চেলসির রোমাঞ্চকর জয়, প্রথম হার ম্যানইউর

আপডেট: আগস্ট ২৫, ২০১৯, ১২:৪৪ পূর্বাহ্ণ

সোনার দেশ ডেস্ক


২৫ বছরে সবচেয়ে তরুণ একাদশ নামিয়ে প্রথম জয়ের দেখা পেলেন ফ্রাঙ্ক ল্যাম্পার্ড। প্রিমিয়ার লিগে নরউইচ সিটির মাঠে ৩-২ গোলের রোমাঞ্চকর জয় পেয়েছে তার দল চেলসি। তাদেরই বিধ্বস্ত করে লিগ শুরু করা ম্যানচেস্টার ইউনাইটেড ইনজুরি সময়ের গোলে ক্রিস্টাল প্যালেসের কাছে হেরে গেছে ২-১ গোলে।
ওল্ড ট্র্যাফোর্ডে শনিবার নখদন্তহীন ছিল ম্যানইউ। জর্ডান আইয়ুর ৩২ মিনিটের গোলে এগিয়ে যায় প্যালেস। খেলা শেষ হওয়ার এক মিনিট আগে সমতা স্বাগতিকদের সমতায় ফেরান ড্যানিয়েল জেমস। কিন্তু ইনজুরি সময়ের তৃতীয় মিনিটে প্যাট্রিক ফন আনহোল্টের গোলে অবিস্মরণীয় জয় পায় প্যালেস।
পল পগবা বলের দখল হারালে ফন আনহোল্টের শট দাভিদ দে গেয়াকে পরাস্ত করে। তাতে ১৯৮৯ সালের পর প্রথমবার লিগে ম্যানইউকে হারানোর উল্লাসে মাতে প্যালেস। এর আগে ৭০ মিনিটে মার্কাস র‌্যাশফোর্ডের পেনাল্টি মিস আফসোসে পোড়ায় স্বাগতিকদের। ইংলিশ ফরোয়ার্ডের শট প্যালেস গোলরক্ষকের বিপরীত দিকে গেলেও পোস্টে আঘাত করে।
একটি করে জয় ও ড্রর পর মৌসুমের প্রথম হারে ৩ ম্যাচে চার পয়েন্ট নিয়ে পঞ্চম স্থানে ম্যানইউ।
দিনের শুরুর ম্যাচে চেলসি এই মৌসুমের প্রথম জয় পেয়েছে। ম্যানইউর কাছে বড় হারের পর ঘরের মাঠে লিস্টার সিটির সঙ্গে ড্র করেছিল ব্লুরা। শেষ পর্যন্ত ক্লাবের একাডেমি খেলোয়াড়দের নিয়ে ল্যাম্পার্ড প্রথম তিন পয়েন্ট অর্জনের আনন্দে ভাসলেন।
ট্যামি আব্রাহাম করেন দুই গোল এবং অন্যটি ম্যাসন মাউন্টের। ক্যারো রোডে লড়াইটা ছিল হাড্ডাহাড্ডি। নরউইচকে দুইবার সমতায় ফেরান টড ক্যান্টওয়েল ও টিমু পুক্কি। তবে আব্রাহামের দ্বিতীয়ার্ধের গোল গড়ে দেয় ম্যাচের পার্থক্য।
আব্রাহাম ম্যাচের তৃতীয় মিনিটে চেলসির জার্সিতে প্রথম গোল করেন। সিজার আজপিলিকুয়েতার ক্রস থেকে দুর্দান্ত হাফ ভলিতে লক্ষ্যভেদ করেন তিনি। কিন্তু দুই মিনিট পর ক্যান্টওয়েল ১-১ করেন। ১৭ মিনিটে মাউন্টের গোলে আবার এগিয়ে যায় চেলসি। কিন্তু আধ ঘণ্টা হতেই পুক্কি ফেরান সমতা। আব্রাহামের ৬৮ মিনিটের গোলে লিড নেয় ব্লুরা, শেষ পর্যন্ত এটা ধরে রাখে তারা। ৩ ম্যাচে ৪ পয়েন্ট নিয়ে ১২তম স্থানে চেলসি।