পেলের বিশ্বাস নেইমারে মুক্তি মিলবে ব্রাজিলের

আপডেট: এপ্রিল ১৭, ২০১৮, ১২:৩০ পূর্বাহ্ণ

সোনার দেশ ডেস্ক


চার বছর আগের ‘মিনেইরো ট্র্যাজেডি’ থেকে ব্রাজিল মুক্তি পাবে। ‘দ্বিতীয় সুযোগ’ কাজে লাগিয়ে নেইমার ব্রাজিলকে এনে দেবেন ষষ্ঠ শিরোপা- রাশিয়া বিশ্বকাপের আগে পেলের মন বলছে এটা।
২০১৪ সালের বিশ্বকাপ সেমিফাইনালে জার্মানির কাছে ৭-১ গোলে উড়ে গিয়েছিল ব্রাজিল। কোয়ার্টার ফাইনালে চোট পেয়ে ছিটকে যাওয়া নেইমার রাজ্যের হতাশায় ডুবেছিলেন। থিয়াগো সিলভাদের সান্ত¡না দেওয়ার ভাষা পাননি খুঁজে। এবার সেই দুঃসহ অভিজ্ঞতা ভোলানোর সুযোগ পাচ্ছেন বিশ্বের সবচেয়ে দামি ফুটবলার। পেলের বিশ্বাস, রাশিয়া বিশ্বকাপে ১৬ বছরের শিরোপা খরা কাটাবে নেইমারে অনুপ্রাণিত ব্রাজিল।
তিনবারের বিশ্ব জয়ী অধিনায়ক পেলের আশা, বিশ্ব মঞ্চে গৌরব অর্জনে নেইমার ‘সেরা সুযোগ’ কাজে লাগাবেন। ওমনিস্পোর্টকে দেওয়া সাক্ষাৎকারে ব্রাজিলিয়ান ফরোয়ার্ডকে নিয়ে আস্থা প্রকাশ করলেন তিনি, ‘সে দ্বিতীয় সুযোগ পাচ্ছে। দুর্ভাগ্যবশত ব্রাজিলে যেটা ঘটেছে, সেটা হলো বিপর্যয়।’
ইনজুরির সঙ্গে লড়তে থাকা নেইমার রাশিয়ায় প্রথম ম্যাচের আগে ফিট হবেন বিশ্বাস পেলের, ‘ব্রাজিলে শেষ বিশ্বকাপে সে ইনজুরিতে পড়েছিল এবং ব্রাজিল হেরে গিয়েছিল। আমি মনে করি এবার তার সামনে দারুণ সুযোগ। সে একজন ভালো খেলোয়াড়। দেখা যাক, ব্রাজিলকে সে বিশ্বকাপ জেতাতে সাহায্য করতে পারে কিনা।’
বিশ্বের প্রতিভাবান খেলোয়াড়দের নিয়ে সাজানো ব্রাজিলকে নিয়ে এবার খুব আশাবাদী পেলে। ১৭ জুন সুইজারল্যান্ডের বিপক্ষে প্রথম গ্রুপ ম্যাচের আগে তিতে দলকে আরও শক্তিশালী করে তৈরি করবেন আশা তার, ‘প্রত্যেকে জানে ইউরোপের সেরা প্রতিভাবান খেলোয়াড়রা আছে ব্রাজিলে। আমি মনে করি এই দল ঠিকভাবে তৈরি করার জন্য অল্প সময় পাচ্ছেন আমাদের কোচ তিতে। আর তিন মাস আাছে দল বানানোর জন্য। তিতে ভালো একজন কোচ, কিন্তু তিনি এখনও দল নিয়ে একসঙ্গে কাজ করার সময় পাননি। তাদের জন্য সময় কম।’
তিনি আরও যোগ করেন, ‘আমাদের দারুণ সব খেলোয়াড় আছে। কোনও সন্দেহ নেই যে বিশ্বকাপ ফাইনালে খেলার মতো দল ব্রাজিলের আছে।’ বিশ্বকাপে আশ্চর্যজনক কিছু ঘটতে পারে মনে করছেন পেলে। বাছাইয়ে ইতালির ব্যর্থতাকে উদাহরণ দিলেন ৭৭ বছর বয়সী, ‘সবসময় আমরা বড় দলগুলোর (ফেভারিট হিসেবে) নাম বলি; যেমন আর্জেন্টিনা, ইতালি, ইংল্যান্ড, স্পেন। কিন্তু ফুটবল হচ্ছে বিস্ময়ে ভরা একটি বাক্স এবং কোনও কিছু বলা কঠিন। এই বিশ্বকাপে অনেক দল সমানে সমান। আপনি একটি বড় দলের নাম বলতে পারবেন না। ইতালি বাদ পড়ল। ফুটবলের জন্য এটা ভালো নয়। দুই-তিনটি সেরা দল উঠতে পারেনি। আগেও বলেছি, ফুটবল সবসময় বিস্ময়ে ভরা এক বাক্স।’
এই বছর পেলের প্রথম বিশ্বকাপ জয়ের হীরক জয়ন্তী। ৬০ বছর আগে প্রথম বিশ্বকাপ জিতেছিলেন তিনি। মাত্র ১৭ বছর বয়সে দলে ডাক পাওয়ার রোমাঞ্চ এখনও শিহরিত করে সাবেক সান্তোস ফরোয়ার্ডকে, ‘আমি চারটি বিশ্বকাপ খেলেছিলাম। প্রথমটা সবসময় ছিল বিশেষ কিছু। আমি প্রত্যাশা করিনি, কারণ আমি ছিলাম মাত্র ১৭ বছরের। আমার বাবাও ছিলেন ফুটবল খেলোয়াড়। কাজ শেষে তিনি যখন বাসায় এসে বললেন ‘শোন, তুমি ব্রাজিলের জাতীয় দলে নির্বাচিত হয়েছ।’ আমি বললাম ‘বাবা, মজা করো না।’ তিনি বললেন ‘না, এটা মজা নয়, সত্যি।’ আমি কাঁদতে শুরু করলাম, কারণ এটা ছিল আমার জন্য বড় বিস্ময়ের।’ ফুটবল যে বিস্ময় ভরা একটা বাক্স! গোল ডটকম, বাংলা ট্রিবিউন