বঙ্গবন্ধুর শততম জন্মবার্ষিকী

বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধ : যে নিবন্ধ পাল্টে দিয়েছিল ইতিহাস

আপডেট: December 7, 2019, 1:37 am

বিবিসি প্রতিবেদন


”আবদুল বারীর ভাগ্য ফুরিয়ে আসছিল। পূর্ববঙ্গের আরও হাজারো মানুষের মতো তিনিও বড় একটি ভুল করেছেন – তিনি পালাচ্ছেন, কিন্তু পালাচ্ছেন পাকিস্তানি পেট্টোলের সামনে দিয়ে। তার বয়স ২৪, সৈন্যরা তাকে ঘিরে ফেলেছে। তিনি কাঁপছেন, কারণ তিনি এখনই গুলির শিকার হতে যাচ্ছেন।”
এভাবেই শুরু করা হয়েছিল গত অর্ধ-শতকের দক্ষিণ এশিয়ার সাংবাদিকতার সবচেয়ে শক্তিশালী নিবন্ধগুলোর একটি।
লিখেছেন অ্যান্থনি মাসকারেনহাস, একজন পাকিস্তানি সাংবাদিক, যার প্রতিবেদনটি ছাপা হয়েছিল যুক্তরাজ্যের সানডে টাইমস পত্রিকায়। এই নিবন্ধের মাধ্যমেই প্রথমবারের মতো দেশটির পূর্ব অংশে পাকিস্তানি সেনাবাহিনীর দমন-পীড়ন আর নিষ্ঠুরতার বিষয়টি বিশ্বের সামনে উঠে আসে।
বিবিসি’র মার্ক ডামেট লিখেছেন, এই প্রতিবেদন সারা বিশ্বকে পাকিস্তানের বিপক্ষে ক্ষুব্ধ আর ভারতকে শক্ত ভূমিকা রাখতে উৎসাহিত করেছিল।
ভারতের তৎকালীন প্রধানমন্ত্রী ইন্দিরা গান্ধী সানডে টাইমসের সম্পাদক হ্যারল্ড ইভান্সকে বলেছিলেন, লেখাটি তাকে এত গভীরভাবে নাড়া দিয়েছিল যে এটি তাকে ইউরোপীয় রাজধানীগুলো আর মস্কোয় ব্যক্তিগতভাবে কূটনৈতিক পদক্ষেপ নিতে উৎসাহ দেয়, যাতে ভারত এক্ষেত্রে সশস্ত্র হস্তক্ষেপ করতে পারে।
তবে অ্যান্থনি মাসকারেনহাস এসব উদ্দেশ্য নিয়ে রিপোর্ট করেন নি। যেমনটা তার এডিটর হ্যারল্ড ইভান্স লিখেছেন, ”তিনি খুব ভালো একজন প্রতিবেদক, যিনি তার কাজটা সৎভাবে করছেন।”
তিনি ছিলেন খুব সাহসীও। তিনি জানতেন এই সংবাদ প্রকাশের আগেই তৎকালীন সেনা-শাসিত পাকিস্তান থেকে পরিবার পরিজন নিয়ে তাকে বেরিয়ে যেতে হবে- যা ওই সময়ে খুব সহজ কাজ ছিল না।
”তার মা তাকে সব সময়েই বলতেন যেন তিনি সত্যের পক্ষে থাকেন,” বলছেন মাসকারেনহাসের পত্নী ইভোন। “তিনি বলতেন, ‘আমার সামনে একটি পাহাড়ও যদি রাখো, আমি সেটি টপকে যাবো। তিনি কখনো হতোদ্যম হতেন না’।”
১৯৭১ সালের মার্চে যখন তৎকালীন পূর্ব পাকিস্তানে যুদ্ধ শুরু হয়, মি. মাসকারেনহাস তখন করাচির একজন নামী সাংবাদিক। স্থানীয় গোয়ান-খ্রিস্টান সম্প্রদায়ের তিনি একজন সদস্য। তার এবং ইভোন-এর পাঁচটি সন্তান রয়েছে।
২৫শে মার্চ রাতে পাকিস্তানি বাহিনী আওয়ামী লীগের নেতাকর্মী, বুদ্ধিজীবী, হিন্দু সম্প্রদায় আর সাধারণ বাঙালিদের বিরুদ্ধে পূর্ব পরিকল্পিত অভিযান শুরু করে।
আরো অনেক যুদ্ধাপরাধের মতো সৈন্যরা ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে হামলা করে, ছাত্র-শিক্ষকদের লাইনে দাঁড় করিয়ে গুলি করে মারে। ঢাকা থেকে ভীতি ছড়িয়ে পড়ে গ্রামগুলোতেও।
তাদের এই পরিকল্পনা কিছুটা সাফল্য পাওয়ার পর পাকিস্তানি সেনাবাহিনী সিদ্ধান্ত নেয় যে পশ্চিম পাকিস্তান থেকে কয়েকজন সাংবাদিককে এনে ঘুরিয়ে দেখানো হবে যে বিদ্রোহীদের বিরুদ্ধে তারা কতটা সফলতা পেয়েছে।
উদ্দেশ্য ছিল পূর্ব বাংলায় যে তাদের ভাষায় সব কিছুই স্বাভাবিক সেটি তুলে ধরা।
(চলবে)