জমজমাট নগরীর অভিজাত ব্র্যান্ডের দোকানগুলো

আপডেট: জুন ৪, ২০১৮, ১:৪৬ পূর্বাহ্ণ

তারেক মাহমুদ


আসন্ন ঈদুল ফিতরকে সামনে রেখে নগরীর অভিজাত মার্কেটগুলোতে ক্রেতাদের আনাগোনা। জমজমাট ঈদের কেনাকাটা। অভিজাত ব্র্যান্ডের দোকানগুলো এখন ক্রেতা এবং বিক্রেতাদের দামদরের বনিবনা চলছে। বিপুল উৎসাহ উদ্দীপনা। বিক্রেতাদের দম ফেলার সময় নেই। নগরী এবং নগরীর বাইরে থেকে আসা ক্রেতাদের পদচারণায় নগরীর রাস্তায় ট্র্যফিক জ্যাম লক্ষ করা গেছে।
দোকান মালিকরা জানান, অন্য সময়ের চেয়ে বর্তমানে বিক্রির হার বেড়েছে দ্বিগুন। রমজানের প্রথম দিকে ক্রেতাদের তেমন ভিড় না থাকলেও বৃহস্পতিবারের পর থেকে জমে উঠেছে বেচাকেনা। নগরীর গণকপাড়া থেকে শুরু করে নিউমার্কেট এলাকা পর্যন্ত সড়কের দুপার্শ্বের বিপণি-বিতানগুলোতে একই চিত্র। গণকপাড়ার ইজি ব্র্যান্ডের শো-রুমের ম্যানেজার আব্বাস উদ্দিন জানান, দুইদিন আগে থেকেই জমে উঠেছে ঈদের বেচা কেনা। আমাদের এখানে ছেলেদের শার্ট, টি-শার্ট, পাঞ্জাবি, জিন্স প্যান্ট, গ্যাবাডিন প্যান্ট রয়েছে। সবচেয়ে বেশি বিক্রি হচ্ছে শার্ট ও র্টি-শার্ট। এর সাথে প্যান্ট। পাঞ্জাবি বিক্রি হয়তো আর দুই একদিন পর শুরু হবে। ঈদের এক সপ্তাহ আগে থেকে পাঞ্জাবি বিক্রি বাড়ে। পাঞ্জাবি বিক্রি হচ্ছে ৯৯০ থেকে ২৪৮০ টাকায়, র্টি-শাট ৩৯০ থেকে ২৪৯০ টাকায়, শার্ট ১০৯০ থেকে ১৮৯০, প্যান্ট ১৫০০ থেকে ২৬৫০ টাকায়। নগরীর পুলিশ লাইন কেশবপুর এলাকার বাসিন্দা অভি জানান, গতকাল থেকে পরিবারের সবার জন্যে ঈদের বাজার শুরু করেছি। আজ র্টি-শার্ট আর পাঞ্জাবি কিনতে এসেছি। ছোট ভাইয়ের জন্য পাঞ্জাবি দেখলাম পচ্ছন্দ হলে কিনে নিবো।
গণকপাড়া এলাকার রিচম্যান লোবানা শো-রুমের ম্যানেজার সামিউল আলম বলেন, গত দুইদিন থেকে ক্রেতাদের সমাগম ঘটেছে বেশি। মনে হচ্ছে এখন ঈদের বাজার পুরো দমেই জমে উঠেছে। তবে আজ বৃষ্টির কারণে ক্রেতার সমাগম কম রয়েছে। অন্যদিন এই সময় প্রচুর ক্রেতা থাকতো। আমাদের এখানে ছেলেদের সব ধরনের পোশাক রয়েছে। পাঞ্জাবি, শার্ট, র্টি-শার্ট, প্যান্ট এর কালেকশন রয়েছে। পাঞ্জাবি দাম ১৮০০ থেকে ৫০০০ হাজার টাকা, র্টি-শার্ট ৪৫০ থেকে ২২০০ টাকা, শার্ট ১২৫০ থেকে ৩২০০ টাকা এবং প্যান্ট ১২০০ থেকে ৩৫০০ টাকায় বিক্রি করছি।
রিচম্যান লোবানা শো-রুমের ক্রেতা আল আমিন বলেন, পাঞ্জবি , শার্ট, আর প্যান্ট কিনবো। এর মাঝে একটা প্যান্ট কিনেছি। আরো একটা প্যান্ট কিনতে হবে, সাথে অন্যে পোশাক। দামের বিষয়ে জানতে চাইলে তিনি জানান, এবার সকল জায়গায় দাম একটু বেশিই চাচ্ছে। তাই বিভিন্ন দোকান দেখছি, দেখেশুনে কিনতে চাই।