নেপালের বিমান দুর্ঘটনায় রাজশাহীর ছয়জনের চারজনের সন্ধান পাওয়া যায়নি

আপডেট: মার্চ ১৩, ২০১৮, ১২:৩৪ পূর্বাহ্ণ

নিজস্ব প্রতিবেদক


নিখোঁজ বিলকিস বানু ও হাসান ইমাম-সংগৃহীত

নেপালের কাঠমান্ডুতে বাংলাদেশি বেসরকারি বিমানসংস্থা ইউএস বাংলার বিমান দুর্ঘটনায় রাজশাহীর পাঁচজনের মধ্যে চার জনের সন্ধান পাওয়া যায়নি। তারা মারা গেছে না বেঁেচ আছে তা গতকাল সোমবার রাত সাড়ে ১০টার শেষ খবর পাওয়া পর্যন্ত জানা যায়নি।
নিখোঁজ চারজনের নাম হচ্ছে, ভূমি মন্ত্রণালয়ের অবসরপ্রাপ্ত যুগ্ম সচিব নগরীর সিরোইল এলাকার হাসান ইমাম (৬৫) ও তার স্ত্রী এইচ এন বিলকিস বানু (৬২)। এছাড়া ওই প্লেনে নগরীর উপশহর এলাকার নজরুল ইসলাম ও তার স্ত্রী আকতারা বেগম রয়েছে বলেও তার পরিবার জানিয়েছেন। নজরুল ইসলাম শিল্প ব্যাংকের অবসরপ্রাপ্ত প্রিন্সিপ্যাল অফিসার ছিলেন এবং তার স্ত্রী রাজশাহী মহিলা কলেজের শরীরচর্চা বিভাগের শিক্ষক ছিলেন। তাদের দুই মেয়ে কাঁকন ও কনক।
বিলকিস বানুর ছোট ভাই বরেন্দ্র কলেজের অধ্যক্ষ আলমগীর মালেক জানান, ১০ তারিখে তার বোন ও দুলাভাই রাজশাহী থেকে ঢাকায় যান। সেখানে তাদের বড় ভাই সড়ক ও জনপথ বিভাগের সাবেক প্রধান প্রকৌশলী এইচ এম আব্দুল মতিনের বাড়িতে থাকেন। পরে আজ (সোমবার) দুপুরে তাদের ওই প্লেনে তুলে দেন। তাদের সঙ্গে তাদের বন্ধু নজরুল ইসলামও ছিলেন। কিন্তু বিমান দুর্ঘটনার পর থেকে তাদের কোনো খোঁজ পাওয়া যাচ্ছে না।
নজরুল ইসলামের বড় মেয়ে নাজনিন আক্তার কাঁকন জানান, আমি ঢাকায় থাকি। এক সপ্তাহ আগে বাবা-মা রাজশাহী থেকে ঢাকায় আসেন। এসে আমার বাড়িতে ছিলেন। আজ দুপুরে হাসান আঙ্কেলদের সঙ্গে একই প্লেনে উঠেন বাবা-মা। দুপুরে প্লেনে উঠার পরও বাবা আমার সঙ্গে ফোনে কথা বলেছেন। অথচ এখন পর্যন্ত তাদের কোনো খোঁজ পাচ্ছিনা।
বিধ্বস্ত প্লেনে রাজশাহী প্রকৌশল ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক ইমরানা কবির হাসি ও তার স্বামী রকিবুল হাসানও ছিলেন। তবে তারা কাঠমান্ডুর হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছেন। ইমরানা কবির হাসি ২০১৭ সালের ৩০ এপ্রিল রাজশাহী প্রকৌশল ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের কম্পিউটার সাইন্স অ্যান্ড ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগে সহকারী অধ্যাপক হিসেবে যোগদান করেন। তার স্বামী রকিবুল হাসান ঢাকায় একটি বেসরকারি সফটওয়ার কম্পানিতে চাকরি করেন। ওই শিক্ষক নগরীর মুন্নাফের মোড় এলাকায় ভাড়া থাকতেন। তাদের বাড়ি টাঙ্গাইল জেলায়।
রাজশাহী প্রকৌশল ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য ড. রফিকুল আলম বেগ জানান, আমরা শুনেছি তারা নেপালের একটি হাসপাতালের আইসিউতে চিকিৎসাধীন রয়েছেন। এ-ও শুনতে পাচ্ছি, হাসির বাম সাইড পুড়ে গেছে। আমরা দ্রুত তার সুস্থতা কামনা করছি।

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ