নাটোরে পৃথক সড়ক দুর্ঘটনায় চারজন নিহত, আহত ছয়

আপডেট: নভেম্বর ১২, ২০১৭, ১২:৫৫ পূর্বাহ্ণ

নাটোর ও সিংড়া প্রতিনিধি


নাটোরে পৃথক সড়ক দুর্ঘটনায় চার জন নিহত হয়েছেন। নাটোর-বগুড়া সড়কের যাত্রিবাহী বাস ও মাইক্রোবাসের মুখোমুখি সংঘর্ষে শিশুসহ ৩ জন নিহত হয়। এসময় আহত হয়েছেন অন্তত ৬ জন। তাদের নাটোর সদর হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। এদিকে খবর পেয়ে দুর্ঘটনাস্থলে যান তথ্য ও যোগাযোগ প্রতিমন্ত্রী (আইসিটি) জুনাইদ আহমেদ পলক। তিনি সেখানে গিয়ে উদ্ধার তৎপরতা তদারকি করেন এবং পরে হাসপাতালে আহতদের চিকিৎসার খোঁজ খবর নেন।
পুলিশ ও প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, গতকাল শনিবার দুপুর সাড়ে ১২টার দিকে নাটোর-বগুড়া সড়কের সিংড়ায় যাত্রিবাহী বাস ও মাইক্রোবাসের মুখোমুখি সংঘর্ষ হয়। এতে শিশুসহ ৩ জন নিহত হয়। সিংড়া উপজেলার শেরকোল পাঁচবাড়িয়া এলাকায় এ দুর্ঘটনাটি ঘটেছে।
প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, সিংড়া উপজেলার পাঁবাড়িয়া এলাকায় বগুড়াগামী যাত্রিবাহী হৃদয় পরিবহনের সঙ্গে বিপরীত দিক থেকে আসা মাইক্রেবাসের মুখোমুখি সংঘর্ষ হয়। এতে ঘটনাস্থলেই মাইক্রোবাস চালক (অজ্ঞাত) মারা যায়। আহতদের মধ্যে ৭ জনকে উদ্ধার করে নাটোর সদর হাসপাতালে নেয়ার সময় শিশুসহ আরো দুই বাসযাত্রীর মৃত্যু হয়।
সিংড়া থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মনিরুল ইসলাম দুর্ঘটনার বিষয়টি নিশ্চিত করে জানান, দুর্ঘটনার পরপরই আহতদের উদ্ধার কাজ শুরু করে উপস্থিত জনসাধারণ। তিনি আরো জানান, এসময় দুর্ঘটনাস্থলে তথ্য ও প্রযুক্তি প্রতিমন্ত্রী জুনাইদ আহমেদ পলক উপস্থিত থেকে উদ্ধার কাজ তদারকি করে। পরে পুলিশ ও দমকল কর্মীরা গিয়ে আহতদের উদ্ধার করে হাসপাতালে পাঠায়। তিনি বলেন, হাসপাতালে নেয়ার পথে আহতদের মধ্যে এক শিশুসহ তিনজনের মৃত্যু হয়। অন্য আহতদের নাটোর সদর হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।
নাটোর সদর হাসপাতালের আবাসিক মেডিকেল অফিসার (আরএমও) ডা. আবুল কালাম আজাদ জানান, আহতদের হাসপাতালে নিয়ে আসার আগেই তিনজনের মৃত্যু হয়। আহত আরো পাঁচজনকে ভর্তি করে চিকিৎসা দেয়া হচ্ছে বলে জানান তিনি।
অপরদিকে একইদিন দুপুর পর নাটোর-রাজশাহী মহাসড়কের নাটোর সদর উপজেলার বন বেলঘড়িয়া এলাকায় বাসের ছাদ থেকে পড়ে গেলে ঘটনাস্থলেই মোর্শেদ (৩৫) নামে এক ব্যক্তির মৃত্যু হয়। তিনি বন বেলঘড়িয়া এলাকায় ইয়াকুব আলী প্রামানিকের ছেলে। এ ঘটনায় নাটোর সদর ও ঝলমলিয়া হাইওয়ে ফাঁড়িতে দুইটি আলাদা অপমৃত্যুর মামলা হয়েছে।

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ