নগরীতে পাঁচ দিনব্যাপি বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক সাংস্কৃতিক উৎসব শুরু

আপডেট: মার্চ ৮, ২০১৯, ১২:২৭ পূর্বাহ্ণ

নিজস্ব প্রতিবেদক


বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক সাংস্কৃতিক উৎসবের উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে বিশিষ্ট সমাজসেবী শাহিন আকতার রেণী  সোনার দেশ

নগরীতে পাঁচ দিনব্যাপি বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক সাংস্কৃতিক উৎসব শুরু হয়েছে। গতকাল বৃহস্পতিবার সন্ধ্যা ৬টায় নগরীর পদ্মা নদীর তীরবর্তী লালনশাহ মুক্তমঞ্চে এ উৎসবের উদ্বোধন করা হয়। আনুষ্ঠানিকভাবে উৎসবের উদ্বোধন করেন, ভাষাসৈনিক আবুল হোসেন।
‘যতদিন রবে পদ্মা-যমুনা, গৌরী-মেঘনা বহমান, ততদিন রবে কীর্তি তোমার শেখ মুজিবুর রহমান’ এই স্লোগানকে সামনে রেখে আয়োজিত উৎসবে সভাপতিত্ব করেন, উৎসব উদযাপন পরিষদের যুগ্ম আহবায়ক রুহুল আমিন প্রামানিক। সম্মানিত অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন, নগর আ’লীগের সিনিয়র সহ-সভাপতি শাহীন আকতার রেণী ও রাসিক প্যানেল মেয়র-১ শরিফুল ইসলাম বাবু। অনুষ্ঠানে অন্যদের মাঝে উপস্থিত ছিলেন, কবিকুঞ্জের সাধারণ সম্পাদক আরিফুল হক কুমার, রাসিক ৯ নম্বর ওয়ার্ডের কাউন্সিলর রেজাউন নবী দুদু, চলচ্চিত্র নির্মাতা ড. সাজ্জাদ বকুল, আহসান কবীর লিটন, মাহমুদ হোসেন মাসুদ।
উদ্বোধন শেষে ভাষাসৈনিক আবুল হোসেন বলেন, ৭ মার্চ বাঙ্গালির একটি ঐতিহাসিক একটি দিন। বঙ্গবন্ধুর সেই বক্তব্য ওই সময়ের পূর্ব পাকিস্তানে গ্রাম থেকে গ্রামান্তরে ছড়িয়ে পড়ে। ফলে নতুন একটি সরকার গঠন হয়ে যায়। ওই সময় যখন ঘোষণা করা হলো উর্দুই রাষ্ট্রভাষা হবে। সাথে সাথে বাংলার মানুষের মাঝে বিরাটভাবে বিক্ষোভ শুরু হলো। এরফলেই ভাষা আন্দোলন আরম্ভ হয়। এই চেতনা থেকেই পর্যায়ক্রমে ৭৪ এর নির্বাচন ৭১ যুদ্ধের ফলেই নতুন বাংলাদেশ সৃষ্টি হলো। এইভাবেই পৃথিবীর মানুষ বুঝতে পারলো ভাষার জন্য ভালোবাসা’।
উদ্বোধনীর পরে প্রদশির্ত হয় মুক্তিযুদ্ধভিক্তিক প্রামাণ্য তথ্যচিত্র ‘বাঙালি জাতির চিত্র’। এ উৎসবে মুক্তযুদ্ধভিক্তিক প্রামাণ্য তথ্যচিত্র ও চলচ্চিত্র প্রদর্শিত হবে। শেষ হবে আগামি ১১ মার্চ। প্রতিদিন বিকেল ৫টা হতে রাত সাড়ে ৮টা পর্যন্ত উৎসব চলবে বলে আয়োজক কমিটি জানিয়েছেন।

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ