বাঘায় টেন্ডার ছাড়াই খাদ্য গুদামের গাছ কর্তন

আপডেট: সেপ্টেম্বর ৩, ২০১৮, ১২:৩৭ পূর্বাহ্ণ

বাঘা প্রতিনিধি


বাঘায় কর্তনকৃত গাছের কিছু অংশ সোনার দেশ

রাজশাহীর বাঘা উপজেলার খাদ্য গুদামের গাছ কেটে নেয়ার অভিযোগ উঠেছে। কোনো টেন্ডার ছাড়াই উপজেলা খাদ্য অধিদফতরের (ভারপ্রাপ্ত) কর্মকর্তা আশরাফুল ইসলাম এই গাছ কেটে নিয়েছেন বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। গতকাল রোববার সকাল থেকে দিনব্যাপি ৫টি মেহগনি, একটি সোহাগী ও তিনটি আম গাছ কেটে নেয়া হয়।
গতকাল সরেজমিনে, উপজেলার খাদ্য গুদামের অফিস চত্বরের ওই আটটি গাছ কাটতে দেখা যায়। এসময় ১০ থেকে ১২ জন শ্রমিক এ গাছ কাটেন। শ্রমিকরা কেউ তাড়াহুড়ো করে কাটছে আবার কেউ কাটা গাছ ভ্যান তুলে নির্দিষ্ট এলাকায় নিয়ে যাচ্ছেন।
গাছ কাটার শ্রমিকরা জানান, গুদামে ট্রাক যেতে সমস্যা হয়। সেজন্য আশরাফুল স্যার গাছগুলো কাটার জন্য আমাদের এনেছেন।
স্থানীয় লাল মোহাম্মদ লালন জানান, উপজেলা গঠনের কিছুদিন পর বনবিভাগ গাছগুলো লাগিয়েছিলো। কিন্তু তাদের গাছ কাটার কোনো অনুমতি নেই। কিন্তু কীভাবে উপজেলা খাদ্য কর্মকর্তা গাছগুলো কেটে নিয়ে যাচ্ছে। এর তদন্ত সাপেক্ষে ব্যবস্থা নেয়া প্রয়োজন।
উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান জিন্নাত আলী বলেন, আমার জানা নেই। কেন কী কারণে গাছগুলো টাকা হলো।
বাঘা উপজেলা ভারপ্রাপ্ত খাদ্য কর্মকর্তা আশরাফুল ইসলাম বলেন, একটি নতুন খাদ্য গোডাউন হচ্ছে। এ খাদ্য গোডাউন করতে গিয়ে ঠিকাদাররা গাছগুলো কেটেছে। তবে কাটা গাছগুলো টেন্ডারের মাধ্যমে বিক্রি করা হবে।
উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা শাহিন রেজা বলেন, গাছ কাটার বিষয়টি আমার জানা ছিল না। বনবিভাগ বা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার কাছে থেকে গাছ কাটার অনুমতি নেয় নি। পরে সাংবাদিকদের মাধ্যমে জানলাম। তবে খাদ্য গুদামের রাস্তার দ্রুত কাজ করার জন্য মূলত গাছগুলো কাটা হয়েছে। তবে গাছ কাটার পরও টেন্ডার প্রক্রিয়া করা যায়। তারা বনবিভাগকে না জানিয়ে গাছ কেটে ঠিক করে নাই। তারপরও তদন্ত করে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নিব।

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ