বাংলাদেশের ফুটবল এখন ব্রিটিশদের হাতে

আপডেট: জুন ১৩, ২০১৯, ১২:২১ পূর্বাহ্ণ

সোনার দেশ ডেস্ক


বাংলাদেশের ফুটবলের ভবিষ্যৎ এখন ব্রিটিশদের হাতে! প্রায় এক বছর ধরে জাতীয় দলের প্রধান ও সহকারী কোচের আসনে দুই ব্রিটিশ জেমি ডে ও স্টুয়ার্ট ওয়াটকিসি। দুই ব্রিটিশ মস্তিষ্কে জাতীয় দলের কঙ্কালসার চেহারা বদলে যেতে শুরু করেছে। তাই ভবিষ্যৎ জাতীয় দল গঠনের দায়িত্বটাও ছেড়ে দেওয়া হচ্ছে ব্রিটিশদের হাতে। একাডেমিতে ভালো মানের খেলোয়াড় তৈরির লক্ষ্যে এবার কোচিং বহরে যোগ করা হয়েছে আরও তিনজন ব্রিটিশ কোচ। এ ছাড়া আগে থেকেই টেকনিক্যাল ও স্ট্র্যাটেজিক্যাল ডিরেক্টর হিসেবে আরেক ব্রিটিশ পল স্মলি তো আছেনই।
অনেক চড়াই-উতরাই পেরিয়ে চলতি বছর এপ্রিলে বাড্ডার বেরাইদে শুরু হয়েছে বাফুফে একাডেমির কার্যক্রম। অনূর্ধ্ব-১৫ ও ১৮ মিলিয়ে প্রথম দফায় খেলোয়াড় নেওয়া হয়েছে ৬০ জন। তলানিতে চলে যাওয়া দেশের ফুটবলে এর চেয়ে ভালো খবর বুঝি আর হতে পারত না। অবশেষে একাডেমি পাচ্ছে বাংলাদেশের ফুটবল, যেখানে নির্মাণ হবে আগামীর ফুটবলাররা।
বাংলাদেশের একটি ফুটবল একাডেমি নেই, এই যুগে বিষয়টি অবাক করার মতো। ফুটবল উন্নয়নের জন্য অত্যাবশ্যক এ বিষয়টি নিয়ে ফুটবল ফেডারেশন যে একদমই ভাবত না, তা নয়। মাঝে মধ্যেই কুম্ভকর্ণের মতো ঘুম থেকে জেগে ওঠে নিজেদের একাডেমি বানানোর স্বপ্নের কথা জানাতো বাফুফে। সেই স্বপ্ন দেখার সুবিধার্থেই হয়তো আবার ঘুমিয়ে পড়ত। কিন্তু এবার ফর্টিজ গ্রুপের সহায়তায় বাড্ডার বেরাইদে গড়ে তোলা একাডেমি নিয়ে বাফুফের তৎপরতা অবশ্য চোখে পড়ার মতো।
একাডেমি মানেই শেখার উপযুক্ত জায়গা। আর তার জন্য চাই ভালো কোচ। দেরিতে হলেও তৃণমূল থেকে ভালো মানের খেলোয়াড় তৈরি করার জন্যই তিন ব্রিটিশ কোচ নিয়ে আসা। এদের মধ্যে প্রধান কোচের দায়িত্ব পাওয়া অ্যান্ড্রু টিপার টার্নার ইংল্যান্ডের লিড একাডেমির কোচ ছিলেন। বাকি দুজন রবার্ট মারিন রালেস ও রবার্ট অ্যান্ড্রু মিমস। ম্যানচেস্টার সিটির সাবেক গোলরক্ষক মিমস ইতিমধ্যে বাংলাদেশ জাতীয় দলের গোলরক্ষক কোচের দায়িত্বে আছেন। নতুন দুজন ঢাকা পৌঁছেছেন গতকাল সকালে। সন্ধ্যায় বঙ্গবন্ধু জাতীয় স্টেডিয়ামে বসে দেখেছেন বাংলাদেশের বিশ্বকাপ প্রাক বাছাইয়ের ম্যাচ।
এর আগে ২০১৪ সালের ১৩ নভেম্বর সিলেট বিকেএসপিতে একাডেমি গড়েছিল বাফুফে। একাডেমির জন্য ফিফা ৭ লাখ ডলার দিলেও সেটি চালু রাখেনি বাফুফে। সেই একাডেমি বন্ধ হওয়ার প্রায় বছর পাঁচেক পর বাফুফেকে একাডেমি গড়তে সহায়তার হাত বাড়ায় ফর্টিজ গ্রুপ। বেরাইদে তাদের বিশাল মাঠ আছে। যে মাঠ দেখে বাফুফে একাডেমি করার জন্য উজ্জীবিত হয় আবার।-প্রথম আলো অনলাইন