নাটোরে চা দোকানি তিন ভাইকে ঝলসে দিয়েছে ছাত্রলীগের নেতাকর্মীরা

আপডেট: আগস্ট ১১, ২০১৭, ১২:৫৫ পূর্বাহ্ণ

নাটোর অফিস


অন্য দোকানে গিয়ে চা না দেয়ার কারণে নাটোরে হামলা চালিয়ে তিন চা দোকানদারকে গরম পানি দিয়ে ঝলসে দিয়েছে ছাত্রলীগ নেতাকর্মীরা। এসময় তারা চায়ের দোকানে ভাঙচুর চালায়। ঝলসে যাওয়া তিন চা দোকানদারসহ চারজনকে নাটোর সদর হাসপাতালে প্রাথমিক চিকিৎসা দেয়া হয়েছে। এরা তিনজনই সহোদর ভাই।
চা দোকানিরা হলেন- শহরের বড়গাছা এলাকার হাফিজুর রহমানের ছেলে রুস্তুম আলী (২৮), মোস্তফা হোসেন (৩২) এবং ইদুল হোসেন (১৭)।
পুলিশ ও প্রত্যক্ষদর্শীরা জানায়, গতকাল বৃহস্পতিবার বেলা ১২টার দিকে নাটোর এনএস সরকারি কলেজ ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক শাহারিয়ার রহমার রিয়ন কলেজের মূল ফটকের সামনে একটি দোকানে বসে অপর একটি দোকানদার মোস্তফা হোসেনকে চা দিতে বলেন। কিন্তু মোস্তফা অন্য দোকানে চা দিতে অস্বীকৃতি জানায়। এসময় ছাত্রলীগের নেতাকর্মীরা ক্ষিপ্ত হয়ে এনএস কলেজ ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক শাহারিয়ার রহমান রিয়নের নেতৃত্বে ওই দোকানে হামলা চালিয়ে ভাঙচুর করে। এসময় চায়ের কেটলিতে থাকা গরম পানি দিয়ে তিন সহোদরকে ঝলসে দেয়। পরে স্থানীয়রা একজোট হলে ছাত্রলীগের নেতাকর্মীদের সঙ্গে ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়ার ঘটনা ঘটে। পরে খবর পেয়ে সদর থানা পুলিশ এবং জেলা ছাত্রলীগের নেতাকর্মীরা ঘটনাস্থলে পৌঁছে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে। ঝলসে যাওয়া তিন সহোদরসহ চারজন নাটোর সদর হাসপাতালে প্রাথমিক চিকিৎসা নিয়ে বাড়ি ফিরে গেছে।
ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে এনএস কলেজ ছাত্রলীগের সভাপতি শাহাদৎ হোসেন রাজিব বলেন, ছাত্রলীগ নেতাকর্মীদের ওপর শিবিরের নির্যাতনের প্রতিবাদে কলেজে একটি প্রতিবাদ মিছিল শেষে ছাত্রলীগের নেতাকর্মীরা চা খাওয়ার জন্য মূল ফটকের সামনে বসে। এসময় দোকানদারকে চা দিতে বললে সে না দেয়ার কারণে ক্ষিপ্ত হয়ে এ ঘটনা ঘটিয়েছে। তবে কলেজ ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদকও গরম পানিতে আহত হয়েছেন।
এ বিষয়ে সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মশিউর রহমান জানান, বর্তমানে পরিস্থিতি শান্ত রয়েছে। তবে থানায় এখন পর্যন্ত কোন অভিযোগ দায়ের হয় নি।