দ্রোহের দাবানল

আপডেট: আগস্ট ১০, ২০১৮, ১:০১ পূর্বাহ্ণ

ইসাহাক আলী


মাটিতে রক্ত ঝরলেই
জন্ম হয় বারুদের
শানিত হয় দ্রোহের দাবানল
যেকোন মুহূর্তে হতে পারে তা বিদ্রোহের আগ্নেয়গিরি।
প্রতিটি ইতিহাস স্বাক্ষ্য দেয় সেই চির সত্যের
দেশ কি সেই স্বাক্ষ্য গ্রহণের কাঠগড়ায় !
জাতি যেন নিদ্রাহীন সেই প্রতিক্ষায়..
কান খাড়া করে দন্ডায়মান কালের দূত
কোন বার্তা দেবে সে উদ্বিগ্ন জাতিকে!
শিক্ষার তকমা লাগিয়ে তোমরা কিভাবে
অস্বীকার করো স্বাক্ষ্যকে,
ইতিহাসের প্রয়োজনে রক্তরাই তো অমোঘ স্বাক্ষী,
সেটা ভাষা, গণ অভ্যুথান কিংবা স্বাধীনতা সংগ্রামে।
গণতন্ত্র প্রতিষ্ঠা কিংবা জালিম শাহীর তখ্ত মশনাদে
এই রক্ত কনিকারাই অহমিকার পথে
শেওলা ছিটিয়ে করিছে তাদের পথের ভিখারী।
যে কাঁধটা বন্ধুক রাখার উপযোগী করেছো
দিনে দিনে স্কুল ব্যাগটা ঝুলিয়ে,
আঙুলটাকে করেছো টিকার টিপে নিশানা
নির্দেশনার যন্ত্র-আঙুলের ভাঁজে কলমকে জড়িয়ে,
আর এখন তাদের বাহক শিক্ষার্থীদেরই উপর,
গুলি চালাও কোন অস্বীকারকারী বেঈমানের মতো,
তোমাদের ধরে শিক্ষার বাতি জ্বালিয়ে
জাতির বিবেক শিক্ষকরাও আজ নিশ্চয়ই
শোষকের প্রেত্মাতা পরিচয়বহনকারী তোমাদের,
নিজেদের ছাত্র পরিচয় দিতেও বিব্রত হন।
তোমাদের বাড়িতে থাকা তোমাদের স্ত্রীরাও কারো মা
তোমাদের বাড়িতে স্কুল ব্যাগ কাঁধে বয়ে বেড়ানো সন্তানটাও
তোমাদের নৃশংসতায় বাবা ডাকতে ভুলে যাবে
এভাবে রাস্তায় রক্ত ঝরলে,
প্রতিটি রক্ত কণিকা একদিন জ্বলন্ত বারুদ হবেই
একবার জ্বলে উঠলে প্রতিরোধের সব যোগ্যতাই
মিলিয়ে যাবে দ্রোহে বিদ্রোহে,
থামাও গুলি রাজপথের নির্যাতন
জাতির আগামীকে বিধ্বংস করার মিশন,
তা না হলে জ্বলে উঠবে জাতি
কারণ মাটিতে রক্ত ঝরলেই
জন্ম হয় বারুদের,
শানিত হয় দ্রোহের দাবানল ।