নওগাঁয় চলছে অবৈধ ভাবে গ্যাস সরবরাহ || যে কোন সময় ঘটতে পারে দুর্ঘটনা

আপডেট: অক্টোবর ১৫, ২০১৯, ১:৪১ পূর্বাহ্ণ

আবদুর রউফ রিপন, নওগাঁ


নাটোর-নওগাঁ আঞ্চলিক মহাসড়কের মায়া বিড়ি ফ্যাক্টরি সংলগ্ন স্থানে এভাবে গ্যাস সরবরাহ করা হয় -সোনার দেশ

নওগাঁ জেলার শেষ সীমানা ও তার পার্শ্ববতি অঞ্চল বগুড়া জেলার আদমদীঘি উপজেলার সান্তাহারের আশেপাশে কয়েকটি স্থানে অবৈধ ভাবে ভ্রাম্যমাণ অবস্থায় গ্যাস সরবরাহ করা হচ্ছে। প্রশাসন ও স্থানীয় প্রভাবশালী ব্যক্তিদের ম্যানেজ করে কতিপয় ব্যক্তিরা দীর্ঘদিন যাবত এই অবৈধ কাজ করে আসছে। এতে করে যে কোন সময় গ্যাসের সিলিন্ডার বিস্ফোরিত হয়ে ঘটতে পারে বড় ধরনের দুর্ঘটনা এমন আশঙ্কা করছেন স্থানীয়রা।
বর্তমানে আইনের সঠিক ব্যবহার না থাকায় ও বিভিন্ন কোম্পানির খামখেয়ালীপনার কারণে যে কোন স্থানের পানের দোকান থেকে শুরু করে ছোটখাটো ঝুপরি দোকানেও যত্রতত্র ভাবে পাওয়া যাচ্ছে এলপি গ্যাস। কিন্তু সরকারি বিধি মোতাবেক ফায়ার সার্ভিস কর্তৃক অনুমোদন ও প্রশাসনের অনুমতি ছাড়া কোন দোকানদারই এই এলপি গ্যাস দোকানে রেখে ক্রয়-বিক্রয় করতে পারবেন না। কিন্তু এই সব গ্যাসের সিলিন্ডারের জন্য উপযুক্ত পরিবেশ ও সঠিক রক্ষনাবেক্ষণ করা না হলে যে কোন সময় সিলিন্ডার বিস্ফোরিত হয়ে ঘটতে পারে বড় ধরনের দুর্ঘটনা। ঠিক একই ভাবে কিছু কতিপয় ব্যক্তিরা জোড়াতালি দেওয়া ট্রাকে করে রাস্তার বিভিন্ন স্থানে দাড়িয়ে সিএনজি অটোরিক্সাগুলোতে চোরাই ভাবে কোন প্রকারের অনুমতি ছাড়াই গ্যাস সরবরাহ করছে। নওগাঁ-নাটোর আঞ্চলিক মহাসড়কের বিভিন্ন স্থানে চোখে পড়বে ট্রাক থেকে সিএনজিতে গ্যাস সরবরাহের চিত্র।
মোট ৩টি জোড়াতালি দেওয়া লক্করঝক্কর ট্রাকে করে বিভিন্ন সময়ে ঢাকা রোড, তার আশেপাশের বিভিন্ন স্থানে, নওগাঁ-নাটোর আঞ্চলিক মহাসড়কের বিভিন্ন গোপন স্থানে ও সান্তাহার শহরের বিভিন্ন সুবিধাপূর্ণ রাস্তার গোপন স্থানে ভ্রাম্যমাণ অবস্থায় অবৈধ ভাবে সিএনজিগুলোতে এই গ্যাস সরবরাহ করা হচ্ছে। এতে করে স্থানীয় অনুমোদিত ফিলিং স্টেশনগুলো যেমন ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে তেমন ভাবে সরকার হারাচ্ছে রাজস্ব। এছাড়াও পরীক্ষা-নিরীক্ষা ছাড়াই যেমন-তেমন ভাবে এই গ্যাস সরবরাহ করার সময় গ্যাসের সিলিন্ডার বিস্ফোরিত হয়ে ঘটতে পারে প্রাণহানি দুর্ঘটনা।
জেলার রাণীনগর উপজেলার সর্বরামপুর গ্রামের ইয়াদ আলীর ছেলে আবদুর রাজ্জাক দীর্ঘ প্রায় ২বছর যাবত একটি লক্করঝক্কর ট্রাকে করে নওগাঁ-নাটোর আঞ্চলিক মহাসড়কের বিভিন্ন স্থানে সিএনজিগুলোতে অবৈধ ভাবে গ্যাস সরবরাহ করে আসছেন। শুধু তিনিই নন নওগাঁ ও সান্তাহার শহরের কিছু প্রভাবশালী ব্যক্তিরাও একাধিক ট্রাকে করে এই গ্যাস সরবরাহ করে আসছেন বলে তিনি জানান। অবৈধ ভাবে ট্রাকে করে গ্যাস সরবরাহ করার অভিযোগে চলতি বছরে ঢাকা রোডের একাধিক দোকান ও ট্রাক সিলগালা করে তাদের মালপত্র জব্দ করে। কিন্তু তবুও কমেনি অসাধু ব্যক্তিদের এই দৌরাত্ম।
ট্রাকে করে গ্যাস বিক্রেতা আবদুুর রাজ্জাক বলেন, তার দূর সম্পর্কের এক নানা বর্তমানে পুলিশ সুপার। তার অনুমতিতেই তিনি এই গ্যাস সরবরাহ করে আসছেন। এছাড়াও কিছু প্রভাবশালী ব্যক্তিদের ম্যানেজ করে তিনি এই ব্যবসা করে আসছেন বলেও তিনি জানান।

আদমদীঘি থানার অপিসার ইনচার্জ (ওসি) জালাল উদ্দিন বলেন, আমিও বিষয়টি শুনেছি। আসলে অনেকেই অনেক ব্যক্তির নাম ভাঙিয়ে এই সব অবৈধ কর্মকাণ্ড পরিচালনা করে আসছে। আমি অবশ্যই আমার উর্দ্ধতন কর্তৃপক্ষের সঙ্গে পরামর্শক্রমে আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণ করবো।
নওগাঁ জেলা প্রশাসক মো. হারুন-অর-রশীদ বলেন, বিষয়টি আমার জানা নেই। অবশ্যই এই বিষয়ে খোঁজখবর নিয়ে এই অবৈধ কাজের সঙ্গে জড়িত ব্যক্তিদের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণ করার নির্দেশ প্রদান করবো।