গেইল-গাজী সমানে সমান

আপডেট: নভেম্বর ২৭, ২০১৬, ১১:৩৩ অপরাহ্ণ

সোনার দেশ ডেস্ক



দ্বৈরথটা শুরু হয় ২০১২ সালে। সেবার বাংলাদেশে দুটি টেস্ট খেলতে আসে ওয়েস্ট ইন্ডিজ। সেবার দুই টেস্টেই ক্রিস গেইলকে আউট করেন সোহাগ গাজী। চার ইনিংসে দু’বার আউট হলেও আলোচনা শুরু হয় গাজীর বিপক্ষে ব্যাটিংয়ের সময়। এ অফস্পিনারের বল মোকাবেলা করতে রীতিমত ঘাম ঝরাতে হয়ে গেইলকে। বার বার পরাস্ত হওয়ার পর শেষ পর্যন্ত গাজীকেই উইকেট দিলে আলোচনায় আসে তাদের দ্বৈরথ।
গতকাল রোববার বাংলাদেশ প্রিমিয়ার লিগ (বিপিএল) দিয়ে আরও একবার হয়ে গেল গেইল-গাজীর মোকাবিলা। টি-টোয়েন্টি ক্রিকেটের সবচেয়ে বড় বিজ্ঞাপনের গেইলকে শুরুতে দারুণ চেপে ধরেছিলেন গাজী। তার করা প্রথম সাত বল থেকে কোন রানই তুলতে পারেন নি এ ক্যারিবিয়ান। তবে শেষ দুই বলে দুটি ছক্কা মেরে শেষের নায়ক গেইলই। তাই দিন শেষে তাদের দ্বৈরথ অনেকটাই সমান সমান।
রোববার ইনিংসের প্রথম ওভারেই বল হাতে নিয়েছিলেন সোহাগ গাজী। আর দর্শকরা তখন নড়েচড়ে বসেছিলেন আরও একটি গেইল-গাজী দ্বৈরথ দেখার জন্য। প্রথম চার বল তামিম মোকাবিলা করায় পঞ্চম বলে গেইলকে পেলেন গাজী। আর এ ক্যারিবিয়ান দৈত্যর সামনে পড়ে গাজী প্রথম বলই দিলেন ওয়াইড। তবে পরের দুই বল ডট।
নিজের দ্বিতীয় ওভারে গেইলকে বল করারই সুযোগ হয়নি গাজীর। সে ওভারের সব বল মোকাবিলা করেন তামিম। তৃতীয় ওভারে প্রথম তিন বলে কোন রানই পান নি গেইল। তবে দুই বলেই তার বিপক্ষে এলবিডব্লিউর জোরালো আবেদন করেন সোহাগ। তবে তৃতীয় বলে লেগ বাই সূত্রে প্রান্ত বদল হয়। সে ওভারে আর গেইলের সামনে পড়েন নি গাজী।
চতুর্থ ওভারে বল করতে এসে শুরুতেই গেইলকে পান সোহাগ গাজী। প্রথম বল ডট। পরের দুই বলে দুই করে রান। চতুর্থ বল আবার ডট। অনেকেই ভেবেছিলেন গাজী-গেইল দ্বৈরথে এবারও বুঝি গাজীর জয় হবে। কিন্তু তখন হঠাৎ যেন জ্বলে ওঠেন ক্যারিবিয়ান দৈত্য। টানা দুই বলে মিড অফ দিয়ে সীমানা পার। মুহূর্তেই গর্জে ওঠে স্টেডিয়ামে উপস্থিত প্রায় ১৫ হাজার দর্শক। গাজির বিপক্ষে এদিন মোট ১২ বল মোকাবেলা করে ১৬ রান করেন গেইল।-জাগো নিউজ