বগুড়া বিএনপির দুপক্ষের পাল্টাপাল্টি অবস্থান: উত্তেজনা চরমে

আপডেট: মে ১৮, ২০১৯, ১২:১৪ পূর্বাহ্ণ

বগুড়া প্রতিনিধি


বগুড়া জেলা বিএনপির আহব্বায়ক কমিটির বিরোধীরা দলীয় কার্যালয়ে তালা দিয়ে আহব্বায়ক গোলাম মোহাম্মদ সিরাজের কুশপুত্তলিকা দাহ করে-সোনার দেশ

বগুড়ায় বিএনপির আহবায়ক কমিটি ঘোষণার পর থেকে বিএনপিতে বহিষ্কার, বহিষ্কারাদেশ প্রত্যাহার, কমিটির বিলুপ্তি ও আহ্বায়ক কমিটি গঠনের প্রতিবাদে তালা পাল্টা তালা, সিনিয়র নেতার বাড়িতে হামলাকে ঘিরে এখন অস্থির অবস্থা বিরাজ করছে। যে কোন মূহর্তে রক্তক্ষয়ী সংঘর্ষ হতে পারে বিবাদমান দুগ্রুপের সমর্থকদের মধ্যে।
গত ৪ মে বগুড়া জেলা বিএনপির কমিটি বিলুপ্ত ঘোষণার দু’সপ্তাহ পর ১৫ মে সাবেক এমপি জিএম সিরাজকে আহ্বায়ক করে ৩১ সদস্য বিশিস্ট বগুড়া জেলা বিএনপির নতুন আহ্বায়ক কমিটি গঠন করা হয় । এ খবরে আগে থেকেই তার ওপর খাপ্পা নেতা ও কর্মিরা ইফতারের পর দলীয় কার্যালয়ের সামনে আগুন জালায় ও দলের কার্যালয়ে তালা ঝুলিয়ে দেয় । এসময় সেখানে ক্ষিপ্ত নেতা কর্মিরা জিএম সিরাজকে টাকা দিয়ে মনোনয়ন ক্রয়ের পর টাকা দিয়ে দলের পদ ক্রয়ের অভিযোগে অভিযুক্ত করে। এই গ্রুপের নেতা কর্মিরা স্থান ছেড়ে চলে যাওয়ার পর তারাবীর নামাজ শেষ করে নব গঠিত আহ্বায়ক কমিটির দুই যুগ্ম আহবায়ক অ্যাড. ছাইফুল ইসলাম, ফজলুল বারি বেলালসহ কয়েকজন তোর নেতৃত্বে একদল নেতা কর্মি দলীয় কার্যালয়ে উপস্থিত হয়ে বিরোধিদের লাগানো তালা ভেঙে কার্যালয়ে প্রবেশ করে। কার্যালয়ে কিছুক্ষন অবস্থানের পর তারা বেরিয়ে যাবার সময় নতুন করে তালা লাগিয়ে যায়।
এরপর আহ্বায়ক কমিটির সদস্যরা বগুড়ার ‘চম্পা মহল’ খ্যাত সাবেক এমপি হেলালুজ্জামান লালুর বড়িতে সমবেত হয়ে আলোচনায় বসে । খবর পেয়ে আহ্বায়ক কমিটির বিরোধিরা লালু এমপির বাসভবন চম্পা মহলের বাড়ির বাইরে জড়ো হয়ে হামলা ও দাঁড় করিয়ে রাখা মোটর সাইকেল ভাঙচুর করে। পরে বাড়ির ভিতর থেকে বেরিয়ে এসে নেতা কর্মিরা হামলাকারিদের ধাওয়া করে । এতে রাতের বেলায় ওই এলাকায় বসবাসকারি লোকজনের মধ্যে আতঙ্ক ও ভীতির সঞ্চার হয় । এই সব ঘটনার প্রেক্ষিতে পরদিন বৃহষ্পতিবার বিএনপি নেতা স্বেচ্ছাসেবকদল নেতা শাহাবুল আলম পিপলু, জাসাস নেতা দেলোয়ার হোসেন হিরু পশারীসহ যুবদলের ৬ নেতা কর্মিকে বহিষ্কার ও ছাত্রদলের ২ নেতা কর্মিকে দল থেকে অব্যাহতি দেয়া হয়েছে। একই দিনে বগুড়া জেলা বিএনপির সাবেক জেলা সাংগঠনিক সম্পাদক মীর শাহে আলমের এবং বগুড়া সদর উপজেলা বিএনপির সাবেক সভাপতি মাফতুন আহম্মেদ খান রুবেলের বহিষ্কারাদেশ প্রত্যাহার করা হয়েছে ।
এঅবস্থার মধ্যেই গতকাল শুক্রবার দুপুর ৩টায় দলীয় কার্যালয়ে নবগঠিত আহবায়ক কমিটির পক্ষ থেকে সাংবাদিকদের সঙ্গে মতবিনিময় সভার আয়োজন করা হয়। সভা শুরুর কিছু আগেই আহবায়ক কমিটির পক্ষের কিছু নেতাকর্মী এসে দলীয় কার্যালয়ের সামনে প্রতিপক্ষের লাগানো তালা ভেঙে ভেতরে প্রবেশ করে। এর কিছুপর আহবায়কসহ নেতৃবৃন্দ এসে কার্যালয়ের সামনে সমাবেশ করে। সেখানে বগুড়া জেলা বিএনপির নব গঠিত কমিটির আহ্বায়ক সাবেক এমপি জিএম সিরাজ বলেছেন, সম্পূর্ণ গণতান্ত্রিক পন্থায় আগামী ৬ মাসের মধ্যে বগুড়া জেলা বিএনপির পূর্ণাঙ্গ কমিটি গঠন করা হবে। এক্ষেত্রে নতুন ও পুরাতন কমিটির সবাইকে সঙ্গে নিয়েই কাজ করা হবে। এরপর তিনি কার্যালয়ের ভেতরে সাংবাদিকদের সঙ্গে মত বিনিময় সভা করে।
সভা শেষ করে কার্যালয় ছেড়ে যাবার কিছুপর কমিটি বিরোধীরা এসে আবার কার্যালয়ে তালা লাগিয়ে দেয়। সেখানে তাদের টাঙানো ব্যানারে লেখাছিল হঠাও সিরাজ বাঁচাও দল, সিরাজের চামড়া তুলে নিব আমরা, সিরাজের দুই গালে জুতামার তালে তালেসহ নানান স্লোগান। এর একপর্যায়ে তারা বগুড়া জেলা বিএনপির নব গঠিত কমিটির আহ্বায়ক সাবেক এমপি জিএম সিরাজের কুশ পুত্তলিকা দাহ করে।
এ বিষয়ে বগুড়া জেলা বিএনপির বেশ কয়েকজন শীর্ষ নেতার সাথে যোগাযোগ করা হলে নাম প্রকাশ না করার শর্তে তারা জানান, বিষয়টি কারাবন্দী দেশ নেত্রী বেগম খালেদা জিয়া পর্যন্ত্ পৌঁছে গেছে। তিনি এতে মর্মাহত ও ক্ষুব্ধ। আহবায়ক কমিটি ঘোষণার পরথেকে দলীয় কার্যালয়ে এমন অবস্থায় রক্তক্ষয়ী সংঘর্ষের আশঙ্কা প্রকাশ করেছে সাধারণ নেতাকর্মীরা।