বঙ্গবন্ধু হত্যার নেপথ্যে জড়িতদের চিহ্নিত করতে কমিশন দ্রুত কমিশন গঠন করে কাজ শুরু হোক

আপডেট: সেপ্টেম্বর ৫, ২০১৯, ১:০৫ পূর্বাহ্ণ

বঙ্গবন্ধু হত্যার নেপথ্যে জড়িতদের চিহ্নিত করতে সরকার কমিশন গঠনের সিদ্ধান্ত নিয়েছে। পাশাপাশি বিদেশে পালাতক সাজাপ্রাপ্ত খুনিদের ফিরিয়ে আনাও সম্ভব হবে। সেই সঙ্গে খুনিদের সম্পত্তি বাজেয়াপ্ত করা হবে। ৩ সেপ্টম্বর আওয়ামী লীগের নেতৃত্বাধীন ১৪ দল আয়োজিত এক গোলটেবিল আলোচনায় আইনমন্ত্রী আনিসুল হক এবং পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. এ কে আব্দুল মোমেন এসব কথা জানান। এ সংক্রান্ত একটি প্রতিবেদন দৈনিক সোনার দেশ পত্রিকায় প্রকাশিত হয়েছে।
বঙ্গবন্ধু হত্যার নেপথ্যে জড়িতদের চিহ্নিত করতে কমিশন গঠনের দাবিটি দীর্ঘদিন থেকেই দেশের নাগরিক সমাজ করে আসছিল। এবং এই কমিশনের যৌক্তিকতা বলার অপেক্ষা রাখে না। ভারতের প্রধানমন্ত্রী ইন্দিরা ও রাজীব গান্ধীর হত্যাকা-ের ঘটনাতেও কমিশন গঠিত হয়েছিল। রাজনৈতিক হত্যাকা-ে অনেকগুলো ফ্রন্ট কাজ করে থাকে। এর মধ্যে প্রকাশ্যে একটি ফ্রন্ট থাকে যারা ঘটনাটি ঘটায়। বঙ্গবন্ধুর হত্যার ঘটনায় যারা প্রকাশ্যে জড়িত ছিল কেবল তাদেরই বিচার হয়েছে। কিন্তু এই হত্যাকা-ের ঘটনার পূর্বাপর বিশ্লেষণ করলে অনেক প্রশ্নের অবতারণা হয়। সাধারণত বঙ্গবন্ধুর মত নেতাকে সপরিবারে হত্যা- তা শুধু সেনাবাহিনীর মধ্যম সারির নেতাদের দ্বারাই সংঘটিত হয়েছে এটা ভাবার কোনো সুযোগ নেই। নেপথ্যে হত্যাকারীদের দৃঢ়তর সমর্থন ও সহযোগিতা না থাকলে বঙ্গবন্ধুকে হত্যা করা মোটেও সম্ভব ছিলনা। বঙ্গবন্ধু হত্যামামলার রায়ের পর্যবেক্ষণে অনেক বিষয় এসেছে যা নেপথ্যের কারিগরদের অবস্থানেরই ইঙ্গিত দেয়। বঙ্গবন্ধু হত্যাকা- একটি পরিকল্পিত ও নীল নকসায় সংঘটিত। এই হত্যাকা-ে বিদেশি যোগসাজসের বিষয়টিও বারবার সামনে এসেছে। ওই সময়ে সেনাবাহিনীর কতিপয় অফিসার যারা নেপথ্যের শক্তি হিসেবে কাজ করেছে তা বঙ্গবন্ধুর হত্যাকা-ের পর তাদের ভূমিকাতে অনেকটা পরিষ্কার হয়। ওই সময়ের অনেক আমলার ভূমিকা প্রশ্নবিদ্ধ হয়েছে। কতিপয় সংবাদপত্র. মালিক ও সাংবাদিকদের ভূমিকার কথা বারবার এসেছে। কিন্তু এসব মোটেও খতিয়ে দেখা হয় নি। পঁচাত্তরের পর দীর্ঘ সময় খতিয়ে দেখারও কোনো সুযোগ বা পরিবেশ ছিল না। কিন্তু পরিস্থিতি এখন পাল্টেছে। পঁচাত্তরের হত্যাকা-ের নেপথ্যে যারা জড়িত ছিল তাদেরকে জনগণের মুখোমুখি দাঁড় করানোর সময় এসেছে। ষড়যন্ত্রকারীরা নেপথ্যে থেকে গেলে ষড়যন্ত্রের রাজনীতির অব্যাহত ধারা থেকে জাতি বেরিয়ে আসতে পারবে না। আর এটা আইনের শাসন প্রতিষ্ঠার ক্ষেতেও বড় অন্তরায় হয়ে থাকবে।
বঙ্গবন্ধু হত্যার নেপথ্যে জড়িতদের চিহ্নিত করতে সরকার কমিশন গঠনের ব্যাপারে সিদ্ধান্ত নিয়েছেÑ এটা প্রশংসনীয়। তবে দ্রুত কমিশন গঠন করে কাজ শুরু হবে এটাই আমাদের প্রত্যাশা।

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ