নির্বাচনকে ঘিরে উৎসবের নগরী রাজশাহী

আপডেট: জুলাই ১৩, ২০১৮, ১:০১ পূর্বাহ্ণ

নিজস্ব প্রতিবেদক


নির্বাচনকে ঘিরে উৎসবের নগরীতে পরিণত হয়েছে রাজশাহী। যেন সাজ সাজ রব পড়ে গেছে পুরো নগরীজুড়েই। এখন নগরীতে টক অব দ্য সিটি হচ্ছে ‘নির্বাচন’। কোথায় নেই নির্বাচনের আলোচনাÑঘরে বাইরে, চায়ের স্টলে, পাড়া-মহল্লায়, মোড়ের আড্ডায়, হাটে-বাজারে সর্বত্রই এখন নির্বাচনী আলোচনা। কে হচ্ছেন নগরপিতা? প্রার্থীদের নিয়ে ভোটারদের মধ্যে চলছে চুলচেরা বিশ্লেষণ।
আর প্রার্থীরাই কী বসে আছেন, তা না। সকাল হলেই প্রার্থীরা ছুটছেন ভোটারদের দ্বারে দ্বারে। গভীর রাত অবধি করছেন গণসংযোগও। মাইকে বেজে উঠছে নির্বাচনী প্রচার-প্রচারণা। চলছে মিছিল-মিটিং। স্লোগানে স্লোগানে মুখরিত হয়ে উঠছে প্রতিটি পাড়া ও মহল্লা। শুধু কি তাই, ব্যানার- পোস্টার ও ফেস্টুনে ছেঁেয় গেছে নগরীর প্রতিটি রাস্তাঘাট ও অলি-গলি। নগরীর প্রতিদিনের চিত্র এখন এমনই। তাই দেখে খুব সহজে বলা যায়, প্রচার-প্রচারণায় সরগরম নির্বাচনী মাঠ। যেন নির্বাচনকে ঘিরে উৎসবের নগরীতে পরিণত হয়েছে।
সিটি করপোরেশন সূত্রে জানা গেছে, রাজশাহী সিটি নির্বাচনে মেয়র পদে পাঁচজন, কাউন্সিলর পদে ১৬০ জন ও সংরক্ষিত আসনে ৫২ জন প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন। এইসব প্রার্থীরা এখন প্রতিদিনই ছুটে বেড়াচ্ছেন নগরীর প্রতিটি মহল্লায়। বিশেষ করে মেয়র প্রার্থীরা নগরীর প্রতিটি ওয়ার্ড, প্রতিটি মহল্লা চোষে বেড়াচ্ছেন। শুধু মেয়র প্রার্থীরাই না। তাদের কর্মী-সমর্থকরাও দলবেঁধে ছুটে বেড়াচ্ছেন নগরীর প্রতিটি মহল্লায়। ভোটারদের কাছে চাইছেন ভোট। করছেন কুশল বিনিময়। তবে এইসব দলে নারী কর্মীদের উপস্থিতিই বেশি। শুধু কী কর্মী-সমর্থকরাই প্রচার-প্রচারণা চালাচ্ছেন তা না। বিভিন্ন সংগঠনও নিজের পছন্দের প্রার্থীর জন্য চালাচ্ছেন প্রচার-প্রচারণাও।
গতকাল বৃহস্পতিবার দুপুরে আরডিএ মার্কেটে গণসযোগ করেন আওয়ামী লীগ মনোনীত মেয়রপ্রার্থী এএইচএম খায়রুজ্জামান লিটন। সকালের দিকে নগরীর তেরোখাদিয়া, জিন্নাহনগর এলাকায় গণসংযোগ করেন বিএনপি মনোনীত মেয়র প্রার্থী মোসাদ্দেক হোসেন বুলবুল। এছাড়া অন্যান্য প্রার্থীরাও নগরীর বিভিন্নস্থানে গণসংযোগ করেছেন।
গতকাল বৃহস্পতিবার বুধপাড়ায় গিয়ে দেখা যায়, প্রতিটি মহল্লা প্রার্থীদের পোস্টার ও ফেস্টুনে ছেঁয়ে গেছে। দলবেঁধে প্রার্থীদের করতে দেখা গেছে গণসংযোগও। সকাল থেকেই রাত অবধি বাজছে মাইক। মাইকে প্রার্থীদের পক্ষে চালানো হচ্ছে প্রচারণা। রুহুল কুদ্দুস নামের এক ভোটার বলছিলেন, সারাদিন বাসায় কোনো না কোনো প্রার্থীর লোকজন আসছেই। হয় কাউন্সিল প্রার্থীর লোকজন, না হয় সংরক্ষিত আসনের প্রার্থীর লোকজন না হয় মেয়র প্রার্থীর লোকজন। কেউ না কেউ আসছেন ভোট চাইতে। আর ব্যানার পোস্টারে তো অলি-গলি ছেঁয়ে গেছে।
গণকপাড়া এলাকার বাসিন্দারাও বলছিলেন নগরীজুড়েই এখন টক অব দ্য সিটিতে রূপান্তরিত হয়ে গেছে নির্বাচন। কোথায় নেই নির্বাচনের কথা, অফিসে, চায়ের স্টলে, দোকানেÑসবখানেই নির্বাচনী আলাপ। নির্বাচনী প্রচার-প্রচারণায় সরগরম নগরী।