ঘুমন্ত স্ত্রীকে গলা কেটে হত্যার পর স্বামীর আত্মসমর্পণ

আপডেট: জুলাই ২০, ২০১৯, ১২:৫৪ পূর্বাহ্ণ

নিজস্ব প্রতিবেদক


গ্রেফতারকৃত রেন্টু আহমেদ- সোনার দেশ

প্রথমে ঘুমন্ত স্ত্রীর মাথায় আঘাত, পরে গলা ও পায়ের রগ কেটে হত্যা করেছে নিহতের স্বামী রেন্টু আহমেদ ওরফে শরিফুল (৩৬)। গত বৃহস্পতিবার দিবাগত রাত আড়াইটার দিকে এমন ঘটনাই ঘটেছে রাজশাহীর পবা উপজেলার কলারটিকর গ্রামে। পরে রাত সাড়ে ৩টার দিকে বাড়ি থেকে প্রায় ছয় কিলোমিটার দূরে পবার দামকুড়া থানায় গিয়ে হত্যার কথা স্বীকার করে আত্মসমর্পণ করেন তিনি।

এরপর পুলিশকে বলেন, তিনি তার স্ত্রী লাভলী বেগমকে (২৮) হত্যা করে এসেছেন। পুলিশ তখন তাকে আটক করে। এরপর রাতেই তার বাড়ি যায় পুলিশ।

দামকুড়া থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মাজহারুল ইসলাম জানান, রেন্টুর অভিযোগ যে তার স্ত্রী পরকীয়া প্রেমের সম্পর্কে জড়িয়েছিলেন। তাই তাকে হত্যা করেছেন। তবে আমরা বিষয়টিকে হত্যা হিসেবেই তদন্ত করবো। রেন্টু একজন নির্মাণ শ্রমিক। তার দুটি সন্তানও রয়েছে। রেন্টুর বাবার নাম কাশেম ওরফে খোকা। কয়েক বছর আগে একই উপজেলার সাইরপুকুর গ্রামের বাবলু মিয়ার মেয়ে লাভলীর সঙ্গে তার বিয়ে হয়েছিল।

ওসি জানান, নিহত লাভলীর লাশ উদ্ধার করে রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ময়নাতদন্ত সম্পন্ন শেষে পরিবারের মাঝে মরদেহ হস্তান্তর করা হয়েছে। এ ঘটনায় লাভলীর বাবা বাবলু রেন্টুর বিরুদ্ধে হত্যা মামলা দায়ের করেছেন। দুপুরে রেন্টুকে মহানগর আমলি আদালতে তোলা হয়। সেখানে তিনি ম্যাজিস্ট্রেটের কাছে ১৬৪ ধারায় তার স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দিয়েছেন। জবানবন্দি শেষে তাকে রাজশাহী কেন্দ্রীয় কারাগারে প্রেরণ করা হয়েছে।

উল্লেখ্য, এর আগে রাজশাহীর পবা উপজেলার বায়া ভোলাবাড়ি এলাকায় ২০১৬ সালের ১৭ এপ্রিল স্ত্রীকে জবাই করে হত্যা করে আত্মসমর্পণ করেছিলেন এক ব্যক্তি। বৃহস্পতিবার রাজশাহীর জেলা ও দায়রা জজ আদালতে তার ফাঁসির আদেশ দিয়েছেন আদালত।

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ