ফুটবলকে বিদায় বললেন শোয়াইনস্টাইগার

আপডেট: অক্টোবর ৯, ২০১৯, ৯:৩৬ অপরাহ্ণ

সোনার দেশ ডেস্ক


পেশাদারি ক্যারিয়ারে বাস্টিয়ান শোয়াইনস্টাইগারের সবচেয়ে সুন্দর মুহূর্ত সম্ভবত এটাই-সংগৃহীত

ক্লাব ফুটবলে সম্ভাব্য সব শিরোপাই জেতা হয়েছে তার। একজন ফুটবলারের জীবনে সবচেয়ে আকাঙ্ক্ষিত বিশ্বকাপ ট্রফিটাও ছোঁয়া হয়েছে। প্রাপ্তি ও অর্জনে তৃপ্তির ঢেকুর তুলে পেশাদারি ফুটবল থেকে এবার বিদায়ের ঘোষণা দিলেন বাস্টিয়ান শোয়াইনস্টাইগার। চলতি মৌসুম শেষে ফুটবল ক্যারিয়ারের ইতি টেনে দেবেন ৩৫ বছর বয়সী মিডফিল্ডার।
ম্যানচেস্টার ইউনাইটেড ছাড়ার পর শোয়াইনস্টাইগার পাড়ি জমিয়েছিলেন মেজর লিগ সকারে। যুক্তরাষ্ট্রের ফ্টুবল প্রতিযোগিতায় শিকাগো ফায়ারের জার্সিতে পেশাদারি ক্যারিয়ারের ইতি টানছেন তিনি। মেজর লিগ সকারের এবারের মৌসুম শেষে বুট তুলে রাখার সিদ্ধান্ত নিয়েছেন সাবেক জার্মান মিডফিল্ডার। মঙ্গলবার সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম টুইটারে দিয়েছেন অবসরের ঘোষণা।
শৈশবের ক্লাব বায়ার্ন মিউনিখে সাফল্যের বৃষ্টি ঝরিয়ে ২০১৫ সালে যোগ দিয়েছিলেন তিনি ম্যানইউয়ে। প্রিমিয়ার লিগে ব্যর্থতার দুই মৌসুম কাটিয়ে ২০১৭ সালে নাম লেখান শিকাগোয়। মেজর লিগ সকারেই হতে যাচ্ছে শোয়াইনস্টাইগারের ফুটবল ক্যারিয়ারের শেষ মৌসুম।
ম্যানইউয়ের খারাপ সময়ে যোগ দিয়েছিলেন তিনি ওল্ড ট্র্যাফোর্ডে। যদিও ইংলিশ ক্লাবটিকে পথে ফেরানোর মিশনে কিছুই করতে পারেনি শোয়াইনস্টাইগার। তবে বায়ার্নের কিংবদন্তি হিসেবে ফুটবলে তার নাম থেকে যাবে যুগ যুগান্তর। ব্যাভারিয়ানদের যুব দল পেরিয়ে মূল দলে সুযোগ পেয়ে এই মিডফিল্ডার খেলেছেন ৫০০’র বেশি প্রতিযোগিতামূলক ম্যাচ। আট বুন্দেসলিগার সঙ্গে আছে চ্যাম্পিয়নস লিগের সাফল্য।
২০০৪ সালে জার্মানির জার্সিতে শুরু হওয়া তার পথচলা থামে ২০১৬ সালে। এক যুগের জাতীয় দলের ক্যারিয়ারে ১২১ ম্যাচে নামের পাশে যোগ করেছেন ২৪ গোল। ক্যারিয়ারের সবচেয়ে সুন্দর মুহূর্তও এসেছে জার্মানির হয়ে ২০১৪ সালে, যখন ইওয়াখিম ল্যোভের অধীনে জার্মানি বিশ্বকাপ জিতে ফিরে ব্রাজিলের মাটি থেকে।
দারুণ সব স্মৃতি সঙ্গী করে ফুটবল থেকে বিদায় নিচ্ছেন ৩৫ বছর বয়সী এই মিডফিল্ডার। মঙ্গলবার সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে শোয়াইনস্টাইগার দিয়েছেন অবসরের ঘোষণা, ‘প্রিয় ভক্ত, সময়টা চলে এসেছে, এই মৌসুম শেষে আমি আমার ফুটবল ক্যারিয়ার শেষ করছি। ধন্যবাদ জানাতে চাই আমার দল বায়ার্ন মিউনিখ, ম্যানচেস্টার ইউনাইটেড, শিকাগো ফায়ার ও জার্মান জাতীয় দলকে। তোমাদের জন্যই এই অবিশ্বাস্য সময়টা সম্ভব হয়েছে। একই সঙ্গে আমার স্ত্রী আনা ইভানোভিচ ও পরিবারকে ধন্যবাদ জানাচ্ছি তাদের সমর্থনের জন্য।’
পেশাদারি ক্যারিয়ারের ইতি টানলেও ফুটবলের সঙ্গে থাকতে চান শোয়াইনস্টাইগার। জীবনের নতুন চ্যালেঞ্জের অপেক্ষা তিনি, ‘একজন খেলোয়াড় হিসেবে বিদায় বলতে গিয়ে আমি কিছুটা স্মৃতিকাতর হয়ে পড়ছি, তবে আমি এখন সামনের উত্তেজনাকর চ্যালেঞ্জের দিকে তাকিয়ে আছি। ফুটবলের প্রতি বিশ্বাসটা রাখতে চাই।’
স্বাভাবিকভাবেই শোয়াইনস্টাইগারের অবসরে প্রথম শুভকামনা এসেছে তার সাবেক ক্লাব বায়ার্ন থেকে। নিজেদের অফিসিয়াল টুইটারে জার্মান ক্লাবটি লিখেছে, ‘সবকিছুর জন্য ধন্যবাদ, বাস্টি!’ গোল ডটকম