পুঠিয়ায় গ্যাস সঞ্চালন লাইনে ফুটো তিনদিন পরে সংস্কার আজ

আপডেট: অক্টোবর ১৩, ২০১৯, ১:১০ পূর্বাহ্ণ

নিজস্ব প্রতিবেদক


রাজশাহীর পুঠিয়ায় গ্যাস সঞ্চালন লাইনে ছিদ্র দেখা দিয়েছে। ওই ছিদ্র দিয়ে অনবরত গ্যাস বের হচ্ছে। তিনদিন পরে তা সংস্কারের কাজ আজ শুরু হচ্ছে। গ্যাস ট্রান্সমিশন কোম্পানি লিমিটেডের (জিটিসিএল) কর্তৃপক্ষ বলছেন, আজ রোববার সকাল সাতটা থেকেই শ্রমিকদের কাজে লাগিয়ে দেয়া হবে। ইতোমধ্যেই ছিদ্র সারানোর জন্য ঢাকা থেকে জনবল আনা হয়েছে।
স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, জিটিসিএল’র পক্ষ থেকে সেখানে বসানো হয়েছে পাহারা। আর দুর্ঘটনা এড়াতে কমিয়ে দেয়া হয়েছে গ্যাসের চাপও। ফলে নগরীতে গ্যাস সরবরাহ অনেকটাই কমে গেছে। অগ্নিসংযোগের আশঙ্কায় আশেপাশের গাছপালা ও জঙ্গল কেটে পরিষ্কার করা হয়েছে।
পুঠিয়া উপজেলার মাড়িয়া গ্রামের কাছে গ্যাস সঞ্চালন লাইনে ছিদ দেখা দিয়েছে। ওই এলাকা দিয়ে সিরাজগঞ্জ থেকে সঞ্চালন লাইনে গ্যাস রাজশাহী শহরে নিয়ে আসা হয়েছে। গত বুধবার মাড়িয়া গ্রামের এক গৃহবধূ প্রথম এই গ্যাস বের হতে দেখে অন্যদের জানান। পরে ফায়ার সার্ভিসকে খবর দেয়া হলে তারা জিটিসিএল কোম্পানির লোকজনদের জানায়।
গ্রামের যুবক ভুলু জানান, পাশের বাড়ির একজন নারী (সম্পর্কে তার মামী) প্রথম গ্যাস বের হতে দেখে তাকে ডাক দেন। তিনি এসে দেখেন মাটির ভেতর থেকে গ্যাস বের হচ্ছে। তার গন্ধ পাওয়া যাচ্ছে। জায়গাটায় ধোঁয়া ধোঁয়া মনে হচ্ছে। সেখানে এলাকার আরও লোকজন জড়ো হয়। লোকজনের মধ্যে আতঙ্ক ছড়িয়ে পড়ে। ফায়ার সার্ভিসকে খবর দেয়া হয়। তারা আসেন। কোম্পানির লোকজনও আসেন।
নগরীর ঘোড়ামারার আতিকুর রহমান বলেন, কয়েকদিন ধরে গ্যাসের চাপ কম। রান্না করতে সময় লাগছে। তবে খুব একটা সমস্যা হচ্ছে না।
জিটিসিএল’র একটি সূত্র জানিয়েছে, রাজশাহীতে সঞ্চালন লাইনে গ্যাসের চাপ হচ্ছে ১ হাজার পাউন্ড পার স্কয়ার ইঞ্চি (পিএসআই)। যাতে বেশি গ্যাস বের হতে না পারে সে জন্য গ্যাসের চাপ কমিয়ে ১০০ পিএসআই করা হয়েছে। এতে রাজশাহীতে গ্যাসের সরবরাহ কমে গেছে। তবে সেটা খুব বেশি নয়।
টিজিসিএলের রাজশাহীর সহকারী ব্যবস্থাপক একেএম আনিসুজ্জামান বলেন, ফুটো বন্ধের জন্য ঢাকা থেকে লোক এসেছে। ২০ জন শ্রমিকও ঠিক করা হয়েছে। আজ রোববার সকাল সাতটা থেকে মাটি খোঁড়ার কাজ শুরু হবে। আজ সারাদিন নগরীর উপকণ্ঠ খড়খড়ি এলাকায় গ্যাসের চাপ কখনো ৮৫ থেকে ৯৫ বা ১০০ পিএসআই থাকবে।

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ