বাগমারায় প্রভাবশালীর বিরুদ্ধে সরকারি রাস্তার গাছ কাটাসহ নানা অভিযোগ

আপডেট: অক্টোবর ৯, ২০১৯, ৯:৪৫ অপরাহ্ণ

বাগমারা প্রতিনিধি


রাজশাহীর বাগমারা উপজেলার গোবিন্দপাড়া ইউনিয়নের ময়েজ উদ্দীন নামের এক প্রভাবশালীর বিরুদ্ধে সরকারি রাস্তার গাছ কাটাসহ নানা অভিযোগ উঠেছে। তার বিরুদ্ধে কোনো ব্যবস্থা না নেয়ার কারনে বেপরোয়াভাবে এলাকায় চলাফেরা করেন। এলাকার লোকজনের অভিযোগ হাটগাঙ্গোপাড়া পুলিশ তদন্ত কেন্দ্রের জনৈক কর্মকর্তার সঙ্গে দীর্ঘদিন ধরে সু-সম্পর্ক থাকার সুবাদে এলাকায় তিনি বেপরোয়াভাবে চলাফেরা করেন। এর আগেও তার বিরুদ্ধে গাছকাটাসহ চাকরি দেয়ার নামে অর্থ আত্মসাতের অভিযোগ রয়েছে। চাকরি দেয়ার নামে চার লাখ টাকা নিয়েছেন বলে ভুক্তভোগী জানিয়েছেন। কেউ প্রতিবাদ করলে তাকে পুলিশ দিয়ে বিভিন্ন ভাবে ভয়ভীতি ও মামলায় জড়ানোর চেষ্টা করেছেন বলেও জানা গেছে। এর আগে তিনি মসজিদের উন্নয়ন করবেন বলে একটি তেতুল গাছ বিক্রি করেন। অথচ তিনি কোনো মসজিদের উন্নয়ন করেন নাই। হাটদামনাশ বাজারের মসজিদের উন্নয়নের কথা বলে বাজারের শতবর্ষী ওই তেতুল গাছ যার মূল্য দুই থেকে আড়াই লাখ টাকা, কিন্তু সেটা তিনি দেড় লাখ টাকায় বিক্রি করেছেন। গাছ বিক্রির টাকা দিয়ে মসজিদের কোনো উন্নয়ন করা হয়নি বলে এলাকার কয়েকজন অভিযোগ করেছেন। এছাড়াও মসজিদের ইটের খোয়া দিয়ে তিনি নিজের বাড়িতে পাকাকরণের কাজ করেছেন বলেও অনেকেই অভিযোগ তুলেছেন। নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক এলাকার কয়েকজন জানান, গাছ কাটার বিষয়টি উপজেলা চেয়ারম্যান অনিল কুমার সরকারকে অবহিত করা হয়েছে।
বিষয়টি নিয়ে জানতে চাইলে গোবিন্দাপাড়া ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান বিজন কুমার সরকার বলেন, বিষয়টি শোনার সঙ্গে সঙ্গে আমি গ্রাম পুলিশ পাঠিয়েছি। গ্রাম পুলিশ পৌঁছার পূর্বেই ময়েজ উদ্দীন ফলন্ত আম গাছের ডালপালা কেটে সাফ করে দিয়েছে।
এসব ব্যাপারে যোগাযোগ করা হলে অভিযুক্ত ময়েজ উদ্দীন বলেন, ইউপি চেয়ারম্যান ও হাটগাঙ্গোপাড়া পুলিশ তদন্ত কেন্দ্রের ইনচার্জের অবগতিতেই রাস্তার আম গাছটি কেটেছি। আপনাদের আরো কিছু জানার থাকলে আপনারা ওদের কাছ থেকে জেনে নিতে পারেন।
এ ব্যাপারে উপজেলা নির্বাহী অফিসার শরিফ আহম্মেদ বলেন, বিষয়টি আমার জানা নেই। খোঁজখবর নিয়ে প্রকৃত ঘটনা জানার পর আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে।