বইয়ের দোকানে বাকি রেখে যাওয়া ৭টাকা ২২ বছর পর ফেরত

আপডেট: ডিসেম্বর ৩১, ২০১৬, ১২:২২ পূর্বাহ্ণ

সেলিম সরদার, ঈশ্বরদী প্রতিনিধি


২২ বছর আগে বই কিনে বাকি রাখা ৭ টাকা ফেরত দিলেন এক চিকিৎসক। গতকাল শুক্রবার ঈশ্বরদীতে এ ঘটনা ঘটে।
জানা যায়, ১৯৯৪ সালে পাকশীর একটি স্কুলে পড়ালেখার সময় সে সময়ের ছাত্র মো. আবু কায়সার স্বপন পাকশী বাজারের মাস্টার লাইব্রেরি থেকে কয়েকটি বই কেনেন। টাকা কম থাকায় সে সময় ওই বইয়ের দোকানে সাত টাকা বাকি রেখে যান তিনি। এদিকে ১৯৯৬ সালে মাস্টার লাইব্রেরির মালিক তৎকালীন প্রধান শিক্ষক তাহেরুল ইসলাম তার বইয়ের ব্যবসা বন্ধ করে দেন। গতকাল শুক্রবার আবু কায়সার স্বপন নামের ওই ছাত্র ঈশ্বরদী থেকে লালপুরে যাওয়ার সময় মাস্টার লাইব্রেরির মালিক তাহেরুল ইসলামকে ঈশ্বরদীর রেলওয়ে গেট বাসস্ট্যান্ডে দেখতে পেয়ে তার কাছে এগিয়ে যান। তার পরিচয় দিয়ে তাহেরুল ইসলামকে বাকি থাকা ৭টাকা দিতে চান।
এ বিষয়ে অবসরপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষক তাহেরুল ইসলাম বলেন, এখন থেকে ২০ বছর আগে আমার মাস্টার লাইব্রেরি নামের বইয়ের দোকান বন্ধ করে দিয়েছি। অনেকের কাছেইতো বাকিতে বই বিক্রি করেছি, সেসব এখন আর মনে নেই। এত বছর পর পাওনা টাকা ফেরত দিতে আসা প্রাক্তন ছাত্র মো. আবু কায়সার স্বপনকে তিনি ধন্যবাদ জানান। তবে ওই টাকা তিনি গ্রহণ করতে না চাইলে ডা. স্বপন সেখানে উপস্থিত সকলকে চায়ের আমন্ত্রণ জানালে তাতে সবাই অংশগ্রহণ করেন। ডা. স্বপন জানান, স্কুলজীবনে বই কিনে ৭ টাকা বাকি রেখেছিলাম। কিছুদিন পর পাকশী বাজারে সেই টাকা ফেরত দিতে গিয়ে দেখি বইয়ের দোকানটি নেই। পরবর্তীতে অন্যত্র লেখাপড়া করতে চলে যাওয়ায় ও কর্মজীবনে প্রবেশ করায় এতবছর অনেকবার চেষ্টা করেও ওই লাইব্রেরির মালিক তাহেরুল ইসলামকে খুঁজে পাই নি। গতকাল তাকে দেখতে পেয়ে তার কাছে ঘটনা খুলে বলি। ডা. স্বপন ঈশ্বরদীর পাকশী ইউনিয়নের নতুন রূপপুর কড়ইতলা এলাকার বাসিন্দা, তিনি বর্তমানে লালপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের উপসহকারী মেডিকেল অফিসার হিসেবে কর্মরত আছেন।