নাটোরে পদ্মা নদীর বাঁধে ধ্বস: আতঙ্কিত এলাকাবাসী

আপডেট: অক্টোবর ৫, ২০১৯, ১:১২ পূর্বাহ্ণ

নাটোর অফিস


নাটোরের লালপুরে পদ্মা নদীতে পানি বৃদ্ধি স্থিতিশীল অবস্থায় রয়েছে। নতুন করে কোন এলাকা প্লাবিত হয়নি। তবে আকস্মিক বন্যার কারণে পদ্মা নদীর বামতীরের তিনটি স্থানে ধ্বস দেখা দিয়েছে। সবচেয়ে বেশি ভাঙন দেখা দিয়েছে নুরুল্লাপুরে। এই স্থানে ৭৩মিটার এলাকা জুড়ে ভাঙন শুরু হওয়ায় আতঙ্কে দিন কাটছে এলাকাবাসীর। এছাড়া আকসেদের মোড়ে ২০ মিটার এবং নুরল্ল¬াপুরে নতুন বাঁধ এলাকায় ১৫ মিটার এলাকা জুড়ে ধ্বসে গেছে তীর রক্ষার ব্লক।
নাটোর পানি উন্নয়ন বোর্ড ও স্থানীয়রা জানান, পদ্মা নদীর আকসেদের মোড়ে গত তিন বছর আগে ব্লক ধ্বসে গেলেও আজ পর্যন্ত মেরামত করেনি পানি উন্নয়ন বোর্ড। এবারের বন্যায় নতুন করে আবারো বেশ কিছু অংশ ধ্বসে গেছে। এতে করে বাঁধ ভাঙার আশঙ্কা করছেন এলাকাবাসী।
আকসেদের মোড় এলাকার বাসিন্দা টুটুল হোসেন জানান, আতঙ্ক নিয়ে এলাকাবাসীকে দিন পার করতে হচ্ছে। দীর্ঘ দিন ধরে তীর সংরক্ষনের ব্লক ধ্বসে গেলেও কর্তৃপক্ষ কোন ব্যবস্থা নিচ্ছে না। অতিদ্রুত প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়ার জন্য জোর দাবি জানাচ্ছি।
এদিকে, নতুন করে বাঁধ ভাঙা শুরু হয়েছে নুরুল্লাপুরের দুটি স্থানে। দীর্ঘ দিন ধরে ৭৩মিটার মাটির বাঁধ ভাঙা শুরু হলেও এবার ভাঙনে বেশি ভয়াবাহ দেখা দিয়েছে। বাঁধের ছোট বড় গাছ নদী গর্ভে বিলিন হয়ে গেছে। এছাড়া নতুন বাঁধের ১৫মিটার ধ্বসে গেছে।
আবুল কালাম নামের স্থানীয় এক বাসিন্দা জানান, গত পাঁচ বছর ধরে একই স্থানে পদ্মা নদীর ঢেউ থেকে বাঁচানোর জন্য কোন ব্যবস্থা নেওয়া হয়নি। বারবার স্থানীয় এমপি, উপজেলা প্রশাসনকে জানিয়ে কোন কাজ হয়নি। আমরা চরম আতঙ্কের মধ্যে দিন পার করছি যে কোন সময় বাড়ি ঘর বিলিন হয়ে যেতে পারে।
তবে সম্প্রতি পদ্মা নদীর তিনটি ভাঙন এলাকায় পরিদর্শন করেছেন নাটোর পানি উন্নয়ন বোর্ডের সহকারী প্রকৌশলী আল আসাদ। তিনি জানান, আকসেদের মোড়ে ব¬ক ধ্বসে যাওয়া ঠেকাতে ২৫০বস্তা জিও ব্যাগ ফেলানো হয়েছে। এছাড়া নুরুল্লাহপুরে পদ্মা পানি নেমে গেলে নতুন করে প্রকল্প নেওয়া হবে। সামনে মৌসুমের আগেই প্রকল্পের কাজ শুরু হবে।

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ