জয়পুরহাটে যৌতুকের দাবিতে নবজাতকসহ স্ত্রীকে তাড়িয়ে দেয়ার অভিযোগ

আপডেট: জুন ২০, ২০১৯, ১২:২৩ পূর্বাহ্ণ

জয়পুরহাট প্রতিনিধি


জয়পুরহাটের পাঁচবিবি উপজেলার পাটাবুকা গ্রামে শ^শুর ও স্ত্রীকে জোর করে বিভিন্ন কাগজে সই স্বাক্ষর নিয়ে ২ মাস ১০ দিনের নবজাতক পুত্র সন্তানসহ স্ত্রীকে বাড়ি থেকে বের করে দেওয়ার অভিযোগ পাওয়া গেছে। গতকাল বুধবার দুপুরে জয়পুরহাট জেলা প্রেসক্লাবে অনুষ্ঠিত সংবাদ সম্মেলনে পাটাবুকা গ্রামের মোখলেছার রহমানের ছেলে মুকল হোসেনের বিরুদ্ধে এমন অভিযোগ করেন তার শ^শুর জয়পুরহাট সদর উপজেলার বুুলুপাড়া গ্রামের হাকিম সাখিদার ও মুকুলের স্ত্রী কল্পনা বেগম।
সংবাদ সম্মেলনে হাকিম লিখিত বক্তব্যে বলেন, ২০১৭ সালের ৯ জুন তার মেয়ে হাবিবা খাতুন কল্পনার সঙ্গে পাঁচবিবি উপজেলার পাটাবুকা গ্রামের মোখলেছার রহমানের ছেলে মুকুল হোসেনের বিয়ে হয়। বিয়ের পর থেকে মুকুল বিভিন্ন সময় তার মেয়েকে যৌতুকের জন্য চাপ দিতে থাকে। এমনকি যৌতুকের জন্য তার মেয়েকে শারীরিক ও মানষিকভাবে নির্যাতন করা হতো।
এরই মধ্যে প্রায় ২ মাস আগে কল্পনা বাবার বাড়ি এসে একটি পুত্র সন্তান জন্ম দেয়। সন্তান জন্মের ২ মাস পার হলেও মুকুল তার স্ত্রী বা নবজাতককে দেখতে আসেনি। বাধ্য হয়ে গত সোমবার ১৭ জুন দুপুর ২টায় আমার স্ত্রী, আমার কন্যা কল্পনাসহ তাদের শিশু সন্তান নিয়ে আমার জামাইয়ের বাড়িতে যাই। এ অবস্থায় জামাই মুকুল, তার বাবা, মাসহ তাদের আত্মীয়-স্বজনরা আমার বিয়াই মোকলেছার রহমানের ঘরে আটকে রেখে আমাদের মোবাইল ফোন কেড়ে নিয়ে ভয়ভীতি প্রদর্শন করতে থাকে।
তিনি আরো বলেন, ‘ভয়-ভীতি প্রর্দশনের এক পর্যায়ে মুকুল ও তার আত্মীয়-স্বজনরা বিভিন্ন কাগজে জোর করে আমার এবং আমার মেয়ের সই-স্বাক্ষর ও টিপসহি নিয়ে নবজাতক শিশু পুত্রসহ তার মেয়েকে বাড়ি থেকে বের করে দেয়।
মোহরানা পরিশোধ দেখিয়ে তালাক নামায় জোর করে তাদের সই-স্বাক্ষর ও টিপ সই নেওয়া হয়েছে বলে আশঙ্কা করছেন হাকিম। মুকুলের স্ত্রী কল্পনা বেগম জানান, তার স্বামী মুকুল প্রায়শই ১ লাখ টাকা যৌতুকের দাবিতে মুখে ও শরীরের বিভিন্ন অঙ্গে জলন্ত সিগারেটের ছ্যাঁকা দিয়ে শারীরিক ও মানষিক নির্যাতন করে আসছিল। কল্পনার পিতা আ. হাকিম আরো জানান, তারা আইনেরও আশ্রয়ও নিবেন। এ ব্যাপারে জানতে কল্পনার স্বামী মুকুল হোসেনের সঙ্গে যোগাযোগ করা হলে তিনি অভিযোগ অস্বীকার করেন ।

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ