ঢাকা-ঈশ্বরদী-খুলনা রুটে দুটি বিলাসবহুল ‘ঈদ স্পেশাল ট্রেন’ চলবে তিন দিন

আপডেট: জুন ৯, ২০১৮, ১২:২৩ পূর্বাহ্ণ

সেলিম সরদার, ঈশ্বরদী


ঢাকা-ঈশ্বরদী-খুলনা রুটে এবার ঈদুল ফিতর উপলক্ষে দুটি বিলাসবহুল ট্রেন চলবে। তবে এই ট্রেনের টিকিট প্রাপ্তি নিয়ে হতাশা ব্যক্ত করেছেন স্থানীয়রা। রেলওয়ে সূত্র জানায় কলকাতা-ঢাকার মধ্যে চলাচল করা মৈত্রী এক্সপ্রেস ট্রেনের বিলাসবহুল কোচ ও বগিতে চলবে ঢাকা-ঈশ্বরদী-খুলনা রুটে এই ঈদ স্পোশাল ট্রেন। ঢাকা থেকে ঈশ্বরদী হয়ে খুলনা অভিমুখি এই ট্রেনে মাঝপথে কোনো স্টপেজ থাকবে না। ঈদে ঘরমুখো মানুষের বাড়তি চাপ কমাতে রেলওয়ের পাকশী বিভাগীয় দফতরের আওতায় এই রুটে এই দুটি স্পেশাল ট্রেন তিন দিনের জন্য চলাচল করবে। ঈদের তিন দিন আগে ঢাকা-কলকাতা মৈত্রী এক্সপ্রেসের ১৬টি কোচ দিয়ে ঈদ স্পেশাল ৭ ও ৮ নামের এ দুটি ট্রেন চালানো হবে বলে নিশ্চিত করেছে রেল কর্তৃপক্ষ।
গতকাল শুক্রবার মুঠোফোনে পাকশী বিভাগীয় রেলওয়ে ব্যবস্থাপক (ডিআরএম) অসীম কুমার তালুকদার এ তথ্য নিশ্চিত করে বলেন, ঈদের আগে ১২, ১৩, ১৪ জুন ‘ঈদ স্পেúশাল’ ৭ ও ৮ নম্বর ট্রেন ৮টি বগি নিয়ে ঢাকা-ঈশ্বরদী-খুলনা রুটে চলাচল করবে। ঈদে ঢাকা ও কলকাতাগামী বিলাসবহুল মৈত্রী এক্সপ্রেস ট্রেন বন্ধ থাকার কারণে যাত্রীদের বাড়তি দুর্ভোগ কমাতে এমন ব্যবস্থা করা হয়েছে। রেলওয়ের পাকশী বিভাগীয় বাণিজ্যিক কর্মকর্তা (ডিসিও) আনোয়ার হোসেন জানান, ৭ নম্বর বিশেষ ট্রেন দুপুর ২টা ৪৪ মিনিটে খুলনা থেকে ছেড়ে যশোরে ৩টা ৫৫ মিনিটে এসে দাঁড়িয়ে ৩টা ৫৯ মিনিটে ছাড়বে। চুয়াডাঙায় ৫টা ২৫ মিনিটে এসে দাঁড়িয়ে ৫টা ২৯ মিনিটে ছাড়বে। ঈশ্বরদী জংশন স্টেশনে ৬টা ৩০ মিনিটে এসে দাঁড়িয়ে ৬টা ৪০ মিনিটে ছেড়ে বিরতিহীন যাত্রায় ১১টা ১০ মিনিটে ঢাকা পৌঁছাবে। আবার ৮ নম্বর বিশেষ ট্রেনটি ঢাকা থেকে রাত ১২টা ৫ মিনিটে ছেড়ে বিরতিহীনভাবে ঈশ্বরদী পৌঁছাবে ভোর ৪টা ২০ মিনিটে। ৪টা ৪০ মিনিটে ঈশ্বরদী জংশন স্টেশন থেকে ছেড়ে যাবে। ট্রেনটি চুয়াডাঙা স্টেশনে ভোর ৫টা ৫০ মিনিটে পৌঁছে ৫টা ৫৩ মিনিটে ছেড়ে যাবে। যশোরে সকাল ৭টা ৫ মিনিটে পৌঁছে ৭টা ১০ মিনিটে ছেড়ে খুলনা পৌঁছাবে সকাল ৮টা ২০ মিনিটে। পাকশী বিভাগীয় রেলওয়ে ব্যবস্থাপক (ডিআরএম) অসীম কুমার তালুকদার জানান, এ রুটের অন্য সব ট্রেন নিয়মিত সময়সূচিতেই চলবে। এদিকে ঈদের আগের দিন পর্যন্ত উত্তর-দক্ষিণাঞ্চলের সঙ্গে ঢাকা অভিমুখী আন্তঃনগর সবগুলো ট্রেনের ডে অফ প্রত্যাহার করা হয়েছে।
এদিকে ঈশ্বরদীর স্থানীয় বাসিন্দারা জানান, এই স্পেশাল ট্রেনের টিকিট আগেই বিক্রি হয়ে যাওয়ায় স্থানীয়রা টিকিট সংগ্রহ করতে পারেন নি। রেলওয়ের পরিবহন বিভাগ সূত্রে জানা যায় গত ৩ জুন ১২ তারিখের, ৪ জুন ১৩ তারিখের ও ৫ জুন ১৪ তারিখের টিকিট বিক্রি করা হয়েছে।

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ