পাকিস্তানিরা গণতন্ত্রের পথে হাঁটেনি

আপডেট: ডিসেম্বর ৭, ২০১৮, ১২:১৭ পূর্বাহ্ণ

নিজস্ব প্রতিবেদক


ছয় দফায় প্রতিরক্ষা ও পররাষ্ট্র বিষয় ছাড়া সব বিষয়ে বাঙালি প্রাদেশিক স্বায়ত্বশাসন চেয়েছিল। পশ্চিম পাকিস্তান যেমন পূর্ব পাকিস্তানের ওপর জগদ্দল পাথরের মতো চেপে বসতে চেয়েছে, ছয় দফায় বাঙালি সে রকম দাবি তুলেনি। পাকিস্তানের মূল সমস্যা ছিল গণতন্ত্রহীনতা। এ সমস্যা পাকিস্তানকে আজও তাড়িয়ে বেড়াচ্ছে। এই গণতন্ত্রহীনতার জন্যই পাকিস্তান আজও ব্যর্থ রাষ্ট্রের দায় থেকে মুক্ত হতে পারেনি।
আমরা ছয় দফার প্রথম দফাতেই বললাম, ‘ঐতিহাসিক লাহোর প্রস্তাবের ভিত্তিতে শাসনতন্ত্র রচনা করে পাকিস্তানকে একটি সত্যিকারের ফেডারেশনরূপে গড়তে হবে। তাতে পার্লামেন্টারি পদ্ধতির সরকার থাকবে। সব নির্বাচন সার্বজনীন প্রাপ্তবয়স্কের সরাসরি ভোটে অনুষ্ঠিত হবে। আইনসভাগুলোর সার্বভৌমত্ব থাকবে।’ অন্য পাঁচটি দফাতেও পাকিস্তানকে একটি সফল গণতান্ত্রিক ফেডারেশন হিসেবে গড়ে তোলার দাবি করা হয়।
কিন্তু পাকিস্তানিরা গণতন্ত্রের পথে হাঁটলো না। তারা স্বৈরাচারে পথেই পা বাড়ালো। তারা ছয় দফাকে পাকিস্তান ভাঙার ষড়যন্ত্র হিসেবে আখ্যায়িত করলো। দেশোদ্রোহিতার দায় চাপালো বাঙালির ওপর, শেখ মুজিবের ওপর। একবছর পরেই তারা শেখ মুজিবুর রহমান ও তার সহযোগীদের বিরুদ্ধে ভারতের সহায়তায় সরকার পতন আন্দোলনের সূচনা করার অভিযোগে মামলা দায়ের করে। কিন্তু এ হামলা-মামলাই হলো পাকিস্তানের কাল। কারণ, এই মামলা শেখ মুজিবকে জনপ্রিয়তার শীর্ষে নিয়ে গেলো। বাঙালির স্বায়ত্বশাসনের আন্দোলনকে স্বাধিকার আন্দোলনের দিকে ধাবিত করলো। সে মামলার তোড়ে আইয়ুব খানের গদিও নড়বড়ে অবস্থা।
শেষে আইয়ুব খান বাধ্য হয়ে ১৯৬৯ সালে রাওয়ালপিন্ডিতে এক গোলটেবিলের আয়োজন করেন। লৌহমানব আইয়ুবের গদির গরম ঠা-া হয়ে গেলো। তিনি আগরতলা ষড়যন্ত্র মামলা প্রত্যাহার করে শেখ মুজিবকে রাওয়ালপিন্ডিতে দাওয়াত দিলেন। সে আলোচনা ব্যর্থ হয়। অবশেষে আইয়ুব দশকের সমাপ্তি ঘটে ও তিনি পদত্যাগ করতে বাধ্য হন। আইয়ুব খান বিদায় বেলাতেও সামরিক সমাধানের পক্ষে ওকালতি করতে থাকেন। তিনি বলেন, ‘ÔI am left with no option but to step aside and leave it to the defence forces of Pakistan, which today represent the only effective and legal instrument to take over full control of the affairs of the country’।
পাকিস্তানি শাসকচক্র যে কতোটা সামরিক-পূজারি ছিলেন তা আইয়ুবের বিদায়বেলায় বক্তব্য থেকেও পরিষ্কার। তিনি সামরিক শক্তিকেই পাকিস্তানের শেষ রক্ষাকর্তা হিসেবে বিবেচনা করেছেন। দেশের রাজনৈতিক সংকট নিরসনে সামরিক শক্তিকেই তিনি আইনগত ও একমাত্র বৈধ কর্তৃপক্ষ মনে করছেন। শুধু তাই নয়, একমাত্র সামরিক কর্তৃপক্ষই কার্যকর ব্যবস্থা গ্রহণ করতে পারে বলে তার বিশ্বাস। এই বিশ্বাসের পথ ধরেই তিনি ইয়াহিয়ার কাছে ক্ষমতা হস্তান্তর করে দৃশ্যপট থেকে বিদায় নেন।
(চলবে)