার পরিবারের সদস্যদের মোবাইলে হুমকি প্রদান করায় নিরাপত্তাহীনতায় পড়েছেন ফজলুল হক ও তার পরিবার। তিনি ও তার পরিবারের সদস্যদের জীবনের নিরাপত্তা দাবি, তার বিরুদ্ধে স্থানীয় একাধিক পত্রিকায় মিথ্যা প্রতিবাদ লিপি প্রকাশ এবং সংবাদ সম্মেলন করে তার বিরুদ্ধে অপপ্রচার চালানোর প্রতিবাদে সংবাদ সম্মেলন করেন তিনি।
গতকাল শুক্রবার বিকেলে ঈশ্বরদীর মুলাডুলি ইউনিয়নের চাঁদপুর গ্রামে তার নিজ বাড়িতে এই সংবাদ সম্মেলনের আয়োজন করেন ফজলুল হক। এর আগে গত ৩০ আগস্ট ঈশ্বরদী থানায় তিনি একটি সাধারণ ডায়েরি দায়ের করেছেন। সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্যে রিফাত গার্মেন্ট লিমিটেডের নির্বাহী পরিচালক মো. ফজলুল হক বলেন, সম্প্রতি একটি ঘটনাকে কেন্দ্র করে গত সোমবার স্থানীয় দুটি পত্রিকায় চাঁদপুর গ্রামের বাসিন্দা মো. সুরুজ মোল্লা একগুচ্ছ মিথ্যা কথা সাজিয়ে প্রতিবাদলীপি প্রকাশ করিয়েছেন। যা মিথ্যা, বানোয়াট ও ভিত্তিহীন। শুধু তাই নয়, একই দিন সকাল সাড়ে ১১টায় ঈশ্বরদী প্রেসক্লাবে সংবাদ সম্মেলনের মাধ্যমে যে বক্তব্য উপস্থাপন করেছেন তা শুধু মিথ্যাই নয়, উদ্দেশ্যে প্রনোদিতও বটে। আমি এসব বিষয়ে ঈশ্বরদী থানায় তিনি একটি সাধারণ ডায়েরি দায়ের করার পর থেকে স্থানীয় সুরুজ মোল্লা, টুটুল মোল্লা, মফিজুল মোল্লা ও বিপুল মোল্লা অব্যাহতভাবে আমাকে হত্যাসহ বিভিন্ন ধরণের হুমকি-ধামকি দিয়ে আসছে। বর্তমানে আমি সুরুজ মোল্ল¬া গং এর দ্বারা চরমভাবে নিরাপত্তাহীনতায় রয়েছি। তাদের দ্বারা যে কোন সময় আমার ও আমার স্বজনদের বড় ধরণের ক্ষতি এমনকি প্রাণ নাশের ঘটনাও ঘটতে পারে।
ফজলুল হক লিখিত বক্তব্যে আরো বলেন, আমার পিতার রেকর্ডকৃত পৈত্রিক সম্পত্তি উদ্ধারের জন্য আমি ও আমার বাবার ওয়ারিশগন বাদি হয়ে ২০১৬ সালে পাবনা জেলা জজ আদালতে সুরুজ মোল্লা গং এর বিরুদ্ধে রেকর্ড সংশোধন ও বাটোয়ারা মামলা দায়ের করি। ওই মামলাটি বর্তমানে যুগ্ম জেলা ও দায়রা জজ আদালত-২ এ বিচারাধীন রয়েছে। সেই মামলাকে কেন্দ্র করে ২০১৬ সালের রোজার ঈদের ৩য় দিনে মো. সুরুজ মোল্লা, টুটুল মোল্লা, ও বিপুল মোল্লাসহ অজ্ঞাতনামা একদল সন্ত্রাসী বাহিনী আমাকে হত্যার উদ্দেশ্যে অনেক খোঁজা-খুজি করতে থাকে। যার অনেক তথ্য-প্রমাণ আমার মোবাইলে রেকর্ড করা আছে। সেদিন মহান আল্লাহ্ আমাকে রক্ষা করেছেন।
দীর্ঘদিন পর গত কোরবানীর ঈদের ৩ দিন পূর্বে আমার গ্রামের বাড়ির চলমান নির্মাণ কাজ পুনরায় শুরু করলে তারা বাধা প্রদান করে। সন্ত্রাসী বিপুল মোল্লার নেতৃত্বে স্থানীয় ও বহিরাগত একদল সন্ত্রাসী আমার বাড়ি ঘেরাও করে রাখে। তারা অস্ত্র উচিয়ে হুমকি দেয় ‘কিভাবে আমরা এখানে বসবাস করি তারা দেখে নেবে’।
আমার পৈত্রিক সম্পত্তি উদ্ধারের জন্য আমি আদালতের স্মরণাপন্ন হয়েছি। আদালত যে সিদ্ধান্ত দিবে আমি তা মেনে নেব। তাহলে কেন বার বার আমাকে ও আমার পরিবারের স্বজনদের হত্যার হুমকি দেয়া হচ্ছে? তিনি বলেন, আমি বিভিন্ন মাধ্যমে জানতে পেরেছি, আমার নিজ এলাকা পাবনা অথবা ঢাকায় ভাড়াটে সন্ত্রাসী ও ট্রাক লেলিয়ে দিয়ে হত্যার ষড়যন্ত্র করা হচ্ছে। বর্তমানে আমি ও আমার পরিবার সুরুজ মোল্লা গং এর কারণে জীবননাশের হুমকিতে রয়েছি। তাদের দ্বারা যে কোন সময় আমার ও আমার পরিবারের জীবননাশসহ বড় ধরণের ক্ষতি হতে পারে। তাই দেশের সকল আইন-প্রয়োগকারী সংস্থার দৃষ্টি আকর্ষণ করে দোষীদের শাস্তির দাবি করছি। সংবাদ সম্মেলনে মুলাডুলি ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক কামাল হোসেন মিঠুসহ স্থানীয় আওয়ামী লীগ নেতারা ও গ্রামবাসী উপস্থিত ছিলেন।

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ