তামিম-মুশফিকের সঙ্গে আমার সুস্থ প্রতিযোগিতা চলে: সাকিব

আপডেট: June 24, 2020, 1:55 pm

সোনার দেশ ডেস্ক:


বাংলাদেশ ক্রিকেটের পঞ্চপান্ডবের মধ্যে মুশফিকুর রহিম, তামিম ইকবাল এবং সাকিব আল হাসান প্রায় সমসাময়িক সময়ে জাতীয় দলে সুযোগ পেয়েছেন। বয়সভিত্তিক দল পাড়ি দেওয়ার সময় থেকে এই তিনজনের পথচলা সেই থেকে ছুটছে এখনও। থাকবে আরও কিছু বছর।
নিজেদের এই পথচলা নিয়ে কী ভাবেন সাকিব? নিজেদের মধ্যে চলা প্রতিযোগিতাও কেমন চোখে দেখেন বাংলাদেশের এই সেরা ক্রিকেটার? উত্তর দিলেন স্বয়ং সাকিব। ক্রিকেট ভিত্তিক ওয়েবসাইট ক্রিকবাজের সঙ্গে হার্শা ভোগলের সঞ্চালনায় এক অনুষ্ঠানে এসব প্রশ্নের উত্তরে সাকিব জানান, অবসর শেষে ভাবনাহীন জীবনে বসে এই পথচলার কথা স্মরণ করতে চান তিনি। এছাড়াও নিজেদের মধ্যে এই প্রতিযোগিতা সাকিবের কাছে খুবই গুরুত্বপূর্ণ। বিশেষ করে দলের ভালোর জন্য এমন প্রতিযোগিতা সব দলেই থাকা উচিত বলে মনে করেন সাকিব।
হার্শা সাকিবের কাছে জানতে চান, ‘কখনো কী আপনি, মুশফিক ও তামিম একসাথে বসে নিজেদের এই পথচলার কথা ভাবেন?’
এর উত্তরে সাকিব বলেন, ‘আমার মনে হয় অনূর্ধ্ব-১৫ থেকে একসাথে খেলে আসছি আমরা। আশা করি আরও কয়েক বছর খেলে যাবো। আর আমি মনে করি, এরপরই এটা ভাবার সেরা সময়; যখন আমরা একসাথে অবসরে যাবো তখন। আমরা তখন একসাথে বসে ভাবনা ছাড়া আলোচনা করবো বাংলাদেশ ক্রিকেটের জন্য আমরা কী করেছি।’
আপাতত সামনের বিশ্বকাপের দিকে তাকিয়ে আছেন জানিয়ে সাকিব আরও যোগ করেন, ‘এই মুহূর্তে আমরা ২০২৩ বিশ্বকাপ নিয়ে ভাবছি। যেটা কিনা বাংলাদেশ ক্রিকেট ও আমাদের জন্য অনেক গুরুত্বপুর্ণ। সুতরাং আমাদের জন্য এখন কেবল সামনে দেখার পালা। আশা করি কয়েক বছর পরে আমরা পেছনে দেখবো।’
মুশফিক (৩৭৪ ম্যাচ), তামিম (৩৪৫ ম্যাচ) ও সাকিব (৩৩৮ ম্যাচ) একসাথে এই দীর্ঘ পথচলায় তিনশ’র বেশি ম্যাচ একসঙ্গে খেলেছে। রান করেছে একে অপরের সাথে পাল্লা দিয়ে। আজ তিন ফরম্যাটের মোট রানে তামিম শীর্ষে তো কাল সাকিব তাকে টপকে গেছেন। এখন সেই দৌড়ে দারুণভাবে শামিল হয়েছেন মুশফিকও। নিজেদের মধ্যে এই প্রতিযোগিতা কেমন চোখে দেখেন সাকিব জানতে চেয়ে হার্শা ভোগলে জিজ্ঞেস করেন, ‘আপনাদের মধ্যে কী কোনো প্রতিযোগিতা কাজ করে? এই যেমন, মুশফিক রান করেছে, তাই আমাকেও করতে হবে। বা তামিম কিছু করছে তো আমিও করবো?’
সাকিব এর উত্তরে বলেন, ‘তামিম, মুশফিক ও আমার মধ্যে সুস্থ প্রতিযোগিতা সবসময় কাজ করে। আর এটা দলের জন্যও খুব ভালো। আমি মনে করি, দলের ভালোর জন্য এমন সুস্থ্ প্রতিযোগিতা থাকা দরকার আছে।’
‘ধরেন, কেউ যদি শতক হাঁকালো তখন আপনাকে ১২০ রান করতে হবে। আর আমাদের মধ্যে এই প্রতিযোগিতাই চলে।’
এরপরে আরও যোগ করেন, ‘আমরা তিনজনই সব ফরম্যাটের রানের ক্ষেত্রে খুব কাছাকাছি আছি। এমনকি টেস্ট, ওয়ানডে ও টি-টোয়েন্টি বলেন আমাদের মধ্যে খুব বেশি দূরত্ব নেই। পার্থক্য হয়ত সর্বোচ্চ এক হাজার রানের মতো হতে পারে। তবে আমাদের মধ্যে প্রত্যেকে অন্যজনকে টপকে শীর্ষে যেতে চাই। আমি মনে করি যে কোনো দলের জন্য এটা খুব ভালো।’
সাকিব, তামিম ও মুশফিকের মধ্যে তামিম বর্তমানে তিন ফরম্যাটে ২৩ শতকে ১৩৩৬৫ রান করে শীর্ষে আছেন। পরের স্থানটি মুশফিকের ১১, ৮৬৯ রান। আর সাকিবের সংগ্রহে ১১,৭৫২ রান। তবে মুশফিক ও সাকিবের শতক সমান ১৪টি করে।
তথ্যসূত্র: রাইজিংবিডি