দুই বাংলার ভ্রাতৃত্ব আরো সুদৃঢ় হবে : মেয়র লিটন

আপডেট: মার্চ ২, ২০১৯, ১২:২৫ পূর্বাহ্ণ

নিজস্ব প্রতিবেদক


অনুষ্ঠানে গবেষক ও প্রাবন্ধিক অধ্যক্ষ ড. তসিকুল ইসলাম রাজাকে অক্ষয়কুমার মৈত্র সম্মাননা প্রদান করেন সিটি মেয়র এএইচএম খায়রুজ্জামান লিটন-সোনার দেশ

সিটি মেয়র এএইচএম খায়রুজ্জামান লিটন বলেছেন, বর্ডার বা দাগ কেটে বাংলাদেশ ও পশ্চিমবঙ্গ সীমানা রেখা দেয়া যাবে। কিন্তু দুই বাংলার মানুষের মধ্যে যে ভালোবাসা ও আন্তরিকতা, সেটা দাগ কেটে আটকে রাখা যাবে না। দুই বাংলার ভ্রাতৃত্ব ছিল, আছে এবং আগামিতে আরো সুদৃঢ় হবে।
গতকাল শুক্রবার সন্ধ্যায় শহিদ এএইচএম কামারুজ্জামান জেলা পরিষদ মিলনায়তনে সাত দিনব্যাপি ৩য় অক্ষয়কুমার মৈত্রেয় নাটোৎসব-২০১৯ এর উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন।
অনুষ্ঠানে মেয়র খায়রুজ্জামান লিটন বলেন, সাংস্কৃতিক ও নাট্যচর্চার গ্রুপের সদস্যরা নানা সীমাবন্ধতার মধ্য দিয়ে চর্চা অব্যাহত রেখেছে। তারা হয়তো তেমন সহযোগিতা পায় না। আমি প্রথমবার মেয়র থাকার সময় বর্ণাঢ্য মেয়র নাট্যোৎসব করেছিলাম। এবার আগামী ১৭ মার্চ থেকে ২৬ মার্চ পর্যন্ত ১০ দিনব্যাপি বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক সাংস্কৃতিক উৎসব আয়োজন করতে যাচ্ছি। এই ১০ দিন সাংস্কৃতিক কর্মকাণ্ডে মাতিয়ে থাকবে রাজশাহী।
মেয়র লিটন বলেন, সাংস্কৃতিক চর্চায় আমার সহযোগিতা বিগত সময়েও ছিল, আগামিতেও সহযোগিতা অব্যাহত থাকবে।
অনুষ্ঠানের উদ্বোধন করেন, একুশে পদকপ্রাপ্ত সংগীতজ্ঞ পণ্ডিত অমরেশ রায় চৌধুরী। বিশেষ অতিথি ছিলেন বাংলাদেশ গ্রুপ থিয়েটার ফেডাশেনের সেক্রেটারি জেনারেল কামাল বায়েজিদ, ভারতের গোবরডাঙ্গা নক্সা এর নির্দেশক ও সভাপতি আশিস দাস, সম্মিলিত সাংস্কৃতিক জোটের সাধারণ সম্পাদক দিলীপ কুমার ঘোষ। স্বাগত বক্তব্য দেন, রাজশাহী থিয়েটারের সভাপতি নিতাই কুমার সরকার। অনুষ্ঠানে গবেষক ও প্রাবন্ধিক অধ্যক্ষ ড. তসিকুল ইসলাম রাজাকে অক্ষয়কুমার মৈত্র সম্মাননা প্রদান করেন মেয়র ও অন্যান্য অতিথিরা।
অনুষ্ঠানের শুরুতে প্রদীপ প্রজ্জ্বলন করেন উদ্বোধক ও মেয়রসহ অতিথিরা। এ সময় বর্ণাঢ্য নৃত্য পরিবেশিত হয়।
উল্লেখ্য, আগামী ৭ মার্চ এই উৎসবের সমাপনী অনুষ্ঠান অনুষ্ঠিত হবে। সাত দিনের এই উৎসবে বাংলাদেশ ও ভারতের বিখ্যাত সাতটি নাটক মঞ্চস্থ হবে।

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ