প্রতিমন্ত্রীর পদমর্যাদা রাজশাহী উন্নয়নে সহায়ক হবে : লিটন

আপডেট: জুন ১, ২০১৯, ১:০৭ পূর্বাহ্ণ

নিজস্ব প্রতিবেদক


ফুলের মালা গলায় পরিয়ে সিটি মেয়র এএইচএম খায়রুজ্জামান লিটনকে সংবর্ধিত করেন নগর আওয়ামী লীগের নেতৃবৃন্দ-সোনার দেশ

প্রতিমন্ত্রী হিসেবে পদমর্যাদা পেয়ে সিটি মেয়র এএইচএম খায়রুজ্জামান লিটন বলেছেন, তিনি এই মর্যাদা কাজে লাগিয়ে রাজশাহীর উন্নয়নে কাজ করবেন। তার কাছে প্রতিমন্ত্রীর পদমর্যাদা নিয়ে শুধু গাড়িতে জাতীয় পতাকা ওড়ানোটাই বড় কথা নয়। পদমর্যাদা দিয়ে দেশের পিছিয়ে পড়া জেলা রাজশাহীর যে উন্নয়ন করা যাবে সেটাই বড় কথা।
গতকাল শুক্রবার বিকেলে সাংবাদিকদের সঙ্গে মতবিনিময়ের সময় তিনি এসব কথা বলেন। নগরীর কুমারপাড়ায় অবস্থিত নগর আওয়ামী লীগের দলীয় কার্যালয়ে এ মতবিনিময় সভা অনুষ্ঠিত হয়।
মেয়র লিটন বলেন, তিনি রাজশাহী শহরকে সম্প্রসারণ করতে চান। অন্তত ৩০০ বর্গকিলোমিটারের একটা সিটি করপোরেশন এলাকা তিনি গড়ে তুলতে চান। সেই লক্ষ্য নিয়েই কাজ করছেন।
খায়রুজ্জামান লিটন বলেন, ২০০৮ সালে যখন প্রথমবারের মতো মেয়র হিসেবে নির্বাচিত হয়েছিলাম তখন অনেক কাজ শুরু করেছিলাম। কিন্তু পরেরবার যিনি মেয়র হিসেবে অনুমোদন পেলেন তিনি কাজ শুরু করতে পারেননি। সাত মাস হলো আমি দ্বিতীয়বারের মতো মেয়র হিসেবে দায়িত্ব নিয়েছি। দীর্ঘ দিন আটকে থাকা কাজগুলো নিয়ে নাড়াচাড়া করছি। কিছু কাজ শুরুও হয়েছে। দ্রুতই উন্নয়ন কর্মকাণ্ড বাস্তবায়িত হচ্ছে। আমি ৫০ বছরের উন্নয়ন পরিকল্পনা নিয়ে এগিয়ে যাচ্ছি।
প্রতিমন্ত্রী পদমর্যাদা পাওয়ায় লিটন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার প্রতি কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করে বলেন, প্রধানমন্ত্রী এই মর্যাদা দিয়ে শুধু আমাকেই নয়, গোটা রাজশাহীর মানুষকে সম্মানিত করেছেন। তাকে ধন্যবাদ ও কৃতজ্ঞতা জানাই।
এর আগে নেতাকর্মীসহ সর্বস্তরের মানুষের ফুল আর ভালোবাসায় সিক্ত হন সিটি মেয়র লিটন। জাতীয় চার নেতার অন্যতম শহীদ এএইচএম কামারুজ্জামানের সুযোগ্য সন্তান মেয়র খায়রুজ্জামান লিটন প্রতিমন্ত্রীর পদমর্যাদা পাওয়ায় খুশি-আনন্দিত ও উচ্ছ্বসিত পুরো রাজশাহীবাসী। তাইতো দলে দলে আসছেন, আর প্রিয় নেতা মেয়র খায়রুজ্জামান লিটনকে ফুলেল শুভেচ্ছা জানাচ্ছেন। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার প্রতি কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করছেন সবাই।
গতকাল শুক্রবার বিকেলে রাজশাহী মহানগর আওয়ামী লীগের কার্যালয়ে মেয়র খায়রুজ্জামান লিটনকে সংবর্ধনা প্রদান অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়। আয়োজনস্থলে মেয়র পৌঁছানোর আগেই জমায়েত হয় অগণিত নেতাকর্মীসহ সাধারণ মানুষ। মেয়র খায়রুজ্জামান লিটন পৌঁছালে উচ্ছ্বাস প্রকাশ করেন সমাগত মানুষেরা। বরণ করেন নেন প্রিয় নেতাকে। এরপর মহানগর আওয়ামী লীগের কার্যালয়ে ফুলেল শুভেচ্ছায় সিক্ত হন মেয়র খায়রুজ্জামান লিটন। প্রথমে মহানগর আওয়ামী লীগের পক্ষ থেকে মেয়র লিটনকে বড় ফুলের মালা পরিয়ে দেন মেয়রপত্ন ও মহানগর আওয়ামী লীগের সিনিয়র সহ-সভাপতি বিশিষ্ট সমাজসেবী শাহীন আকতার রেনী, সাধারণ সম্পাদক ডাবলু সরকারসহ অন্যান্য নেতৃবৃন্দ। এরপর মতিহার, বোয়ালিয়া, শাহ মখদুম, ও রাজপাড়া থানা আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীরা ফুলেল শুভেচ্ছা জানান। এরপর মহানগরী ৩০টি ওয়ার্ডের নেতাকর্মী, মহানগর যুবলীগ, ছাত্রলীগ, স্বেচ্ছাসেবকলীগ, মহিলা আওয়ামী লীগ, মহিলা যুবলীগ, রাজশাহী মহানগর শ্রমিকলীগ, রেলওয়ে শ্রমিকলীগ, কৃষকলীগ, তাঁতীলীগ, রাজশাহী বিশ^বিদ্যালয় ছাত্রলীগ, রাজশাহী কলেজ ছাত্রলীগ, রাজশাহী চেম্বার অব কমার্স অ্যান্ড ইন্ডাস্ট্রি এর সভাপতি ও পরিচালকবৃন্দ, বঙ্গবন্ধু পরিষদ, ফিল্ম সোসাইটি, হিন্দু বৌদ্ধ-খ্রিস্ট্রান ঐক্য পরিষদসহ নানা সংগঠনের নেতাকর্মীসহ সর্বস্তরের জনসাধারণ।
এ সময় উপস্থিত ছিলেন মহানগর আওয়ামী লীগের সিনিয়র সহ-সভাপতি বিশিষ্ট সমাজসেবী শাহীন আকতার রেনী, সাধারণ সম্পাদক ডাবলু সরকার, সহ-সভাপতি মুক্তিযোদ্ধা মীর ইকবাল, মুক্তিযোদ্ধা মো. নওশের আলী, মুক্তিযোদ্ধা মোহাম্মদ আলী কামাল, সৈয়দ শাহাদত হোসেন, অধ্যক্ষ শফিকুর রহমান বাদশা, নিঘাত পারভিন, মোস্তাক হোসেন, রেজাউল ইসলাম বাবুল, নাঈমুল হুদা রানাসহ মহানগর আওয়ামী লীগের অন্যান্য নেতৃবৃন্দ, সকল থানা ও ওয়ার্ড আওয়ামী লীগ, সহযোগী ও অঙ্গ সংগঠনের নেতাকর্মীরা।
২০১৮ সালের ৩০ জুলাই নির্বাচনে বিপুল ভোটে জয়লাভ করে দ্বিতীয়বারের মতো মেয়র নির্বাচিত হন মহান মুক্তিযদ্ধের অন্যতম সংগঠক জাতীয় চার নেতার অন্যতম শহিদ এএইচএম কামারুজ্জামানের সুযোগ্য সন্তান আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় কমিটির অন্যতম সদস্য ও রাজশাহী মহানগরের সভাপতি এএইচএম খায়রুজ্জামান লিটন। গত মঙ্গলবার মেয়র খায়রুজ্জামান লিটনকে প্রতিমন্ত্রীর পদমর্যাদা প্রদান করে সরকার। সরকারের সিদ্ধান্ত অনুযায়ী, স্বপদে অধিষ্ঠিত থাকাকালীন মেয়র এএইচএম খায়রুজ্জামান লিটন প্রতিমন্ত্রীর পদমর্যাদা, বেতন-ভাতা ও আনুষঙ্গিক অন্যান্য সুযোগ-সুবিধা প্রাপ্ত হবেন। প্রতিমন্ত্রীর পদমর্যাদা পাওয়ায় মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার প্রতি কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করেন মেয়র খায়রুজ্জামান লিটন। এর আগে তিনি ২০০৮ সালে প্রথম রাসিকের মেয়র নির্বাচিত হন। সে সময় তিনি প্রতিমন্ত্রীর পদমর্যাদা পান।

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ