দিনাজপুরে উপজেলা চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে অনাস্থা প্রস্তাবে ভোট দান

আপডেট: জানুয়ারি ১১, ২০১৮, ১২:১৮ পূর্বাহ্ণ

দিনাজপুর প্রতিনিধি


দিনাজপুরে এক উপজেলা চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে আনা অনাস্থা প্রস্তাবের পক্ষে ১৪ জন গোপন ব্যালটে মতামত দিয়েছেন। স্থানীয় সরকার মন্ত্রণালয়ে চূড়ান্ত সিদ্ধান্তের জন্য প্রস্তাব প্রেরণ করা হবে।
গত মঙ্গলবার বিকেলে দিনাজপুরের বীরগঞ্জ উপজেলা চেয়ারম্যান মো. আমিনুল ইসলামের বিরুদ্ধে বিভিন্ন অনিয়মের জন্য আনা অনাস্থা প্রস্তাবের উপর গোপন ভোটের মাধ্যমে মতামত নেয়া হয়। রংপুর বিভাগীয় অতিরিক্ত কমিশনার (সার্বিক) মিনু শীল জানান, উপজেলা চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে আনীত অনাস্থা প্রস্তাবকে সমর্থন করে বীরগঞ্জ পৌরসভার মেয়র, উপজেলা পরিষদের ২ ভাইস চেয়ারম্যান এবং ১১টি ইউনিয়নের চেয়ারম্যানগণ গোপন ব্যালটে ভোট দেন। সমর্থনদানকারী ১৪ জন উপজেলা পরিষদের সদস্যের সিদ্ধান্ত রেজুলেশন আকারে স্থানীয় সরকার মন্ত্রণালয়ে প্রেরণ করা হবে। মন্ত্রণালয়ের সিদ্ধান্ত অনুযায়ী পরবর্তী ব্যবস্থা গ্রহণের কথা উল্লেখ করে অতিরিক্ত বিভাগীয় কমিশনার মিনু শীল বলেন, ৩ অক্টোবর উপজেলা চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে নির্দিষ্ট ৭টি অভিযোগ এনে রংপুর বিভাগীয় কমিশনারের কাছে অনাস্থা জ্ঞাপন করে ১২ জন সদস্য লিখিত আবেদন করলে ২০ ডিসেম্বর মিনু শীল বীরগঞ্জ ইউএনও কার্যালয়ে প্রাথমিক তদন্ত ও সাক্ষ্য গ্রহণ করেন। অনাস্থা প্রস্তাবের বিরুদ্ধে উপজেলা চেয়ারম্যান আমিনুল ইসলামের লিখিত বক্তব্য সন্তোষজনক না হওয়ায় মঙ্গলবার মিনু শীল পরিষদের সদস্যদের সাথে সভায় মিলিত হন।
ভাইস চেয়ারম্যান সেলিনা আক্তারের সভাপতিত্বে বৈঠকে অনাস্থা প্রস্তাবের ব্যাপারে গোপন ভোটের আয়োজন করা হয়। উপজেলা চেয়ারম্যান বৈঠকে উপস্থিত ছিলেন না।
ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যানদের সংগঠন বীরগঞ্জ উপজেলা ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান অ্যাসোসিয়েশনের সভাপতি আতাহারুল ইসলাম চৌধুরী হেলাল জানান, আমরা জনপ্রতিনিধি হয়ে একজন জনপ্রতিনিধির বিরুদ্ধে অনাস্থা প্রস্তাব এনে ভোট দিয়েছি তা দুঃখ জনক। কিন্তু তিনি এ পরিস্থিতি তৈরি করেছেন। বাধ্য হয়ে আমরা এ কাজ করেছি।
দিনাজপুরে উপজেলা চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে অনাস্থা প্রস্তাবে ভোট দান
দিনাজপুর প্রতিনিধি
দিনাজপুরে এক উপজেলা চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে আনা অনাস্থা প্রস্তাবের পক্ষে ১৪ জন গোপন ব্যালটে মতামত দিয়েছেন। স্থানীয় সরকার মন্ত্রণালয়ে চূড়ান্ত সিদ্ধান্তের জন্য প্রস্তাব প্রেরণ করা হবে।
গত মঙ্গলবার বিকেলে দিনাজপুরের বীরগঞ্জ উপজেলা চেয়ারম্যান মো. আমিনুল ইসলামের বিরুদ্ধে বিভিন্ন অনিয়মের জন্য আনা অনাস্থা প্রস্তাবের উপর গোপন ভোটের মাধ্যমে মতামত নেয়া হয়। রংপুর বিভাগীয় অতিরিক্ত কমিশনার (সার্বিক) মিনু শীল জানান, উপজেলা চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে আনীত অনাস্থা প্রস্তাবকে সমর্থন করে বীরগঞ্জ পৌরসভার মেয়র, উপজেলা পরিষদের ২ ভাইস চেয়ারম্যান এবং ১১টি ইউনিয়নের চেয়ারম্যানগণ গোপন ব্যালটে ভোট দেন। সমর্থনদানকারী ১৪ জন উপজেলা পরিষদের সদস্যের সিদ্ধান্ত রেজুলেশন আকারে স্থানীয় সরকার মন্ত্রণালয়ে প্রেরণ করা হবে। মন্ত্রণালয়ের সিদ্ধান্ত অনুযায়ী পরবর্তী ব্যবস্থা গ্রহণের কথা উল্লেখ করে অতিরিক্ত বিভাগীয় কমিশনার মিনু শীল বলেন, ৩ অক্টোবর উপজেলা চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে নির্দিষ্ট ৭টি অভিযোগ এনে রংপুর বিভাগীয় কমিশনারের কাছে অনাস্থা জ্ঞাপন করে ১২ জন সদস্য লিখিত আবেদন করলে ২০ ডিসেম্বর মিনু শীল বীরগঞ্জ ইউএনও কার্যালয়ে প্রাথমিক তদন্ত ও সাক্ষ্য গ্রহণ করেন। অনাস্থা প্রস্তাবের বিরুদ্ধে উপজেলা চেয়ারম্যান আমিনুল ইসলামের লিখিত বক্তব্য সন্তোষজনক না হওয়ায় মঙ্গলবার মিনু শীল পরিষদের সদস্যদের সাথে সভায় মিলিত হন।
ভাইস চেয়ারম্যান সেলিনা আক্তারের সভাপতিত্বে বৈঠকে অনাস্থা প্রস্তাবের ব্যাপারে গোপন ভোটের আয়োজন করা হয়। উপজেলা চেয়ারম্যান বৈঠকে উপস্থিত ছিলেন না।
ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যানদের সংগঠন বীরগঞ্জ উপজেলা ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান অ্যাসোসিয়েশনের সভাপতি আতাহারুল ইসলাম চৌধুরী হেলাল জানান, আমরা জনপ্রতিনিধি হয়ে একজন জনপ্রতিনিধির বিরুদ্ধে অনাস্থা প্রস্তাব এনে ভোট দিয়েছি তা দুঃখ জনক। কিন্তু তিনি এ পরিস্থিতি তৈরি করেছেন। বাধ্য হয়ে আমরা এ কাজ করেছি।

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ