পুরো ফিট হয়েই ফিরছেন তামিম

আপডেট: নভেম্বর ১৪, ২০১৭, ১২:৩৫ পূর্বাহ্ণ

সোনার দেশ ডেস্ক


মাঠের বাইরে বসে খেলা দেখছিলেন আর গুনছিলেন দিন। দলের সঙ্গে অনুশীলন করছিলেন, কিন্তু ম্যাচ খেলায় ছিল বাধা। অবশেষে ফুরোলো তামিম ইকবাল ও কুমিল্লা ভিক্টোরিয়ান্সের অপেক্ষার প্রহর। মঙ্গলবার চিটাগং ভাইকিংসের বিপক্ষে ম্যাচ দিয়ে মাঠে ফিরছেন তামিম ইকবাল।
ঊরুর চোটে দক্ষিণ আফ্রিকা সফর থেকে আগেই দেশে ফিরেছিলেন তামিম। বিপিএলের শুরুটায় বাইরে ছিলেন সেই চোটের কারণেই। খেলতে পারেননি তিনটি ম্যাচ। ফিরছেন কুমিল্লার চতুর্থ ম্যাচ দিয়ে।
দক্ষিণ আফ্রিকা থেকে দেশে ফিরে বলেছিলেন, ন্যূনতম ঝুঁকি নিয়েও বিপিএল খেলবেন না, যেহেতু সামনেই জাতীয় দলের অনেক ম্যাচ আছে। বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকমকে এই ওপেনার জানালেন, পুরোপুরি ফিট হয়েই তিনি মানছেন মাঠে।
“এখন আর কোনো সমস্যা নেই, পুরো ফিট। চাইলে আগের ম্যাচটিও খেলতে পারতাম। কিন্তু যেহেতু সামান্য ঝুঁকিও নিতে চাইনি, তাই খেলিনি। আরেকটু সময় নিয়েছি। জাতীয় দলের ফিজিওর সঙ্গে নিয়মিত যোগাযোগ হয়েছে। তার পরামর্শমতোই সব করেছি। তার কাছ থেকে সবুজ সঙ্কেত পেয়েই নামছি।”
ম্যাচ না খেললেও শুরু থেকে কুমিল্লা দলের সঙ্গেই ছিলেন তামিম। ব্যাটিং অনুশীলনে যেহেতু বাধা ছিল না, নিয়মিত ব্যাটিংও করেছেন। তার সমস্যা ছিল মূলত দৌড়ানোয়। সেটি এখন কেটে গেছে।
ঊরুর এই চোট তামিম পেয়েছিলেন দক্ষিণ আফ্রিকা সফরে প্রথম প্রস্তুতি ম্যাচেই। চোট পুরো সেরে ওঠার আগেই খেলেছেন টেস্ট ম্যাচ। যেটির খেসারত দিয়ে খেলতে পারেননি পরের টেস্ট ও প্রথম ওয়ানডেতে। দ্বিতীয় ওয়ানডেতে মাঠে নেমে আবার চোট পান পুরোনো জায়গায়। সেই চোট তাকে ধরিয়ে দিয়েছে দেশে ফেরার টিকিট। এজন্যই বিপিএলে মাঠে নামার আগে ছিলেন শতভাগ সাবধানী।
তামিম না থাকায় কুমিল্লা দলে সৃষ্টি হয়েছিল নেতৃত্ব নিয়ে সঙ্কট। দলের কর্ণধাররা বিদেশি কাউকে দিতে চাননি নেতৃত্ব। দেশের সিনিয়র ক্রিকেটার ছিলেন ইমরুল কায়েস। কিন্তু তিনি খুব একটা আগ্রহী ছিলেন না। পরে শেষ মুহূর্তে নেতৃত্ব দেওয়া হয় আফগান অলরাউন্ডার মোহাম্মদ নবিকে।
তামিম ফেরায় তিনিই দেবেন নেতৃত্ব। তবে সেটি ফেরার ম্যাচ থেকেই নাও হতে পারে। থিতু হওয়ার জন্য তামিমকে দু-একটি ম্যাচ সময় দিতে পারে টিম ম্যানেজমেন্ট। আবার তামিম চাইলে, হতে পারে শুরুর ম্যাচ থেকেও। তামিমের অনুপস্থিতিতেও তিন ম্যাচের দুটি জিতে কুমিল্লা আছে পয়েন্ট টেবিলের তিন নম্বরে।-বিডিনিউজ