প্রধানমন্ত্রী রাজশাহীর উন্নয়নে অকাতরে টাকা দিয়েছেন

আপডেট: ফেব্রুয়ারি ১৪, ২০১৮, ১২:৩৫ পূর্বাহ্ণ

নিজস্ব প্রতিবেদক


নগরীর সামবেশে প্রধান অতিথির বক্তব্য দেন আ’লীগের প্রেসিডিয়াম সদস্য ও স্বাস্থ্যমন্ত্রী মোহাম্মদ নাসিম। সভাপতিত্ব করেন নগর আ’লীগের সভঅপতি ও সাবেক মেয়র এএইচএম খায়রুজ্জামান লিটন-সোনার দেশ

‘ভুল হলে মাফ করে দিয়েন। ভুল স্বীকার করে জনগণের কাছে যান, নৌকার পক্ষে ভোট কামনা করেন। আগামী নির্বাচন হবে শেখ হাসিনার নেতৃত্বে। শেখ হাসিনা রাজশাহীর উন্নয়নের জন্য অকাতরে টাকা দিয়েছেন। রাজশাহীর মানুষ যা চেয়েছে তাই দিয়েছেন। রাজশাহীর মানুষ গত সিটি নির্বাচনে ভোট দেয়নি। প্রধানমন্ত্রী তার পরেও রাজশাহীতে মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয় দিয়েছেন। রাজশাহী মেডিকেল কলেজে দশ তলা ভবন নির্মাণের পরিকল্পনা রয়েছে। ভোট না দিলে শেখ হাসিনার কাছে তা নির্মাণের টাকা চাওয়া যাবে না। তাই আগামী নির্বাচনে নৌকাকে ভোট দিতে হবে রাজশাহীবাসীকে।’
গতকাল সাহেববাজার বড়মসজিদ চত্বরে আয়োজিত জনসভায় এসব কথা বলেন, আওয়ামী লীগ প্রেসিডিয়াম সদস্য ও স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ মন্ত্রী মোহাম্মদ নাসিম। মহানগর আওয়ামী লীগ সভাপতি এএইচএম খায়রুজ্জামান লিটনের সভাপতিত্বে সভায় বক্তব্য দেন, আওয়ামী লীগ জাতীয় পরিষদ সদস্য নূরুল ইসলাম ঠান্ডু, জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আসাদুজ্জামান। অনুষ্ঠান সঞ্চলনা করেন মহানগর আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক ডাবলু সরকার।
জনসভায় মোহাম্মদ নাসিম আরো বলেন, ২০১৪ সালের নির্বাচনে বিএনপি জামায়াত জোট সারাদেশে ৫০০ স্কুল পুড়িয়েছে। তারা বাস পুড়িয়েছে। এর প্রতিদান তারা পেয়েছে। তারা বলেছিল এই সরকার একদিনও থাকতে পারবে না। বর্তমান সরকার পাঁচ বছর টিকে গেছে। তারা ১৫ ফেব্রুয়ারি নির্বাচনের পরে এক দিনও থাকতে পারে নি।
রাজশাহীর মানুষকে বিগত সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনের কথা স্মরণ করিয়ে দিয়ে তিনি বলেন, নেতৃত্ব ছাড়া উন্নয়ন সম্ভব নয়। তা আপনারা বুঝতে পেরেছেন। একবার ভুল করলে সান্ত¦না পাওয়া যায়। বারবার ভুল করলে সান্ত¦না পাওয়ার কিছু থাকে না। শেখ হাসিনা বাংলা ভাইকে শায়েস্তা করেছেন। রাজশাহী এক সময় জঙ্গির শহর ছিল, এখন এটি শান্তির শহর। আমরা নিরপেক্ষ নির্বাচন করি তা সারা বিশ্ব জানে। কেয়ারটেকার সরকার এখন মৃত। তার কোনো প্রয়োজন নেই।
জেলে বন্দি খালেদা জিয়ার উদ্দেশ্যে তিনি বলেন, শেখ হাসিনাকে মারার জন্য ২১ আগস্ট বোমা হামলা চালান। আইভি রহমানসহ ২৪ জন মারা যায় সে হামলাতে। সে বিচার তিনি করেন নি। বঙ্গবন্ধু হত্যার বিচার আটকে রেখেছেন। এখন তিনি ইনসাফ চান। যে মামলায় তার বিচার হয়েছে তা দায়ের করে তত্ত্বাবধায়ক সরকার।
সভাপতির বক্তব্যে মহানগর আওয়ামী লীগ সভাপতি ও সাবেক মেয়র এএইচএম খায়রুজ্জামান লিটন বলেন, মেয়র থাকা কালে পৌনে পাঁচ বছরে রাজশাহীর উন্নয়নের প্রায় ৮০০ কোটি টাকা পাওয়া গেছে। পুরো মেয়াদে তা খরচ হয়নি। এই টাকা এখনো রাজশাহীর উন্নয়নে ব্যয় হচ্ছে। সেই উন্নয়ন ধারা ফিরিয়ে আনতে নৌকায় ভোট দিন।
জনসভায় উপস্থিত ছিলেন, সংসদ সদস্য আখতার জাহান, সাবেক মন্ত্রী জিনাতুন নেসা তালুকদার, মহানগর সহসভাপতি শাহীন আক্তার রেনী, অধ্যক্ষ শফিকুর রহমান বাদশা, মীর ইকবাল, মহিলা বিষয়ক সম্পাদক ইয়াসমিন রেজা ফেন্সি প্রমুখ।

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ