চাঁপাইনবাবগঞ্জে নারী টিইও’কে লঞ্ছিত করলেন ডিপিইও ক্ষুব্ধ প্রধান শিক্ষকদের সমন্বয় সভা বয়কট : ডিপিইও’র অপসারণ দাবি

আপডেট: নভেম্বর ১৫, ২০১৭, ১:৩৬ পূর্বাহ্ণ

চাঁপাইনবাবগঞ্জ প্রতিনিধি


শিক্ষকদের উপস্থিতিতে সদর উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তা নাজমা খাতুনের ঠ্যাং ভেঙে দেয়ার হুমকিসহ গালিগালাজ করায় তুলকালাম কা- ঘটেছে চাঁপাইনবাবগঞ্জে। এ ঘটনায় জেলা প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তা আবদুল কাদেরের অপসারণের দাবিতে মাসিক সমন্বয় সভা বয়কট করেছেন সদর উপজেলার ২১২টি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক। ঘটনাটি ঘটেছে গতকার মঙ্গলবার দুপুরে চাঁপাইনবাবগঞ্জ শহরের আরামবাগ পিটিআই মিলনায়তনে।
সভায় উপস্থিত মহারাজপুর হেরাসমন্ডল টোলা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক আবদুল মজিদ, শহর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক গোলাম সারওয়ার কাউনাইন, কারবালা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক সুলতানুল ইসলামসহ অন্য শিক্ষকরা বলেন, প্রাথমিক সমাপনী পরীক্ষা নিয়ে আলোচনার জন্য গতকাল সকালে শহরের পিটিআই মিলনায়তনে মাসিক সমন্বয় সভা শুরু হয়। এতে সদর উপজেলার ২১২টি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক উপস্থিত ছিলেন। কিন্তু সভায় সকালের সেশনে জেলা প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তা আবদুল কাদের উপস্থিত ছিলেন না। দুপুরের খাবারের বিরতি শেষে দুপুর আড়াইটায় আবারো সভা শুরু হলে সেখানে উপস্থিত হন জেলা প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তা আবদুুল কাদের। এসময় ১০ মিনিট দেরিতে উপস্থিত হওয়ায় তিনি উপস্থিত শিক্ষকদের সামনেই সদর উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তা নাজমা খাতুনকে বেয়াদব বলে সম্বোধন করে অশালীন ভাষায় গালিগালাজ করেন।
শিক্ষকরা বলেন, সবার সামনে ডিপিইও আবদুুল কাদের টিইও নাজমা খাতুনের ঠ্যাং ভেঙ্গে দেয়ার হুমকি দেন। শিক্ষকরা এর প্রতিবাদ করলে তিনি শিক্ষকদের সাথেও অশালীন আচরণ করেন। এসময় বিক্ষুব্ধ শিক্ষকরা তাৎক্ষণিকভাবে সভা বয়কট করে বাইরে চলে আসেন। তারা বলেন, এই কর্মকর্তা বিভিন্ন সময় বয়জ্যেষ্ঠ শিক্ষকদের সাথেও অশালীন আচরণ করেছেন। এই অবস্থায় জেলা প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তা আবদুুল কাদেরের অপসারণ দাবি করেন তারা। খবর পেয়ে সদর থানা পুলিশ ঘটনাস্থলে উপস্থিত হয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে।
এ বিষয়ে সভায় উপস্থিত সহকারী প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তা সালাউদ্দিন জানান, মশকরা করে জেলা প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তা আবদুুল কাদের ঠ্যাং ভেঙে দেয়ার কথা বলেছেন।
বিষয়টি নিয়ে সদর উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তা নাজমা খাতুনের সঙ্গে কথা বলা হলে তিনি কোনো কথা বলতে রাজি হন নি। তবে এসময় তার চোখে পানি দেখা যায়।
এ বিষয়ে চাঁপাইনবাবগঞ্জ জেলা প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তা আবদুুল কাদেরের সঙ্গে যোগযোগ করা হলে তিনি তার বিরুদ্ধে প্রধান শিক্ষকদের আনা অভিযোগ অস্বীকার করে জানান, দেরিতে উপস্থিত হওয়ায় তিনি টিইও নাজমা খাতুনকে বকেছেন। তার সঙ্গে কোনো অশালীন আচরণ তিনি করেন নি।