চিকিৎসাসেবা মানুষের দোরগোড়ায় পৌঁছে দিতে কাজ করছে সরকার : পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী

আপডেট: অক্টোবর ১৩, ২০১৯, ১:১৩ পূর্বাহ্ণ

চারঘাট প্রতিনিধি


চারঘাট উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের কর্তৃপক্ষের হাতে একটি প্রাইভেট কারের চাবি তুলে দেন পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী শাহরিয়ার আলম সোনার দেশ

চিকিৎসাসেবা মানুষের দৌড়গোড়ায় পৌঁছে দিতে বর্তমান সরকার অবিরাম কাজ করে যাচ্ছে দাবি করে পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী শাহরিয়ার আলম বলেছেন, উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে যাতে রোগিরা এসে সঠিক সেবা পান, সেদিকে আরো নজর দিতে হবে। কর্মস্থলে যাতে সব চিকিৎসক উপস্থিত থাকেন, সেদিকে দৃষ্টি দিতে হবে। সেবা খাতকে কাক্সিক্ষত লক্ষ্যে পৌঁছে নিতে সঠিক ব্যবস্থাপনা ও উন্নত নেতৃত্বও অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ।
গতকাল শনিবার দুপুরে রাজশাহীর চারঘাট উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের অডিটোরিয়ামে ‘তৃণমূল জনগোষ্ঠির স্বাস্থ্য ও চিকিৎসা’ বিষয়ক আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এ কথা বলেন।
প্রতিমন্ত্রী শাহরিয়ার আলম বলেন, রোগিদের কষ্টকে অনুভব করে সেবা দিতে হবে। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সুযোগ্য নেতৃত্ব ও বাস্তবমুখি পদক্ষেপের কারণে দেশের স্বাস্থ্যখাত অনেক দূর এগিয়ে গেছে। মেডিকেল কলেজসহ স্বাস্থ্য সংশ্লিষ্ট প্রতিষ্ঠানের সংখ্যা অনেক বৃদ্ধি পেয়েছে। চিকিৎসক সমাজের উজ্জ্বল ভাবমূর্তি গড়ে তুলতে রোগিদের আন্তরিকতার সঙ্গে সেবা দিতে এবং সংশ্লিষ্ট সকলকেই ঐক্যবদ্ধভাবে কাজ করার আহ্বান জানান পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী শাহরিয়ার আলম।
উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা. আফসানা আলমগীর খানের সভাপতিত্বে আলোচনা সভায় আরো উপস্থিত ছিলেন, উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও উপজেলা চেয়ারম্যান ফকরুল ইসলাম, উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মুহাম্মদ নাজমুল হক, পৌর আ’লীগের সভাপতি সাজ্জাদ হোসেন, সাধারণ সম্পাদক একরামুল হক, চারঘাট মডেল থানার অফিসার ইসচার্জ (ওসি) সমিত কুমার কুন্ডু, ভায়ালক্ষীপুর ইউপি চেয়ারম্যান শওকত আলী, ইউপি চেয়ারম্যান শফিউল আলম, চারঘাট প্রেসক্লাবের সভাপতি এসএম মোজাম্মেল হক, ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক রায়হানুল হক রানা প্রমুখ। এরপর চারঘাট উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের কর্তৃপক্ষের হাতে একটি প্রাইভেট কারের চাবি তুলে দেন প্রতিমন্ত্রী। এর আগে পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী শাহরিয়ার আলমকে ফুল দিয়ে বরণ করেন স্বাস্থ্য কর্মকর্তা ডা. আফসানা আলমগীর খান। এরপর পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী বিভিন্ন ওয়ার্ড ঘুরে রোগিদের সঙ্গে কথা বলেন এবং রোগিদের চিকিৎসা সেবা বিষয়ে খোজ খবর নেন। এরপর বিকেলে গোবিন্দপুর দাখিল মাদ্রাসার নবনির্মিতব্য একাডেমীক ভবনের ভিত্তিপ্রস্তর ও সালেহা শাহ উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রতিষ্ঠা রজতজয়ন্তি অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্য দেন।

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ